Alexa
রোববার, ২২ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

প্রথম নাসিক নির্বাচনের আগে পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন ৩ নির্বাচন কমিশনার

আপডেট : ২২ জানুয়ারি ২০২২, ২০:৪৩

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন। ছবি: সংগৃহীত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে (নাসিক) প্রথম ভোট হয় ২০১১ সালে। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শামীম ওসমানের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। শক্ত প্রার্থী হিসেবে বিএনপি নেতা তৈমুর আলম খন্দকারও ছিলেন মাঠে। শামীম-আইভী শিবিরে তখন টানটান উত্তেজনা। পরিস্থিতি এতটাই সঙ্গিন ছিল যে ভোট স্থগিত করে তিনজন নির্বাচন কমিশনার পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন। 

আজ শনিবার বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সিপিডির ‘সদ্যসমাপ্ত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন : জনপ্রতিনিধি নির্বাচন প্রক্রিয়া এবং অভিজ্ঞতা’ শীর্ষক ভার্চুয়াল সংলাপে এ তথ্য জানান তৎকালীন নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন। 

বক্তব্যের শুরুতে এম সাখাওয়াত বলেন, ‘আপনাকে দেখতে হবে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন কিন্তু মোটামুটি একটি সংসদীয় আসন। ৫ লাখের ওপরে ভোটার আছে। অনেক সংসদীয় আসনে ৫-৬ লাখ ভোটার। এখানে বিশেষ বিষয় নজর দেওয়ার ব্যাপার আছে। এখানে কে ভালো নেতা, কার বেশি ফলোয়ার এসব বিষয় রয়েছে।’ 

২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচন জীবনের সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং ও জটিল নির্বাচন ছিল উল্লেখ করে সাবেক এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘সেই নির্বাচনটা সঠিকভাবে করতে না পারলে আজ নারায়ণগঞ্জ নিয়ে এভাবে আলোচনা হতো না। যেটার রেশ এখনো রয়ে গেছে। এই নির্বাচনের প্রাক্কালে দেখেছি, নারায়ণগঞ্জের বেশির ভাগই খেটে খাওয়া মানুষ ও ব্যবসায়ী। তাঁরা শান্তিপূর্ণ এলাকা হিসেবে থাকতে চেয়েছেন। যেটা ইন্ডাস্ট্রির জন্য এবং ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য প্রয়োজন।’ 

নারায়ণগঞ্জকে সিটি করপোরেশন ঘোষণার পর প্রথম নির্বাচনের সময়কার জটিল পরিস্থিতি বর্ণনা করতে গিয়ে এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘২০১১ সালে নির্বাচনের সময় নারায়ণগঞ্জ নিয়ে প্রচুর কথা হয়েছে। ওই নির্বাচনে আমরা মোটেও আর্মি চাইনি। আর্মি আমাদের প্ল্যানের মধ্যেই ছিল না। (ভোটের) চার-পাঁচ দিন আগে আইভীসহ তাঁদের এজেন্টরা এবং সাধারণ মানুষ আর্মি চান। তাঁরা বারবার এ কথা বলেছেন, স্যার, আর্মি না আসলে আমরা কিন্তু ভোট দিতে পারব না। আমার এখনো মনে আছে, আমি ফিরে এসে ড. হুদাকে (তৎকালীন প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ টি এম শামসুল হুদা) অলমোস্ট আই ফোর্সড যে, নির্বাচনে কিন্তু নারায়ণগঞ্জে যদি আর্মি দেওয়া না হয় অন্য রকম হতে পারে এবং এটার জন্য আমরা দায়ী হব। তারপর আমরা আর্মির কথা বলি, রাজি হই আর্মি দেওয়া হবে।’ 

এম সাখাওয়াত বলেন, ‘আর্মি আমাদের জন্য নয়, আমরা কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য যতটুকু করার করেছিলাম। এটা ছিল নারায়ণগঞ্জবাসীকে ভরসা দেওয়ার জন্য যে, তাঁরা ভোট দিতে যেতে পারেন। প্রথমে আমরা ভেবেছিলাম, নির্বাচনটি বন্ধ করে দেব, এই পরিণতির জন্য আমরা দায় নেব এবং আমরা পদত্যাগ করব। আমি পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। তখনকার সচিবের অনুরোধে আমরা তা করিনি। আইভী তখন সরকারের ফেবারিট প্রার্থী ছিলেন না। সেই নির্বাচন হয়ে গেছে, নির্বাচনে আমরা একটি পাতাও পড়তে দিইনি।’ 

 ২০১১ সালের সেই নির্বাচনে শামীম ওসমানকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন সেলিনা হায়াৎ আইভী। এরপর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে সর্বশেষ ১৬ জানুয়ারির নির্বাচনসহ আরও দুইবার এই সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    বহুতল নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    শিক্ষকের বিরুদ্ধে বহিরাগত দিয়ে ৩ শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ

    পলাশে ৩৩ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নেই প্রধান শিক্ষক

    রাজবাড়ীতে বাস-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে শিক্ষকের মৃত্যু

    মা ও দুই সন্তানের মৃত্যুর ঘটনাটি হত্যাকাণ্ড: পিবিআই

    বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নরের পদত্যাগ দাবি পিপলসের আমানতকারীদের

    বহুতল নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    নেত্রকোনায় স্কুলছাত্রীকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় মামলা

    ৪৪তম বিসিএসের আসন বিন্যাস প্রকাশ

    মালদ্বীপে নথিবিহীন বাংলাদেশিদের বৈধ হওয়ার সুযোগ

    বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বচ্ছভাবে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে অভিন্ন নীতিমালা করবে ইউজিসি