Alexa
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 
আষাঢ়ে নয়

আদর্শ বীরাপ্পন, নায়িকা সোনিয়া

আপডেট : ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৪৭

সোনিয়া আক্তার পিংকি মায়াবী চোখের নিষ্পাপ চাহনি। তাকালে মনে হয় ভেতরটা পড়া যায়। এমন লোককে ভালো না বেসে পারবে কেউ? মেয়েটির এই কথার কী জবাব দেব বুঝতে পারছি না। আমরা শুধু তাঁর কথা শুনছি। অপরূপ সুন্দরী তরুণীর এই অভিব্যক্তির কোনো জবাবও আমাদের কাছে নেই।

আমি অনেকক্ষণ ধরে মেয়েটিকে দেখছি। তিনি একটু অন্য রকম। কিছু মানুষ আছে, একটুতেই চোখে হুড়মুড়িয়ে পানি চলে আসে, মেয়েটি একদমই সে রকম নয়। ঋজু ও বুদ্ধিমতী। চোখের দৃষ্টি স্থির। পলক না ফেলে মেপে মেপে কথা বলেন, ঠিক যতটুকু দরকার।

এই তরুণীর সঙ্গে আমাদের কথোপকথনটাকে ইন্টারোগেশন বলাই ভালো। এটা আসলে কোনো স্বাভাবিক আলাপও নয়। রীতিমতো পুলিশি জেরা। ডিবির এএসপি আকতারুজ্জামান রুনু সেই জেরা করছেন। আর আমি তাঁর পাশে বসে শুনছি। ২০০১ সালের ৫ ডিসেম্বর, বুধবারের সন্ধ্যা। আমরা বসেছি মিন্টো রোডের পুরোনো ডিবি ভবনের নিচতলার একটি কক্ষে। ডিবির দুজন কর্মকর্তা সেই কক্ষে বসেন।

যে মেয়েটির সঙ্গে আমাদের এই কথাবার্তা, তাঁর নাম সোনিয়া আক্তার পিংকি। বয়স উনিশ-কুড়ি হবে। মেয়েটির অন্য একটি পরিচয় আছে। তিনি শীর্ষসন্ত্রাসী কালা জাহাঙ্গীরের স্ত্রী। জাহাঙ্গীরকে ধরিয়ে দিতে ২০০১ সালের ২৬ ডিসেম্বর পুরস্কার ঘোষণা করেছিল সরকার। রাজধানীর সব সন্ত্রাসীর কাছে সোনিয়ার মর্যাদা ‘রানির’ মতো। উত্তরার ৪ নম্বর সেক্টরের ৮ নম্বর সড়কের একটি বাড়িতে তাঁরা থাকেন। দুজন অস্ত্রধারী যুবক দিন-রাত সেখানে পাহারা দেন, যাতে কেউ সোনিয়াকে ফুলের টোকাটিও দিতে না পারে।

এত পাহারার মধ্যে ৫ ডিসেম্বর ভোরে পুলিশ সেই বাসায় হানা দিয়ে সোনিয়াকে আটক করে, সঙ্গে তাঁর দেহরক্ষী শফিকেও অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয়। সে সময় আরও একজন অস্ত্রধারী ওই বাসায় ছিলেন। কিন্তু পুলিশ তাঁকে চিনতে না পারায় তিনি সেখান থেকে কেটে পড়েন।

ডিবি কর্মকর্তা আকতারুজ্জামান রুনু আমাকে বললেন, বাসাটির চারতলার একটি ফ্ল্যাটে থাকতেন কালা জাহাঙ্গীর ও তাঁর স্ত্রী সোনিয়া। আটকের দুই দিন আগে তাঁদের বিবাহবার্ষিকীর অনুষ্ঠান ছিল। সেই অনুষ্ঠানে অনেকে যোগ দিয়েছিলেন। এর পরই কালা জাহাঙ্গীরের হদিস জানতে পারে পুলিশ। এরপর তাঁকে না পেয়ে তাঁর স্ত্রী সোনিয়াকে তুলে আনা হয়। রুনু আমাকে বললেন, ‘চিন্তা কইরেন না, কান টানলে মাথাও আইব।’ এর আগে একবার কালা জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করেছিলেন রুনু। সে কারণে কালা জাহাঙ্গীরের গতিবিধির কিছু তথ্য তিনি জানতেন। আমারও ধারণা ছিল, এবারও কালা জাহাঙ্গীরকে ধরতে পারবেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর তা সম্ভব হয়নি।

ডিবির এই কর্মকর্তাকে অনুরোধ করেছিলাম, যেন সোনিয়ার একটি ইন্টারভিউ নেওয়ার সুযোগ আমাকে করে দেন। তিনি বলেছিলেন, মাগরিবের নামাজের পর তিনি জেরা করবেন, তখন কিছুক্ষণ কথা বলা যাবে। সেই সুযোগ নিতে তাঁর অফিসে এসেছি। আমার সামনেই সোনিয়াকে জেরা করছেন তিনি। দরকারমতো আমিও দু-একটা প্রশ্ন করছি।

