সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪

সেকশন

 

মুজিবনগর সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিভঙ্গি

দিল্লিতে একাধিক আলোচনা বৈঠকের পর ১০ এপ্রিল তাজউদ্দীন এক বেতার ভাষণে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার গঠনের ঘোষণা দেন, যাতে মার্চের অসহযোগ আন্দোলনের সময় বঙ্গবন্ধু কর্তৃক গঠিত হাইকমান্ডের সদস্যদের মন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

আপডেট : ১৮ মে ২০২৪, ০৮:১৮

মেহেরপুরের মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ। ছবি: সংগৃহীত গত ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবসে প্রতিবছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে এই ঐতিহাসিক দিনটির স্মরণ-উৎসবের সূচনা করে থাকেন, এবারও করেছেন। কিন্তু মেহেরপুরের মুজিবনগর স্মৃতিসৌধের প্রতিবছরের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের দায়িত্বটা বর্তাচ্ছে আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতার ওপর, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরের মতো এবারও মুজিবনগরে অনুপস্থিত ছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ গ্রহণকে আর কত দিন যথাযথ গুরুত্ব প্রদান করা থেকে বিরত থাকা হবে? ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামও অনেক বছর ধরে আওয়ামী লীগের মূল নেতৃত্ব থেকে ছিটকে পড়েছেন। অথচ তিনি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম দিশারি এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের মূল মুসাবিদাকারী। এই ইতিহাস খণ্ডিতকরণ কি একধরনের ‘ইতিহাস-বিকৃতি’ নয়?
আমার দৃঢ় বিশ্বাস, ১৯৭১ সালের ২৫ ও ২৬ মার্চের রাতের ঘটনাবলির ধারাবাহিকতায় আমাদের মুক্তিযুদ্ধ যেভাবে শুরু হয়েছিল, তার সঙ্গেই ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে মুজিবনগর সরকার গঠন ও শপথ গ্রহণ। আমার বিবেচনায় ওই পর্যায়ে তাজউদ্দীন ও আমীর-উল ইসলাম যে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছিলেন, তার জন্য জাতির তাঁদের কাছে চিরকৃতজ্ঞ থাকা উচিত। আমার এই বিবেচনার ব্যাখ্যা নিম্নরূপ: ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় যখন ইয়াহিয়া খান গোপনে ঢাকা ত্যাগ করলেন, তখনই সারা দেশের মানুষের কাছে পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল যে পাকিস্তানি ঘাতক বাহিনী বাঙালি জাতির ওপর সশস্ত্র আঘাত হানতে যাচ্ছে। পূর্বপরিকল্পনা মোতাবেক বঙ্গবন্ধু ও তাজউদ্দীনের আন্ডারগ্রাউন্ডে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করার কথা ছিল। সেনাবাহিনী ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থেকে রওনা হওয়ার খবর পেয়েই তাজউদ্দীন বঙ্গবন্ধুর বাসায় গেলেন তাঁকে নিয়ে যেতে, পুরান ঢাকার একটি বাসাও ঠিক করে রাখা হয়েছিল আত্মগোপনের জন্য। কিন্তু ইতিহাসের ওই যুগসন্ধিক্ষণে শেষ মুহূর্তের সিদ্ধান্তে বঙ্গবন্ধু কোথাও যেতে রাজি হলেন না। তাজউদ্দীনের তাবৎ কাকুতি-মিনতি বিফলে গেল। বঙ্গবন্ধুর এক কথা, ‘তোমরা যা করার করো, আমি কোথাও যাব না।’ তাজউদ্দীন একটি স্বাধীনতার ঘোষণাও লিখে নিয়ে গিয়েছিলেন এবং টেপরেকর্ডারও নিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু টেপে বিবৃতি দিতে অস্বীকৃতি জানালেন। বঙ্গবন্ধুর মন্তব্য, ‘এটা আমার বিরুদ্ধে দলিল হয়ে থাকবে। এর জন্য পাকিস্তানিরা আমাকে দেশদ্রোহের জন্য বিচার করতে পারবে।’

