শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

সেকশন

 

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি: একজন মেন্টর থাকা জরুরি

আপডেট : ১৫ মার্চ ২০২৩, ০৯:২০

প্রতীকী ছবি ছোটবেলা থেকে অনেকের মনে তীব্র একটা ইচ্ছা থাকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার; কিন্তু বেশির ভাগই ব্যর্থ হয় সেই স্বপ্ন পূরণে। এর অন্যতম কারণ পরিকল্পনামাফিক পরিশ্রম না করা। আমরা সাধারণত মনে করি, অ্যাডমিশন মানেই যুদ্ধ; কিন্তু কার সঙ্গে সেটা জানি না। বিভিন্ন কোচিংয়ে দোড়াদৌড়ি করি। আবার অনেকে এইচএসসি শেষ করার পরই দৌড়ে কোনো একটা কোচিং সেন্টারে ভর্তি হয়। সেখানে যা পড়ানো হয়, হজম না হলেও জোর করে আত্মস্থ করার চেষ্টা করি।

অনেকেই প্রশ্ন করেন, কী করব? কতটুকু পড়ব? কীভাবে পড়ব? কী পড়ব? কী পড়ব না? কীভাবে নিজেকে তৈরি করব? কীভাবে পড়লে নিজের সাজেশনটা নিজেই তৈরি করব? কোন কোন বই পড়ব? এমন শত প্রশ্ন আপনার মাথায় আসবে যখন আপনিও এই ভর্তি যুদ্ধের একজন সৈনিক। হ্যাঁ, আমার মাথায়ও এসব প্রশ্ন এসেছিল। এখন আপনাদেরকে এসব প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব। যুদ্ধে যেমন প্রয়োজন একজন দক্ষ সেনাপতির, যিনি ছাড়া হাজার হাজার সৈন্য কিছুই করতে পারে না, ঠিক তেমনি এ লড়াইয়ে জেতার জন্য আপনার একজন সেনাপতি তথা মেন্টর দরকার, যিনি আপনাকে বলে দেবে কখন কী করতে হবে। যখন আপনি হতাশ, আর মনে হয় পারবেন না, হাল ছাড়তে বাধ্য হচ্ছেন তখন আপনার মেন্টর পাশে থেকে অনুপ্রেরণা দেবেন। উপযুক্ত গাইডলাইন চান্স পাওয়ার অন্যতম সহায়ক। প্রথমেই বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নব্যাংক সমাধান করে ফেলুন। এরপর যে বিশ্ববিদ্যালয়ে যে ইউনিটে পরীক্ষা দেবেন তার প্রশ্নব্যাংক নিয়ে বসুন। কোন কোন টপিক থেকে বেশি প্রশ্ন এসেছে, সেগুলো খুঁজে বের করুন। আলাদা আলাদা নোটখাতাও রাখতে পারেন। বারবার প্রশ্ন আসা টপিকগুলোকে ভালোভাবে আত্মস্থ করে ফেলুন। ভর্তি পরীক্ষায় বিভিন্ন মৌল বা জীবের নাম আসতে পারে, ছন্দে ছন্দে বিভিন্ন নাম মনে রাখতে হবে। তাহলে ভুলে গেলেও এমসিকিউর অপশন দেখে দাগাতে পারবেন। প্রশ্নব্যাংকগুলো ঘড়ি ধরে পরীক্ষা দিন। প্রতিটি এমসিকিউর জন্য ৪৫ সেকেন্ড সময় নিন। এভাবে করলে আপনার কনফিডেন্স বাড়বে। অনলাইন থেকে ওএমআর শিট ডাউনলোড করে প্রিন্ট করে নিতে পারবেন। প্রতিদিন সকাল ১০টায় এভাবে একটা করে পরীক্ষা দিন। এভাবে আপনি ২০ দিনে ২০টি এক্সাম দেওয়ার অভিজ্ঞতা অর্জন করুন। মনোবলও সদৃঢ় হবে। পড়ার সময় যে যে টপিক বুঝতে সমস্যা হবে তা খাতায় নোট করে ফেলুন। ফলে আপনার সিনিয়র বা শিক্ষকের কাছ থেকে সহজেই সমাধান করে ফেলতে পারবেন। এভাবে এগিয়ে গেলে ভালো একটা ফল আসবেই। সবার জন্য শুভকামনা। 

মো. রনি ইসলাম, তৃতীয় স্থান অধিকারী, ‘সি’ ইউনিট, ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। 

অনুলিখন: জাহিদুল ইসলাম

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    ‘ব্যাংক ধ্বংসে মালিকেরা সহায়তায় সরকার’

    জাহাজে পণ্য পরিবহন: নিরাপত্তা ব্যয় ট্রিপে বেড়েছে ১ লাখ ডলার

    এক উপজেলা চান ৩ মহিলা কর্মকর্তা

    নওয়াপাড়া নদীবন্দর: ভাটা মানেই জাহাজের বিপদ

    ঝালকাঠিতে সড়ক দুর্ঘটনা: উঁচু সেতুর ঢালে বেড়ে যায় গতি

    বগুড়ায় ‘মাথা নষ্ট’ এসআইয়ের কাণ্ড

    ইসরায়েলি হামলায় ইরানের পরমাণু স্থাপনার কোনো ‘ক্ষতি হয়নি’ 

    যুক্তরাজ্যে ৫ থেকে ৭ বছর বয়সীদের এক চতুর্থাংশের হাতে স্মার্টফোন: গবেষণা 

    ‘ব্যাংক ধ্বংসে মালিকেরা সহায়তায় সরকার’

    জেলা পর্যায়ে হৃদ্‌রোগের চিকিৎসা আরও বাড়াতে হবে: এসসিএআই সম্মেলনে বক্তারা

    জাহাজে পণ্য পরিবহন: নিরাপত্তা ব্যয় ট্রিপে বেড়েছে ১ লাখ ডলার

    পশ্চিমবঙ্গে লোকসভা নির্বাচনের শুরুতেই জ্বালাও-পোড়াও ও মারধর