প্রথমে যে কটি বাক্য দিয়ে এই লেখা শুরু করেছি, সেটা ছিল আমার একটি প্রশ্নের জবাব। সোনিয়ার কাছে আমি জানতে চেয়েছিলাম, এত বড় সন্ত্রাসীকে তিনি বিয়ে করলেন কেন? পরের প্রশ্ন ছিল, আপনার ডাকনাম কী? সোনিয়া সঙ্গে সঙ্গে বললেন, বাসায় সবাই ডাকে পিংকি, জাহাঙ্গীর ডাকে ‘বেগম মমতাজ’ বলে। এ কথা শুনে আখতারুজ্জামান রুনু হেসে বললেন, ‘হে কি তোরে লইয়া তাজমহল বানাইব?’ মেয়েটি সে কথারও জবাব দিয়েছিলেন। কিন্তু ঠিক কী বলেছিলেন, সেটা এখন আর মনে নেই।

সোনিয়ার এই জেরা চলছিল তিন ঘণ্টার বেশি। আখতারুজ্জামান রুনু বারবার জানতে চাচ্ছিলেন, কালা জাহাঙ্গীর কোথায়? সোনিয়া বললেন, তিনি অসুস্থ, দিনাজপুরে আছেন। টেলিফোনে যোগাযোগ হয়েছিল তাঁর সঙ্গে। তবে সোনিয়ার সব কথা বিশ্বাস করছিলেন না রুনু।

সোনিয়া বললেন, কয়েক দিন আগে তাঁদের বিবাহবার্ষিকী ছিল। সেই অনুষ্ঠানে জাহাঙ্গীর উপস্থিত ছিলেন। পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তাও এসেছিলেন। অভিযানের আগাম খবর হয়তো ওই কর্মকর্তারাই ফাঁস করে দেন। তার পরও সেদিন বাসার বাইরে থেকে কালা জাহাঙ্গীরের দেহরক্ষী আক্তারকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

আমি বারবার জানতে চাইছিলাম কালা জাহাঙ্গীরের সঙ্গে তাঁর পরিচয় ও বিয়ের ব্যাপারে। সোনিয়া বললেন, ১৯৯৯ সালে সূত্রাপুরের আইজি গেট এলাকায় তাঁরা থাকতেন। সেখানে কলেজে পড়ার সময় কালা জাহাঙ্গীরের সঙ্গে তাঁর পরিচয়। এরপর প্রেম হয়। প্রেম থেকে বিয়ের সিদ্ধান্ত। এতে অবশ্য অভিভাবকদের সম্মতি ছিল না। তবে পরে তাঁরা মেনে নেন। সোনিয়ার বাবার নাম আবদুল আজিজ। চার ভাই, সাত বোনের মধ্যে সবার ছোট সোনিয়া। তাঁদের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী থানায়।

উত্তরার বাড়িতে কবে এলেন জানতে চাইলে সোনিয়া বললেন, এক বছর আগে, পাঁচতলা বাড়ির চারতলার ফ্ল্যাট তাঁরা ভাড়া নেন ১২ হাজার টাকায়। এর আগে থাকতেন ফরিদাবাদে। নিরাপত্তার কারণে বাসাটি ছেড়ে দেন।

আমি জানতে চেয়েছিলাম, সোনিয়াকে গ্রেপ্তারের কথাটি জাহাঙ্গীর জানেন কি না। জবাবে সোনিয়া বললেন, পুলিশ যখন বাসায় ঢোকে, তখন জাহাঙ্গীরের সঙ্গে তিনি ফোনে কথা বলছিলেন। তখনই গ্রেপ্তারের খবর জেনে গেছেন।

পুলিশের জেরার জবাবে সোনিয়া বললেন, জাহাঙ্গীরের মাসে আয় ৭০ লাখ টাকার বেশি। ঢাকার অর্ধেক এলাকা তাঁর নিয়ন্ত্রণে। পুরো রাজধানী পাঁচটি সেক্টরে ভাগ করে পাঁচজন নিয়ন্ত্রণ করে। আইজি গেট দেখে কচি। কারওয়ান বাজার পিচ্চি হান্নানের সঙ্গে ভাগে চালায় জাহাঙ্গীর। আক্তার দেখে মহাখালী। সেনপাড়া পর্বতা, ভাষানটেক, মিরপুর-কাফরুল দেখে কিলার আব্বাস ও আলম। গার্মেন্টসের চাঁদা আদায় করে সাহাবুদ্দিন। বস্তির টাকা তোলে মুরব্বি সাহাবুদ্দিন। প্রতিটা সেক্টরে ২০-২৫ জন করে আছে।