তাজউদ্দীনকে খালি হাতে ফিরিয়ে দিলেও স্বাধীনতা ঘোষণার বিকল্প ব্যবস্থা ছিল বঙ্গবন্ধুর, এটা এখন প্রমাণিত। তিনি স্বেচ্ছায় পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার সিদ্ধান্ত যেমনি নিয়েছিলেন, তেমনি আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতার অগোচরে ওয়্যারলেস ও অন্যান্য মাধ্যমে স্বাধীনতা ঘোষণার বার্তাটিও জাতিকে জানানোর ব্যবস্থাটি বাস্তবায়ন করেছিলেন। শারমিন আহমদের ‘তাজউদ্দীন আহমদ: নেতা ও পিতা’ বইয়ে ওয়্যারলেসের চিফ ইঞ্জিনিয়ার নুরুল হকের একটি টেলিফোন কল রিসিভ করার প্রসঙ্গটি বর্ণিত হয়েছে, যে কলটি ২৫ মার্চ মধ্যরাতের অব্যবহিত পর রিসিভ করেছিলেন বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত সহকারী গোলাম মোরশেদ। ইঞ্জিনিয়ার নুরুল হক গোলাম মোরশেদের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ‘মেসেজটি পাঠানো হয়ে গেছে। এখন মেশিনটি কী করব?’ তখন গোলাগুলি শুরু হয়ে গেছে। হয়তো তাই বঙ্গবন্ধু টেলিফোন কল রিসিভ না করেই গোলাম মোরশেদের মাধ্যমে জবাব দিয়েছিলেন, ‘মেশিনটি ভেঙে ফেলে পালিয়ে যেতে বল।’ হাজি গোলাম মোরশেদের এই কাহিনির সমর্থন মিলছে ইঞ্জিনিয়ার নুরুল হককে ১৯৭১ সালের ২৯ মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ওই ওয়্যারলেস মেসেজ পাঠানোর অপরাধে বাসা থেকে ধরে নিয়ে হত্যা করার ঘটনায়। এই কাহিনির একমাত্র সাক্ষী গোলাম মোরশেদ আজও বেঁচে আছেন। ২৫ এপ্রিল ২০১৪ চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে শারমিন আহমদের বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে তিনি সংক্ষিপ্ত ভাষণে ওই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছিলেন, ওই অনুষ্ঠানে আমিও আলোচক ছিলাম।

এই কাহিনিগুলো ২৬ মার্চ রাতের বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার অকাট্য প্রমাণ, যা ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে’ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এ রকম একটা মেসেজই চট্টগ্রামের ওয়্যারলেস অফিস থেকে হয়তো ডা. নুরুন্নাহার জহুরকে ফোনে পৌঁছে দেওয়া হয়েছিল, যেটা সাইক্লোস্টাইল করে ২৬ মার্চ ভোর থেকে চট্টগ্রামে প্রচার করা হয়েছিল! ২৬ মার্চ সকালে একটি ঘোড়ার গাড়িতে করে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচারকারীদের হাত থেকে আমিও ওই লিফলেটটা পেয়েছিলাম চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লায়।

