মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

নৌকার ব্যাজ লাগিয়ে ভোট চাইছেন টেবিল ঘড়ির 

আপডেট : ২৫ মে ২০২৩, ১৬:০৭

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গিরিজা কিশর জি কে আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নারী ভোটারদের উপস্থিতি বাড়তে থাকে। ছবি: আজকের পত্রিকা দেশের সবচেয়ে বড় সিটি করপোরেশন গাজীপুরে ভোটার প্রায় ১২ লাখ। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকেই ভোটাররা আসতে থাকেন কেন্দ্রের দিকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে ভোটারের সংখ্যাও।

সকাল থেকে নগরীর জয়দেবপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, হাড়িনাল উচ্চ বিদ্যালয়, শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় ও কাজী আজিম উদ্দিন কলেজসহ বেশ কিছু কেন্দ্র ঘুরে নৌকা ছাড়া অন্য কোনো মেয়র প্রার্থীর এজেন্টের দেখা মেলেনি। এসব কেন্দ্রের প্রায় সবগুলোতেই আজমত উল্লা খানের নৌকার সমর্থক ছিল চোখে পড়ার মতো। সরেজমিনে দেখা যায়, যারা নৌকার ব্যাজ লাগিয়ে আছেন তাদের মধ্যে বেশির ভাগই ভোট চাইছেন জাহাঙ্গীর আলমের মা জায়েদা খাতুনের টেবিল ঘড়ির জন্য। 

বিষয়টি অনেকটা ওপরে নৌকা, ভেতরে ঘড়ির মতো। প্রতিবেদকের সঙ্গে অন্তত ১৫ জনের আলাপ হয় এ বিষয়ে। নাম-পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে তাঁরা বলেন, নিরাপত্তার কারণে নৌকার পক্ষে থাকতে হবে তাঁদের। কিন্তু ভেতরে তাঁরা টেবিল ঘড়ির জন্যই ভোট চাইছেন। পাশাপাশি অন্য মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের কেন্দ্রের আশপাশে থাকতে দেওয়া হচ্ছে না তাই এই পদ্ধতি। 

গাজীপুরের মোট ভোটারের প্রায় ৩০ শতাংশের বসবাস টঙ্গী এলাকায়। স্থানীয় অনেকেই জানিয়েছেন, গাজীপুরে জাহাঙ্গীরের জনপ্রিয়তা বেশি। এমনকি টঙ্গীতে আজমত উল্লার প্রভাব থাকলেও অনেকেই জাহাঙ্গীরের মাকে ভোট দিচ্ছেন। 

এর একটা বড় কারণ হিসেবে ভোটাররা বলছেন, কেন্দ্রে পোলিং এজেন্ট না থাকলেও সিসি ক্যামেরা একটা বড় ধরনের পরিবর্তন তৈরি করেছে। ভোট দেওয়ার গোপন কক্ষে কাউকে ঢুকতে না দেওয়ার ফলে ভোটাররা নিজেদের ইচ্ছামতো ভোট দিতে পারছেন।  তাই কে কাকে ভোট দিচ্ছেন সেটি বাইরে থেকে বোঝার উপায় নেই।

ভোটের প্রায় ৬ ঘণ্টার মাথায় শহীদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ে দেখা যায় টেবিল ঘড়ি মার্কার ব্যাজ গলায় ঝোলানো একজনের সঙ্গে। আশপাশে শত মানুষের ভিড়। একাই টেবিল ঘড়ির জন্য ভোট চাচ্ছিলেন তিনি। জিতবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নারীরা খালি ঘড়ি মারতাছে। সব জায়গায়ই এমন চলতাছে ভাই। আমগো এজেন্ট দরকার নাই। ভোট পাইলেই হইব। শুধু গোনাডা ঠিক কইরা করলে ঘড়ি জিতব।’

ওই কেন্দ্রেই পুলিশের এক সহকারী পুলিশ পরিদর্শকের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। তিনি কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম হওয়ার কারণে হতাশা প্রকাশ করেন। কেন্দ্রের ভেতরে এত লোকের জমায়েতের বিষয়ে জানতে চাইলে ওই এএসআই বলেন, ‘সব নৌকার লোক ভাই, এদের বাইর করে কি চাকরি হারাব?’

গাজীপুর সিটি নির্বাচন সম্পর্কিত আরও পড়ুন:

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    পাসপোর্ট অফিসের কর্মচারী ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    ব্যক্তিগত কাজে অফিসের গাড়ি, অগ্রণী ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    গজারিয়ায় আওয়মী লীগের ২ পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে গুলি, আহত ৯

    স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা ষড়যন্ত্র করে চলছে: ক্রীড়া মন্ত্রী 

    চন্দনাইশে শঙ্খ নদ থেকে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার 

    বুয়েট উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা

    জামিনে মুক্তি পেলেন যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী পাপিয়া

    অস্ট্রেলিয়াকে অপেক্ষায় রেখে সেমিতে ভারত

    পাসপোর্ট অফিসের কর্মচারী ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    যুক্তরাষ্ট্রের মানবপাচার প্রতিবেদনে বাংলাদেশ আগের অবস্থানেই, বেড়েছে প্রচেষ্টা

    ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার দিয়ে মালদ্বীপে ১৮ লাখ নতুন পর্যটক, পেছনে পড়ল সেশেলস 

    শরীফার গল্প: জেন্ডার বিশেষজ্ঞদের মত নিয়ে নতুন গল্প যুক্ত করার নির্দেশ