সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪

সেকশন

 

পাট জাগে মাছের বিপদ

আপডেট : ১৯ আগস্ট ২০২২, ১২:৪৩

নাটোরের গুরুদাসপুরের আত্রাই, নন্দকুঁজা ও গুমানী নদীতে ভেসে উঠছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা। ছবি: আজকের পত্রিকা নাটোরের গুরুদাসপুরের আত্রাই, নন্দকুঁজা ও গুমানী নদীতে ভেসে উঠছে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা। এসব পোনা ধরে বাজারে বিক্রি করছেন নদীপারের লোকজন। এর মধ্যে কিছু মরে যাওয়া পোনা পাওয়া যাচ্ছে। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বলছেন, বিভিন্ন কারণে নদীর তলদেশে অক্সিজেনের সংকট দেখা দিয়েছে। এ কারণে পোনাগুলো ভেসে উঠেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে আত্রাই, নন্দকুঁজা ও গুমানী নদীর মোহনা, শহরের চাঁচকৈড় গাড়িষাপাড়া এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে কাতলা, মৃগেল, রুইসহ দেশীয় প্রজাতির মাছের পোনা ভেসে উঠেছে। জেলেসহ নদীপারের মানুষ জাল দিয়ে এসব পোনা ধরছেন। পরে সেগুলো তাঁরা বাজারে বিক্রি করছেন।

এলাকার বাসিন্দা আজাহার প্রামাণিক ও বাবলু সরকারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে তাঁরা মাছ ধরছেন। এতে তাঁদের পরিবারের চাহিদা মিটছে। তবে নদীর পানিতে নামার কারণে তাঁদের শরীরে চুলকানি বেড়েছে।

কয়েকজন জেলে বলেন, সাধারণত নদীতে জাল ফেলে খুব একটা মাছ পাওয়া যায় না। কিন্তু এক সপ্তাহ ধরে দুই ঘণ্টা মাছ ধরে ১৫-২০ কেজি করে মাছ মিলছে। এতে সংসার ভালোই চলছে। তবে নদীর পানি আগের মতো ভালো নেই। লালচে দুর্গন্ধ হয়ে পড়েছে নদীর পানি। দীর্ঘক্ষণ পানিতে থাকার পর সাবান দিয়ে গোসল করেও চুলকানি যাচ্ছে না।

চলনবিল রক্ষা আন্দোলন কমিটির গুরুদাসপুর পৌর কমিটির সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান। তিনি আজকের পত্রিকাকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নাটোরের কলকারখানার বিভিন্ন বর্জ্য ফেলা হচ্ছে নদীতে। এ কারণে জলজ উদ্ভিদসহ মাছের ক্ষতি হচ্ছে। এ বছর বৃষ্টি-বন্যা কম হওয়ায় বিল-জলাশয়গুলোয় পানির সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে নদীগুলোয় পাট জাগ দেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। পাট পচে পানি বিষাক্ত হয়ে উঠেছে। প্রভাব পড়েছে নদীতে বসবাস করা নানা প্রজাতির উদ্ভিদ ও মাছের ওপর।

মাছের পোনা ভেসে ওঠার কারণ সম্পর্কে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মহিদুল ইসলাম বলেন, কারখানার বর্জ্য নদীর পানিতে মিশছে। আবার এ মৌসুমে অনেকে নদীতে পাট জাগ দিয়েছেন। এসব কারণে নদীর তলদেশে অক্সিজেনের সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে পোনাগুলো মরে ভেসে উঠেছে। তবে ভেসে ওঠার প্রবণতাটা সূর্য ওঠার দুই ঘণ্টা পর্যন্ত থাকছে।

মহিদুল ইসলাম আরও বলেন, দিনের বেলায় সূর্যের আলো থাকায় নদীর তলদেশে থাকা ক্ষুদ্র উদ্ভিদগুলো সালোকসংশ্লেষণ করায় অক্সিজেনের সংকট হয় না। কিন্তু রাতে সেটি সম্ভব হয় না। ফলে অক্সিজেনের সংকটের কারণে পোনাগুলো নদীর তলদেশে থাকতে না পেরে পানির ওপরে ভেসে উঠছে। এ সুযোগে নির্বিচারে ধরা হচ্ছে এসব মাছের পোনা। তবে সূর্য ওঠা থেকে দুই ঘণ্টা সময় পর্যন্ত এসব পোনা নিধন না হলে মৎস্যসম্পদ রক্ষা পাবে। এ জন্য প্রচার চালানো হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    ঈদে টিভি নাটক ও টেলিফিল্ম

    ঈদে টিভিতে সিনেমা

    শেষ সময়ে ইভিএম প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর তোড়জোড়

    টিভিতে ঈদের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান

    টিভিতে ঈদের ধারাবাহিক নাটক

    টিভিতে ঈদের সংগীতানুষ্ঠান

    পাটকেলঘাটায় বিদ্যুতায়িত হয়ে শ্রমিক নেতার মৃত্যু 

    সাবধানে মাংস কাটাকাটি করতে অনুরোধ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

    ‘বাড়ি বদলেছি ২১ বার, ভাঙন দেখতে দেখতে চুল সাদা হয়ে গেল’

    আগামীকালের মধ্যে কোরবানি শেষ করার আহ্বান মেয়র আতিকের

    খাবারে ব্লেড পাওয়া যাত্রীকে অফার দিয়ে শান্ত করতে চাইল এয়ার ইন্ডিয়া