Alexa
মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

অস্তিত্বসংকটে রামগড়ের পর্যটনকেন্দ্রগুলো, প্রতিশ্রুতি প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের

আপডেট : ০৩ জুলাই ২০২২, ১৯:১৬

সংস্কারের অভাবে ধ্বংসের প্রান্তে এসডিও বাংলো। ছবি: আজকের পত্রিকা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের রানি বলা হয় খাগড়াছড়িকে। সৌন্দর্যের জন্য পুরো দেশজুড়ে সুখ্যাতি রয়েছে খাগড়াছড়ির। খাগড়াছড়ির অন্যতম পর্যটনমুখর এলাকা রামগড়। অপরূপ খাগড়াছড়ির পার্বত্য সৌন্দর্য যেন তার পূর্ণ রূপ পেয়েছে এই রামগড়ে এসে। কিন্তু প্রশাসনের হস্তক্ষেপ এবং পর্যটকদের জন্য সুব্যবস্থা না থাকায় মুখ থুবড়ে পড়েছে এই এলাকার পর্যটনকেন্দ্রগুলো। সমস্যা সমাধানে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা দিচ্ছেন প্রতিশ্রুতি। 

জানা যায়, রামগড়ের সঙ্গে জড়িয়ে আছে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা, দুর্গম পাহাড়, সবুজের সমারোহ, সাজানো চা-বাগান, ঝুলন্ত ব্রিজ, রামগড় লেক, বঙ্গবন্ধু পার্ক, পাহাড়ঞ্চল কৃষি গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতু, বিজিবির জন্মস্থান, শহীদ মিনার, কলসিরমুখসহ অন্যান্য দর্শনীয় স্থান। 

একসময় এই রামগড়ে পর্যটকদের প্রতিনিয়ত ভিড় জমত। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রামগড়ে ছুটে আসত পর্যটকেরা। কিন্তু এখন আর সেই অবস্থা নেই। এক প্রকার পর্যটকহীন হয়ে পড়ছে রামগড়। নিরাপত্তা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং থাকার সুব্যবস্থা নেই বলে পর্যটক আসছে না বলে দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। তবে জনপ্রতিনিধিরা বলছেন খুব দ্রুত ঢেলে সাজানো হবে রামগড়ে পর্যটনকেন্দ্রগুলোকে। 

নিয়ম বহির্ভূতভাবে মৎস্য চাষ করায় রামগড় চা বাগানের হ্রদ হারিয়েছে সৌন্দর্য। ছবি: আজকের পত্রিকা সরেজমিনে রামগড় পার্ক, স্মৃতিসৌধ, ঝুলন্ত ব্রিজ, কালাডেবা স্লুইসগেট, কলসিরমুখ এলাকা ঘুরে দেখা যায়, এসব পর্যটনকেন্দ্র সম্পূর্ণ অরক্ষিত। পর্যটকদের জন্য কোনো নিরাপত্তাব্যবস্থা নেয়। পুরো দেশজুড়ে সুখ্যাতি রয়েছে রামগড় পার্কের। বছর দশেক আগেও বিশাল আকাশের নিচে চারদিকে সবুজ গাছ-গাছালির শ্যামল ছায়ায় ঘেরা ছিল এই পার্ক। পাতাবাহার, ঝাউগাছ ও বিভিন্ন ফুলের সমন্বয়ে সাজানো ছিল এটি। বিশাল হ্রদের ওপর নির্মিত ঝুলন্ত সেতু পার্কের সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে দিয়েছিল কয়েক শ গুণ। এসব দৃশ্য অবলোকন করার জন্য ছুটে আসত দর্শনার্থীরা। 

কিন্তু বর্তমান দৃশ্য উল্টো। চারদিকে সবুজের সমারোহ আর নেই। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে পার্কটি। কোনো রকম জোড়াতালি দিয়ে টিকে আছে ঝুলন্ত সেতু। অন্যদিকে কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রামগড় স্মৃতিসৌধটি এক প্রকার ধ্বংসের প্রান্তে। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে এটি। রাতে মাদকসেবীদের নিরাপদ আস্তানায় পরিণত হয়। কোনো নিরাপত্তাব্যবস্থা নেই। আশপাশের স্থানীয় লোকজন এটিকে গো-চারণভূমি বানিয়েছে। 

বিশাল হ্রদের ওপর নির্মিত ঝুলন্ত সেতুটি কোনোরকম জোড়াতালি দিয়ে টিকে আছে। ছবি: আজকের পত্রিকা স্মৃতিসৌধের মতো একই দশা কালাডেবায় অবস্থিত স্লুইসগেটের। একসময়ের কোলাহলপূর্ণ এই পর্যটনকেন্দ্রটি একপ্রকার পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সরঞ্জামগুলো নষ্ট হয়ে পড়েছে। 

অন্যদিকে রামগড় শহরের প্রায় ২০-২৫ কিলোমিটারর ভেতরে অবস্থিত কলসিরমুখ। প্রত্যন্ত এলাকা হওয়ায় কলসিরমুখ পর্যটনকেন্দ্রে যেতে ভয় পায় মানুষ। পাহাড়ে অবস্থানকারী সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ এবং জেএসএসের তোপের মুখে পড়তে হয় পর্যটকদের। যথেষ্ট নিরাপত্তাব্যবস্থা নেই এই এলাকায়। 

