মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

সেকশন

 

মাঝে মাঝে ভয় লাগে, ওদের অনেক রাগ: ফুলপরী

আপডেট : ১৬ মার্চ ২০২৩, ০৮:৫৪

ফুলপরী খাতুন

কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে হলে উঠেছিলেন ফুলপরী খাতুন। কয়েক দিনের মধ্যেই নির্যাতনের শিকার হন ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের কাছে। প্রতিবাদে রুখে দাঁড়ান। নির্যাতনকারীদের শাস্তি হচ্ছে। ফুলপরী আবার হলে উঠেছেন। গতকাল বুধবার ইবির বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব হলের গেস্টরুমে আজকের পত্রিকার রাহুল শর্মার সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

আজকের পত্রিকা: আপনার সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটনার বিস্তারিত জানতে চাই? 
ফুলপরী খাতুন: নতুন শিক্ষার্থী হলে উঠলে সবার সঙ্গেই তাঁরা (ছাত্রলীগ নেত্রী) বাজে আচরণ করেন। এটা এ বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচারে পরিণত হয়েছে। আমার সঙ্গে ওরা কী করেছে, তা দেশবাসী জানে। এত বড় অন্যায় কারোরই মুখ বুজে সহ্য করা উচিত নয়। এ ধরনের ঘটনা যেন আর কারও সঙ্গে না ঘটে, তাই সবাইকে (শিক্ষার্থী-শিক্ষক-অভিভাবক) র‍্যাগিংয়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। 

আজকের পত্রিকা: এ ঘটনায় প্রতিবাদ করার সাহস পেলেন কীভাবে? 
ফুলপরী খাতুন: অন্যায়ের বিরুদ্ধে না দাঁড়ালে কখনো ন্যায় প্রতিষ্ঠা করা যায় না। এ জন্যই সাহস করে এদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছি, রুখে দাঁড়িয়েছি। পরে শুনেছি এ ধরনের ঘটনা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায়ই ঘটে। আমার ঘটনায় দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য শিক্ষকদের ধন্যবাদ জানাই। কারণ, তাঁরা তদন্ত করে সত্যতা বের করেছেন। 

আজকের পত্রিকা: দোষীদের যে শাস্তি দেওয়া হয়েছে, তাতে কি আপনি সন্তুষ্ট? 
ফুলপরী খাতুন: তাঁরা আমাকে অমানুষিক নির্যাতন করেছেন, যা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। এগুলো ভাবলে আমি এখনো আঁতকে উঠি। তাই আমি চাই দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। যাতে ভবিষ্যতে কেউ এ ধরনের কাজ করার সাহস না পায়। আমার পরিবারসহ আইনজীবীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। আইনজীবী কিছু কাগজপত্র সংগ্রহ করতে বলেছেন। এগুলো সংগ্রহ করে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের সময় আইনি লড়াই (মামলা করা) শুরু করব। 

আজকের পত্রিকা: নিজের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত কি না? 
ফুলপরী খাতুন: প্রশাসন আমাকে নিরাপত্তা দিচ্ছে। তারপরও মাঝে মাঝে ভয় লাগে। কোন সময় কী হয়। কারণ, ওদের আমার ওপর অনেক রাগ। তবে আমি দমে যাব না। কেউ অন্যায় করলে প্রতিবাদ করবই। আশা করি, এ ঘটনার পর সবাই আমার থেকে বেশি প্রতিবাদ করার সাহস পাবেন। 

আজকের পত্রিকা: এ ঘটনায় পরিবার, সহপাঠী ও শিক্ষকদের ভূমিকা কেমন ছিল? 
ফুলপরী খাতুন: এখন সবাই আমাকে খুব সমর্থন করছে, পাশে থাকার কথা বলছে। অবশ্য এ ঘটনায় আমার পরিবারের সবচেয়ে বেশি সমর্থন পেয়েছি। আর শিক্ষকেরাও অনেক সহযোগিতা করেছেন। সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। 

গত ১১ ও ১২ ফেব্রুয়ারি কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে দুই দফায় ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী ফুলপরী খাতুনকে রাতভর নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, হলের প্রাধ্যক্ষ ও ছাত্র উপদেষ্টার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। এতে শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সানজিদা চৌধুরী অন্তরা ও ফিন্যান্স বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের তাবাসসুমসহ আরও সাত-আটজন জড়িত বলে উল্লেখ করেন তিনি। পরে বিষয়টি নিয়ে হল প্রশাসন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও উচ্চ আদালতের নির্দেশে জেলা প্রশাসনসহ মোট তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

তদন্ত কমিটির জমা দেওয়া প্রতিবেদনে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় ছাত্রলীগ নেত্রী সানজিদা চৌধুরী অন্তরাসহ পাঁচ শিক্ষার্থীকে দেশরত্ন শেখ হাসিনা হল থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়। বাকি শিক্ষার্থীরা হলেন ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের তাবাসসুম ও মাওয়াবিয়া, আইন বিভাগের ইসরাত জাহান মীম ও ফাইন আর্টস বিভাগের হালিমা খাতুন ঊর্মি।

এ ছাড়া ৪ মার্চ পাঁচজনকে সাময়িক বহিষ্কার করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে কেন তাঁদের স্থায়ী বহিষ্কার করা হবে না, এই মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর আগে তাঁদের হল ও ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    হাসপাতালে এক আসামিকে পিটিয়ে মারল আরেকজন

    চালের বস্তায় জাত ও দাম লিখতে গড়িমসি

    ঈদে মুক্তি পাওয়া সিনেমার হালচাল

    কৃষিতে সফল নুরুন্নাহার

    উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: বিএনপি-জামায়াত নেতারাও নামলেন ভোটের মাঠে

    পুতিনের পঞ্চম তারপর...

    স্যান্ডো গেঞ্জি পরেই বিমানবন্দরে পান্ডিয়া, মজা নিচ্ছেন নেটিজেনরা

    মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এল আরও ১৭ জান্তা সদস্য

    রহমতগঞ্জকে হারিয়ে সেমিফাইনালে বসুন্ধরা কিংস

    জমি নিয়ে বিরোধ: ভাগনেকে পিটিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ, মামা-মামি আটক

    চট্টগ্রামে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন

    নতুন বছরে আমরা কেউ যেন নিরাপত্তাহীনতায় না থাকি: ড. ইউনূস