কোন খাত থেকে কালা জাহাঙ্গীরের টাকা আসত বেশি? সোনিয়া বললেন, বেশির ভাগ টাকা আসত মিরপুর এলাকার গার্মেন্টস, মৎস্য খামার ও নির্মাণকাজের চাঁদাবাজি থেকে। এই টাকার অধিকাংশই খরচ হতো অস্ত্র কেনায়। কিছুদিন আগে তিনি (কালা জাহাঙ্গীর) ৩০ লাখ টাকার অস্ত্র কিনেছেন টিসিবি থেকে। টিসিবিই হলো তাঁর অস্ত্রের মূল জোগানদাতা। সেখানে তাঁর এক লোক আছে, সে ভুয়া লাইসেন্স জোগাড় করে অস্ত্র কিনে দেয় কালা জাহাঙ্গীরকে।

আমি জানতে চাইলাম, বাসায় থাকার সময় জাহাঙ্গীর কী করতেন? সোনিয়া বললেন, বাসায় প্রচুর ভিডিও গেম আছে। আর আছে মাসুদ রানার অসংখ্য সিরিজ বই। তিনি বাসায় বসে মাসুদ রানা সিরিজ পড়েন আর ভিডিও গেম খেলেন।

কবে জানলেন যে কালা জাহাঙ্গীর এত বড় সন্ত্রাসী? সোনিয়া বললেন, এসব তিনি নিজেই বলতেন। তিনি চাইতেন, এ দেশে সবচেয়ে বড় অস্ত্রভান্ডার তাঁর হবে। তিনি চাইতেন বীরাপ্পন (ভারতের একসময়ের ত্রাস চন্দনদস্যু বীরাপ্পন) হতে। সময় পেলে বীরাপ্পনের গল্প শোনাতেন। শোনাতেন তাঁর বাহাদুরির কথা।

সোনিয়ার সেই সাক্ষাৎকার বেশ বড় করে পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল। সোনিয়াকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল পুলিশ। পরে তিনি জামিনে মুক্তি পান। এরপর সোনিয়ার আর কোনো খোঁজ পাইনি।

২০০৫ সালে কালা জাহাঙ্গীরের মা পেয়ারা বেগম আমাকে বলেছিলেন, জাহাঙ্গীরের সবকিছু দেখভাল করত তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু নিটেল। একদিন রাতে সে এসে বলল, র‍্যাবের ধাওয়া খেয়ে মোহাম্মদপুরের একটি বাড়িতে তাঁরা আশ্রয় নিয়েছিলেন। সোনিয়ার পেটে তখন বাচ্চা। সেই অবস্থায় টেলিফোনে সোনিয়ার সঙ্গে ঝগড়া হয় জাহাঙ্গীরের। ঝগড়ার একপর্যায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে নিজের মাথায় গুলি করেন জাহাঙ্গীর। ফোনের অন্য প্রান্তে তখন সোনিয়া ছিলেন। জাহাঙ্গীরকে কোনো হাসপাতালে নেওয়া সম্ভব হয়নি। সেই বাড়িতেই মারা যান তিনি। রাতে তাঁর বাহিনীর লোকেরা তাঁকে সাততলা বস্তিতে দাফন করেন। এটা ছিল ২০০৩ সালের ১৫ ডিসেম্বর।
পেয়ারা বেগম বলছিলেন, জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর সোনিয়ার সঙ্গে তাঁদের আর কোনো যোগাযোগ হয়নি। জাহাঙ্গীরের একটি ছেলে আছে। তাঁর ধারণা, সোনিয়া বিয়ে করেছেন, আর পরিচয় আড়াল করে ছেলেটিকে বড় করছেন। বৃদ্ধা বললেন, সেই নাতির জন্য তাঁর মন খুব পোড়ে।

আরও পড়ুন:

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     
    আষাঢ়ে নয়

    যে পথ থেকে ফেরা যায় না

    ভূমির কারণেই সংখ্যালঘুরা বেশি নির্যাতিত হচ্ছে: কর্মশালায় বক্তারা

    এক বছরে ৫৩২ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা: জরিপ

    ক্ষমতার অপপ্রয়োগ যেন না হয়: ডিসিদের প্রতি রাষ্ট্রপতির নির্দেশ

    বিদেশে বসে অনলাইনে জমির পর্চা পাবেন প্রবাসীরা: ভূমিমন্ত্রী

    ঢাকায় হচ্ছে প্রথম পোলট্রি সম্মেলন, প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    বিএনপির পদযাত্রার আগে রাজধানীতে আ.লীগের ‘শান্তি সমাবেশে’

    পর্দায় আসছেন বুবুজান মাহি

    নেপাল চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের তিন সিনেমা

    ভালোবাসা দিবসে ‘বউ বোঝে না’

    গিটারশিল্পী‌দের মিলন‌মেলা

    ‘পান খেলেই’ মাথা দিয়ে ধোঁয়া ওঠে রব্বানীর