মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

‘হাসানাতের চামচা’ বলায় এমপির সামনে আ.লীগ নেতাকে মারধর, বহিষ্কার ৩ 

আপডেট : ২৬ মার্চ ২০২৩, ২২:২৯

স্থানীয় এমপি শাহে আলমের সামনে আওয়ামী লীগের আরেক নেতাকে মারধর করা হয়। ছবি: আজকের পত্রিকা বরিশালের উজিরপুরে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে ‘আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর চামচা’ বলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতির ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় এমপি শাহে আলমের সামনে তাঁকে মারধর করা হয়। এ ঘটনায় কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তিন নেতা-কর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। 

আজ রোববার সকাল পৌনে ১০টায় উপজেলা পরিষদের স্মৃতিস্তম্ভের সামনে এই ঘটনা ঘটে। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, স্বাধীনতা দিবসে স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে কুচকাওয়াজের জন্য স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা সরকারি ডব্লিউ বি ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে চলে যান। তবে সংসদ সদস্য মো. শাহে আলম ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান ইকবাল মাঠে না গিয়ে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষের সামনে অনুসারীদের নিয়ে বসে ছিলেন। 

কিছুক্ষণ পর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. ইদ্রিস সরদার সংসদ সদস্য শাহে আলমকে সালাম বিনিময় করতে যান। এ সময় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইকবাল আওয়ামী লীগ নেতা ইদ্রিসকে ‘আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর চামচা’ বলে কটূক্তি করেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে ইকবাল তাঁর অনুসারী আওয়ামী লীগ নেতা কাজী রিয়াজ, পলাশ তালুকদারসহ ৭ / ৮ জন মিলে ইদ্রিসকে ধাওয়া দিয়ে বেদম মারধর করেন। এ সময় এমপি শাহে আলম সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলেন বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা। 

হামলার শিকার উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ইদ্রিস সরদার বলেন, ‘আমি হাসানাত ভাইয়ের রাজনীতি করি। এ জন্য এমপিকে খুশি করতে গিয়ে ইকবাল আমাকে লোকজন নিয়ে মারধর করেছে। ইকবাল এমপির সামনে আমাকে হাসানাত ভাইয়ের ‘‘চামচা’’ বলেছে।’ 

এদিকে হাফিজুর রহমান ইকবাল বলেন, ‘এমপির সামনে কিংবা তাঁর উপস্থিতিতে মারামারি হয়নি। কিছুটা দূরে ঘটনা ঘটেছে। আমি ইদ্রিসের সঙ্গে মজা করেছি মাত্র।’ 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী আজকের পত্রিকাকে বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা ইদ্রিসকে মারধরের ঘটনায় আমরা তিন নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছি। বহিষ্কৃতরা হলেন—বামরাইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান পলাশ, শিকারপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ রিয়াজুল ইসলাম কাজী এবং বামরাইল ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য জসীম উদ্দিন রুবেল।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘মারধরের সময় এমপি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইকবাল ঘটনাস্থলে ছিলেন।’ 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংসদ সদস্য শাহে আলম আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি বসেছিলাম। একপর্যায়ে ইকবাল ও ইদ্রিসের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। তারা ঝামেলা করলে আমি কী করতে পারি! আমি না বললে থামল কী করে! আমিই তো ওদের থামিয়েছি। আমার উপস্থিতিতে কী করে হয়! কতিপয় ব্যক্তি বিশৃঙ্খলা করে এসব কথা ছড়াচ্ছে।’ 

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, ‘মারামারির ঘটনা শুনেছি। তবে কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    নাটোরে জামিনে বের হওয়া যুবলীগ নেতার দু পায়ের রগ কেটে দিল দুর্বৃত্তরা

    সিরাজগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় যুবক নিহত 

    ব্যক্তিগত কাজে অফিসের গাড়ি, অগ্রণী ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    গজারিয়ায় আওয়মী লীগের ২ পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে গুলি, আহত ৯

    স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা ষড়যন্ত্র করে চলছে: ক্রীড়া মন্ত্রী 

    চন্দনাইশে শঙ্খ নদ থেকে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার 

    সীমান্তে চিনি চোরাচালানে সিলেট ছাত্রলীগ

    ‘বিপদে’ সাহায্য চাওয়া অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশকে ডাকে না ১৬ বছর

    প্রভাসে আশায় বুক বাঁধছে ভারতীয় বক্স অফিস 

    আশ্রয়ণের ঘর বরাদ্দ আছে, পরিবার নেই

    অবশেষে কারামুক্ত হলেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ

    অফিসে শিষ্টাচার নিয়ে কিছু কথা