Alexa
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

গণশুনানিতে ‘দেওয়ানের পুল’ ভাঙার পক্ষে মত 

আপডেট : ২২ জানুয়ারি ২০২৩, ২২:৪৭

সিলেটের ‘দেওয়ানের পুল’ ভাঙার সিদ্ধান্তের বিষয়ে গণশুনানি। ছবি: আজকের পত্রিকা সিলেটের গোলাপগঞ্জে মোগল স্থাপত্যের নিদর্শন ‘দেওয়ানের পুল’ ভাঙা নিয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের উদ্যোগে গণশুনানি হয়েছে। আজ রোববার বেলা ১১টার দিকে ওই সেতুসংলগ্ন মাঠে ৩ ইউনিয়নের ১৭০-১৮০ জনের সামনে এ গণশুনানি হয়। 

এতে অনেকেই লিখিতভাবে মতামত দেন। এর মধ্য ১৩০-১৪০ জন মোগল সেতুটি ভেঙে নতুন করে নির্মাণের পক্ষে মত দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন সিলেট অঞ্চলের এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ইনামুল কবির।

গোলাপগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ দেওয়ান সড়ক হেতিমগঞ্জ থেকে ঢাকা যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ একটি পথ। এ সড়ক দিয়ে ঢাকা দক্ষিণ, ভাদেশ্বরসহ পূর্ব সিলেটে সহজেই যাওয়া যায়। সম্প্রতি রাস্তাটি প্রশস্ত, মেরামত ও উন্নয়নের জন্য প্রায় ৩০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ হাতে নেয়। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের ব্যবস্থাপনায় কাজ শুরু হলে মাঝপথের স্থাপনা দেওয়ান পুল ভাঙা শুরু হয়।

তখন স্থানীয়রা ও পরিবেশবিদেরা পুল ভাঙার প্রতিবাদ করেন। ফলে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশ হয়। ফলে সেতু ভাঙার কাজ স্থগিত রাখতে সরকারিভাবে নির্দেশনা জারি হয়। এতে শুধু সেতুসহ রাস্তা নির্মাণের কাজও স্থগিত হয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের আরেকটি পক্ষ পুরোনো সেতুটি ভেঙে নতুন সেতু নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন করেন। ফলে দেওয়ানের পুল ভাঙা হবে কি না, এ নিয়ে গণশুনানিরা আয়োজন করা হয়।

গণশুনানিতে সভাপতিত্ব করেন লক্ষ্মীপাশা ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান মাহতাব উদ্দিন জেবুল। ইউপি সদস্য এম এ আহাদ ও এনামুল হক আবুলের পরিচালনায় গণশুনানিতে বক্তব্য দেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মঞ্জুর কাদির শাফি চৌধুরী এলিম, ভাইস চেয়ারম্যান নাজিরা বেগম শিলা, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ মিছবাহ উদ্দিন, সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১-এর সভাপতি সাংবাদিক আবদুল আহাদ, ফুলবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হানিফ, ঢাকা দক্ষিণ ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য সেলিম আহমদ, ফুলবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি নুরুল আলম, শ্রীবহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব মজনু মিয়া প্রমুখ।

এ সময় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের প্রতিনিধিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এলজিইডির সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী ইনামুল কবির, গোলাপগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান। 

এ বিষয়ে সিলেট অঞ্চলের এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ইনামুল কবির রোববার সন্ধ্যায় আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘৩টি ইউনিয়নের ১৭০-১৮০ জন লোক এতে অংশ নেন ও মতামত দেন। ১৩০-১৪০ জন সেতুটি ভেঙে নতুন করে নির্মাণের পক্ষে মত দিয়েছেন। তাঁদের মতামত আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে পাঠাব। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবে। পুরাকীর্তি কর্তৃপক্ষেরও মতামত নেওয়া হবে। এ ছাড়া সিলেটের ১৩টি পুরাকীর্তির মধ্যে দেওয়ানের পুল নেই বলেও জানান এই প্রকৌশলী।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেটের কোষাধ্যক্ষ ছামির মাহমুদ আজকের পত্রিকাকে বলেন, মোগল আমলের দেওয়ানের পুল প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের সম্পদ। প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক দেওয়ানের পুল না ভাঙতে চিঠি দিয়েছেন। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ঝিনাইদহে আগুনে পুড়ে নারীর মৃত্যু

    সাটুরিয়ায় সড়কের কাজে ধীর গতি, জনদুর্ভোগ চরমে

    বাকি খাইয়ে প্রায় দেউলিয়া, ঢাবির জসীমউদ্দিন হলের ক্যানটিন বন্ধ

    বাঘায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এক যুবক গ্রেপ্তার

    সংবাদ প্রকাশের পর চট্টগ্রামে রেলের সেই কর্মচারীর অবৈধ দোকান উচ্ছেদ

    মাছ কাটা নিয়ে ঝগড়া, গায়ে আগুন দিয়ে গৃহবধূর ‘আত্মহত্যা’

    বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    চাকরি দেবে কর কমিশনারের কার্যালয়, পদসংখ্যা ৩০

    ইউক্রেনে যুদ্ধবিমান পাঠাবেন না বাইডেন

    ভবিষ্যৎ স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য

    শিল্পের পথ রুদ্ধ করা যায় না

    অন্তরের দৃষ্টি