রামগড় পার্কে ঘুরতে আসা পর্যটক নাদিয়া সুলতানা জানান, স্বামী-সন্তানদের নিয়ে রামগড় ঘুরতে এসেছেন। রামগড়ের আগের সৌন্দর্য আর নেই। তা ছাড়া এখানে থাকার জন্য ভালো হোটেল নেই। যার ফলে থাকার জন্য দুপুরের একটু পরেই খাগড়াছড়ি সদরের দিকে রওনা হবেন। 

সংস্কার এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই স্মৃতিসৌধে। ছবি: আজকের পত্রিকা রামগড় উপজেলার বাসিন্দা খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য অরুণ চন্দ্র সিংহ জানান, রামগড় পর্যটনমুখর শহর ছিল। নিরাপত্তাব্যবস্থা এবং রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মানুষ রামগড়মুখী হচ্ছে না। কর্তৃপক্ষ চাইলে রামগড়ের সুখ্যাতি আবার ফিরিয়ে আনতে পারে। দলমত-নির্বিশেষে রামগড়ের জনপ্রতিনিধিদের উচিত রামগড়ের পর্যটনশিল্পকে এগিয়ে নিতে এক হওয়া। সুপরিকল্পিতভাবে রামগড় নিয়ে কাজ করলে রামগড় খুব দ্রুত আগের সুখ্যাতি ফিরে পাবে। 

কালাডেবা এলাকার বাসিন্দা সালাউদ্দীন আহমেদ জানান, কালাডেবা স্লুইসগেট পরিত্যক্ত হয়ে পড়ছে। কয়েকজন পর্যটক মাঝে মাঝে আসে। তবে নিরাপত্তাব্যবস্থা নেই বলে স্থানীয়রা পরিবার নিয়ে এখানে আসতে চান না। 

এ নিয়ে রামগড় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ ত্রিপুরা জানান, রামগড় উপজেলা প্রশাসনের সমন্বয়ে রামগড়ের পর্যটনশিল্পকে এগিয়ে নিতে কাজ করা হচ্ছে। রামগড়ের প্রতিটি পর্যটনকেন্দ্র আধুনিক সাজসজ্জায় সাজানো হবে। বিশেষ করে রামগড় পার্ক সংস্কারের কাজ দ্রুত শুরু হবে। এরই মধ্যে পরিকল্পনা এবং নকশা তৈরির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। রামগড়ের ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে রামগড়ের পর্যটনকেন্দ্রগুলোকে ঢেলে সাজানো হবে। 

চেয়ারম্যান আরও জানান, রামগড়ে সরকারিভাবে রেস্ট হাউস নির্মাণ হচ্ছে। নকশা পরিবর্তনের জন্য কিছুটা থমকে আছে। উন্নত মানের হোটেল নির্মাণের জন্য সাধারণ ব্যবসায়ীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। 

এ বিষয়ে রামগড় পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলম কামাল জানান, রামগড় পরিত্যক্ত বাস টার্মিনালটি মাদকের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। এটি শিশু ও কিশোরদের বিনোদনের উপযোগী করার জন্য আধুনিক বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা চলছে। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রামগড় উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খোন্দকার মো. ইখতিয়ার উদ্দিন আরাফাত বলেন, ‘রামগড় পার্ক এবং কলসির মুখ এ দুটি নিয়ে কাজ করছি আমরা। খুব দ্রুত সংস্কার করা হবে এ পর্যটনকেন্দ্রগুলোকে। রামগড় পার্ককে পুনরুজ্জীবিত করতে উপজেলা পরিষদের সমন্বয়ে বিভিন্ন পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। কলসিরমুখ পর্যটনকেন্দ্রে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে শোভাবর্ধনের পাশাপাশি নিরাপত্তাব্যবস্থাও জোরদার করা হবে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষিকাকে মারধরের অভিযোগ

    সুবর্ণচরে যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

    চুরির অপবাদে যুবকের আত্মহত্যার অভিযোগ

    লোহাগাড়ায় পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

    সমুদ্র সৈকতে গোসলে নেমে পর্যটক নিখোঁজ, উদ্ধার ২

    জায়গা নিয়ে দ্বন্দ্বে চাচাতো ভাইয়ের হাতে ভাই খুন

    রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে আওয়ামী লীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতে খুন

    ছাদে ওঠার গাছের ডাল কেটে ফেলায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অশ্লীল দেয়াল লিখন

    ছেলেরা মাদকাসক্ত, প্রশাসনের হাতে তুলে দিলেন মা-বাবা

    ছাত্রীকে বেত্রাঘাত করে স্কুল থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ

    বিহার মন্ত্রিসভায় ৩১ মন্ত্রী, কংগ্রেসের ২

    মৃত্যুর হুমকি পেলেন নুনেজের ঢুস খাওয়া অ্যান্ডারসন