বঙ্গবন্ধুকে টেপে স্বাধীনতা ঘোষণায় রাজি করাতে না পেরে বিক্ষুব্ধ চিত্তে নিজ ঘরে ফিরে গিয়েছিলেন তাজউদ্দীন। এরপর কীভাবে ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম তাজউদ্দীনকে বাসা থেকে নিজের গাড়িতে তুলে নিয়ে লালমাটিয়ার এক বাড়িতে গিয়ে আত্মগোপন করেছিলেন এবং ২৭ মার্চ কারফিউ প্রত্যাহারের পর জীবন বাজি রেখে তিন দিন তিন রাতের কঠিন ও বিপৎসংকুল যাত্রা পার হয়ে ৩০ মার্চ কুষ্টিয়ার জীবননগর সীমান্তের টুঙ্গি নামের জায়গার একটি কালভার্টের ওপর পৌঁছে তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এবং মাহবুবউদ্দিন আহমদকে বিএসএফের কর্মকর্তাদের কাছে আলোচনার জন্য পাঠিয়েছিলেন তার মনোমুগ্ধকর বর্ণনা তাজউদ্দীন-কন্যা শারমিন আহমদের বইটির ১০৬-১১০ পৃষ্ঠায় উল্লিখিত আছে। তাজউদ্দীন ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর এক সাক্ষাৎকারে জাতিকে জানিয়েছিলেন যে টুঙ্গির ওই কালভার্টের ওপর অপেক্ষা করার সময়ই তিনি সিদ্ধান্ত নেন, একটা স্বাধীন সরকার প্রতিষ্ঠা করে বাংলাদেশের স্বাধীনতাসংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করবেন এবং সে জন্য ভারতের সাহায্য কামনা করবেন। সফল আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে কিছুক্ষণের মধ্যেই তাজউদ্দীন এবং ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামকে বিএসএফের একটি ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল এবং খবর পেয়ে সেখানে আসেন বিএসএফের পশ্চিমবঙ্গের আঞ্চলিক প্রধান গোলক মজুমদার। তাঁর মাধ্যমে বিএসএফের মহাপরিচালক সুন্দরজি খবর পেয়ে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন। মিসেস গান্ধী তাজউদ্দীন ও ব্যারিস্টার আমীরকে সাক্ষাৎদানে সম্মত হওয়ায় তাঁদের নয়াদিল্লি নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। এয়ারপোর্টে তাঁদের জামা-কাপড়ের মলিন দশা দেখে সুন্দরজি নিজের স্যুটকেস থেকে কাপড় বের করে দেন। পরে তাঁদের আরও কিছু জামাকাপড় কিনে দেওয়া হয়েছিল। 
দিল্লি পৌঁছানোর পর ৩ এপ্রিল শ্রীমতী গান্ধীর সঙ্গে তাঁদের সাক্ষাৎ ও আলোচনা হয়। এরই মধ্যে দিল্লি গিয়ে পৌঁছান বাংলাদেশের দুজন খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ রেহমান সোবহান ও ড. আনিসুর রহমান। তাঁরাও আলোচনায় শরিক হন। একাধিক আলোচনা বৈঠকের পর ১০ এপ্রিল তাজউদ্দীন এক বেতার ভাষণে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার গঠনের ঘোষণা দেন, যাতে মার্চের অসহযোগ আন্দোলনের সময় বঙ্গবন্ধু কর্তৃক গঠিত হাইকমান্ডের সদস্যদের মন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করা হয়। স্বাধীনতা ঘোষণার ওই ভাষণের মুসাবিদা করেছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ, ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম এবং প্রফেসর রেহমান সোবহান। ভাষণ দেওয়ার পর তাজউদ্দীন ও ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম কলকাতায় ফেরত এসে অন্য নেতাদের খুঁজতে শুরু করেন। প্রথমে তাঁদের দেখা হয় এম মনসুর আলী ও কামারুজ্জামানের সঙ্গে; তাঁরা দুজনই সানন্দে সম্মতি দেন। পরে খবর পাওয়া যায় যে সৈয়দ নজরুল ইসলাম ময়মনসিংহ সীমান্তে আছেন। তাঁর কাছে যান তাজউদ্দীন, তিনিও সম্মতি দেন। পরে আগরতলায় খোন্দকার মোশতাকের আপত্তির মুখে পড়েন তাজউদ্দীন; পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাঁকে দেওয়ার শর্তে তাঁর সঙ্গে রফা হয়। আরও তীব্র বাধা এসেছিল শেখ মণির নেতৃত্বে যুব ও ছাত্রনেতাদের কাছ থেকে, যাঁরা তাঁদের নেতৃত্বে বিপ্লবী কাউন্সিল করার ম্যান্ডেট বঙ্গবন্ধু নিজেই তাঁদের দিয়েছিলেন বলে দাবি তুলে ঘোষিত সরকারের শপথ অনুষ্ঠানকে প্রায় ভন্ডুলই করে দিয়েছিলেন। তীব্র বাগ্‌বিতণ্ডা ও তর্কবিতর্কের পর তাঁদের নিরস্ত করা গিয়েছিল। এর পরিপ্রেক্ষিতেই রচিত হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিলের মুজিবনগর দিবসের ইতিহাস।

এটা খুবই বেদনাদায়ক যে কোনো অজানা কারণে বঙ্গবন্ধু তাঁর জীবদ্দশায় একবারও মুজিবনগরে যাননি। কিন্তু এখন তো মুজিবনগর দিবসের স্মৃতি রক্ষার্থে মুজিবনগরে দৃষ্টিনন্দন স্মৃতিসৌধ গড়ে তোলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি করে বাংলাদেশের প্রথম সরকার যেখানে শপথ নিয়েছিল, সেখানে দেশের প্রধানমন্ত্রীর না যাওয়ার যুক্তিসংগত কোনো ব্যাখ্যা আছে কি?

লেখক: অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ঈদে টিভি নাটক ও টেলিফিল্ম

    ঈদে টিভিতে সিনেমা

    শেষ সময়ে ইভিএম প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর তোড়জোড়

    টিভিতে ঈদের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান

    টিভিতে ঈদের ধারাবাহিক নাটক

    টিভিতে ঈদের সংগীতানুষ্ঠান

    ‘বাড়ি বদলেছি ২১ বার, ভাঙন দেখতে দেখতে চুল সাদা হয়ে গেল’

    আগামীকালের মধ্যে কোরবানি শেষ করার আহ্বান মেয়র আতিকের

    খাবারে ব্লেড পাওয়া যাত্রীকে অফার দিয়ে শান্ত করতে চাইল এয়ার ইন্ডিয়া

    পাহাড়ি ঢল ও ভারী বৃষ্টিতে সিলেটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

    মসজিদের শয়নকক্ষে ঢুকে ইমামকে ছুরিকাঘাতে হত্যা