বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সেকশন

 
বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

এসডিজি থেকে পিছিয়ে দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা

আপডেট : ০৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৪

ফাইল ছবি দেশে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যুর হার বর্তমানে প্রতি হাজার জীবিত জন্মে ৩৪ জন। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অনুসারে ২০৩০ সালের মধ্যে এই সংখ্যা ২৫-এ নামিয়ে আনতে হবে। একইভাবে মাতৃমৃত্যুর হার প্রতি ১০ হাজারে ১২১ জন।

এসডিজি অর্জন করতে হলে ২০২৩ সালের মধ্যে এটি ৪০-এ নামিয়ে আনতে হবে। এ ছাড়া শিশুমৃত্যুর হার বর্তমানে প্রতি হাজারে জীবিত জন্মে ১৮ জন। এসডিজি অর্জন করতে এটি ১২ জনে নামিয়ে আনার কথা। খোদ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকেই এসব তথ্য মিলেছে। এসব তথ্য থেকে বোঝা যায়, দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা এসডিজি থেকে কতটা পিছিয়ে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন মোটেও সহজসাধ্য নয়। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আজ ৭ এপ্রিল বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস। একই সঙ্গে উদ্যাপিত হচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৭৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

এসডিজি অর্জন প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে সবার জন্য স্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণের ব্যাপারে বৈশ্বিক অঙ্গীকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারও একাত্মতা প্রকাশ করেছে। এ ব্যাপারে সরকারের উদ্যোগের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট সবার এগিয়ে আসা প্রয়োজন। দেশের জনসাধারণের মধ্যে স্বাস্থ্যসচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি তৃণমূল পর্যায়ে বিস্তৃত স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণে তাদের উদ্বুদ্ধ করতে পারলেই বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের আহ্বান সার্থক হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, বিশ্বজুড়ে লাখ লাখ মানুষের স্বাস্থ্যের অধিকার ক্রমেই হুমকির মুখে পড়ছে। মৃত্যু ও অক্ষমতার বড় কারণ রোগ ও দুর্যোগ। জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানো, একই সঙ্গে জলবায়ু সংকট বিশুদ্ধ বাতাসে শ্বাস নেওয়ার অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। অভ্যন্তরীণ এবং বাইরের বায়ুদূষণে প্রতি পাঁচ সেকেন্ডে একজনের মৃত্যু হচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাউন্সিল অন দি ইকোনমিকস অব হেলথ ফর অল জানিয়েছে, অন্তত ১৪০টি দেশ তাদের সংবিধানে স্বাস্থ্যকে মানবাধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। তবু দেশগুলো তাদের জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় আইন পাস করছে না। যাদের আইন রয়েছে, তারা সেগুলোর চর্চা করছে না। এটি থেকে নিশ্চিত হওয়া যায়, পৃথিবীর ৪৫০ কোটি মানুষ স্বাস্থ্যের প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলো থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এ ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস ২০২৪-এর প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘আমার স্বাস্থ্য, আমার অধিকার’।

প্রতিপাদ্য প্রসঙ্গে সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক সায়মা ওয়াজেদ বলেছেন, সবার জন্য স্বাস্থ্যের অধিকার নিশ্চিত করতে হলে এমন পরিস্থিতি তৈরি করতে হবে, যেখানে প্রত্যেকের সর্বত্র উচ্চমানের স্বাস্থ্যসুবিধা ও পরিষেবা ভোগের সুযোগ থাকবে। তারা প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যপণ্য কিনতে পারবে এবং তাদের মর্যাদাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। অর্থাৎ, মানুষকে স্বাস্থ্যকরভাবে বাঁচতে সক্ষম করে তোলা, যাতে তাদের নিরাপদ পানি ও বাতাস, বাসস্থান ও পুষ্টিকর খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যের অধিকার পূরণে স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলো যথাযথভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

বেশ কিছু অগ্রগতি সত্ত্বেও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে সবার জন্য স্বাস্থ্যের অধিকার বাস্তবে পরিণত করতে এখনো যথেষ্ট অসংগতি রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সায়মা ওয়াজেদ। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যের অধিকারের প্রতি বিশ্বব্যাপী প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও এই অঞ্চলের প্রায় ৪০ শতাংশ মানুষ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পরিষেবা থেকে বঞ্চিত। দারিদ্র্য ও দুর্বলতা এই অঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তিতে সবচেয়ে বড় বাধা; যা তাদের স্বাস্থ্য ও সুস্থতার জন্য বিপর্যয়কর। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    তথ্য ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকায় সোশ্যাল মিডিয়া: স্বাস্থ্যের ডিজি

    ‘স্বাস্থ্য তথ্য ও পরামর্শ ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকায় সোশ্যাল মিডিয়া’

    এমআরসিপিতে সর্বোচ্চ নম্বরের রেকর্ড গড়লেন ডা. হালিম

    চার কোটি শিশু পাচ্ছে কৃমিনাশক ওষুধ

    খাবারে প্রতিক্রিয়া মানেই অ্যালার্জি নয়, ফুড অ্যালার্জি বুঝবেন যেভাবে

    মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতি কমাতে পারে পুষ্টিকর খাদ্য: গবেষণা

    জামালপুরে ২ উপজেলায় চেয়ারম্যান হলেন আ.লীগের ২ নেতা

    পাবনার ৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা

    ১১ ব্যাংকে আটকা হজযাত্রীদের ৫৬ কোটি টাকা

    খালি হচ্ছে জনপ্রশাসনের শীর্ষ দুই পদ, আলোচনায় ৫ নাম

    নেতানিয়াহু রক্তখেকো ভ্যাম্পায়ার, মন্তব্য এরদোয়ানের

    নীল নদের উৎস জিঞ্জা