Alexa
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

ট্রেনের আগেই হাজির তিনি

আপডেট : ২৬ জানুয়ারি ২০২৩, ০৮:১০

স্বেচ্ছায় গেটকিপারের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছেন ভ্যানচালক আলমগীর হোসেন। ছবি: আজকের পত্রিকা ২০২২ সালের ২৬ জানুয়ারি, সকাল প্রায় সাড়ে ছয়টা। উত্তরা ইপিজেডের আট নারী শ্রমিক ইজিবাইকে চেপে কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। সেদিন ছিল ঘন কুয়াশা। সৈয়দপুর-চিলাহাটি রেলপথের দারোয়ানী লেভেল ক্রসিং অতিক্রমের সময় চিলাহাটিগামী আন্তনগর রূপসা এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে সংঘর্ষ ঘটে ইজিবাইকটির। এতে মারা যান চার নারী শ্রমিক। গুরুতর আহত হন ইজিবাইকচালকসহ পাঁচজন।

ঘটনাস্থল থেকে মাত্র ১০০ মিটার দূরে ছিল আলমগীর হোসেনের বাড়ি। ২৬ জানুয়ারির ঘটনায় নিহত ও আহত ব্যক্তিরা ছিলেন তাঁর প্রতিবেশী। ঘটনাস্থলে নিহত শেফালি বেগমের ছিন্নভিন্ন শরীরের বিভিন্ন অংশ তিনি নিজ হাতে একত্র করেছেন! আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করতে গিয়ে ডুকরে কেঁদে উঠেছেন তিনি।

‘গেটকিপার থাকলে এমন মর্মান্তিক দৃশ্য দেখতে হতো না’—সেদিন এমনটাই উপলব্ধি করেছিলেন আলমগীর। সে উপলব্ধি থেকে ঘটনার পরদিন ২৭ জানুয়ারি তিনি নিজ খরচে বাঁশ কিনে লেভেল ক্রসিংয়ের দুই পাশে গড়ে তোলেন ব্যারিয়ার। তারপর ৩০ বছর ধরে অরক্ষিত থাকা লেভেল ক্রসিংয়ে সবুজ পতাকা নিয়ে স্বেচ্ছায় গেটকিপারের দায়িত্ব পালন করতে দাঁড়িয়ে যান তিনি। যত দিন এখানে ব্যারিয়ার স্থাপন এবং গেটকিপার নিয়োগ হবে না, তত দিন তিনি এ দায়িত্ব পালন করবেন বলে সংকল্প করেছেন।

পেশায় ভ্যানচালক আলমগীর হোসেনের বাড়ি লেভেল ক্রসিংটির পাশেই নীলফামারী সদর উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের দারোয়ানী বাজারসংলগ্ন গোলকশাপাড়ায়। ছয় সদস্যের পরিবারে আলমগীর হোসেন একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। নিজের ভিটেমাটি নেই। খাসজমিতে তাঁর বসবাস।

রেললাইনের পাশে বাড়ি হওয়ায় ট্রেন চলাচলের সময়সূচি তাঁর মুখস্থ। ট্রেন আসার ঠিক আগে তিনি পৌঁছে যান দারোয়ানী লেভেল ক্রসিংয়ে। দুই পাশে নিজের হাতে গড়ে তোলা বাঁশের ব্যারিয়ার দিয়ে পথচারীসহ সব ধরনের যানবাহন আটকে দেন। তারপর বাঁশি বাজিয়ে, পতাকা দেখিয়ে পার করে দেন ট্রেন।

স্থানীয় জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন জালাল উদ্দিন জানিয়েছেন, দিনে বা রাতে চলাচলকারী ট্রেনের সময়সূচি অনুসারে আলমগীরকে লেভেল ক্রসিংয়ে দাঁড়িয়ে পতাকা হাতে নিয়ে বাঁশি বাজাতে দেখা যায়। কখনো ভ্যান নিয়ে জেলা শহর কিংবা গ্রামের বাইরে গেলে তাঁর বড় ছেলে আমিনুর রহমান এ দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর এমন মানবিক দায়িত্ববোধ দেখে রেল বিভাগের পক্ষ থেকে একটি সবুজ পতাকা ও বাঁশি দেওয়া হয় আলমগীরকে।

সোনারায় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম শাহ জানিয়েছেন, এ দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাঁর আয়-উপার্জনের ক্ষতি হচ্ছে। তাই ৪০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচিতে আলমগীর হোসেনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মো. নুরুল ইসলাম শাহ আরও জানিয়েছেন, উত্তরা ইপিজেডে প্রায় ৩৫ হাজার শ্রমিকের মধ্যে প্রতিদিন দুবার রেলপথ অতিক্রম করেন অন্তত ১০ হাজার শ্রমিক। এ মাসেই খয়রাত নগর স্টেশনের কাছে অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে ইপিজেডের এক নারী শ্রমিক ট্রেনে কাটা পড়ে মারা যান। কিন্তু আলমগীরের দায়িত্ববোধের কারণে দারোয়ানী লেভেল ক্রসিংয়ে গত এক বছরে কোনো দুর্ঘটনা ঘটেনি।

চিলাহাটি থেকে সৈয়দপুর রেলপথের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে ৩৬টি লেভেল ক্রসিং রয়েছে। এর মধ্যে ৩৩টি বৈধ ও ৩টি অঘোষিত লেভেল ক্রসিং। বৈধ ৩৩টির মধ্যে মাত্র ১২টিতে আছে ব্যারিয়ার। বাকি ২১টি লেভেল ক্রসিং দীর্ঘদিন ধরে অরক্ষিত।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    মনসুর কি হারিয়ে যাবেন

    নাদালের পাশে বসা জোকোভিচের যত রেকর্ড

    বিপিএলে কেন আচরণবিধি ভাঙছেন ক্রিকেটাররা

    শুরু হচ্ছে বাংলা খেয়াল উৎসব

    ডলারের চাপ ঋণ শোধে

    ৮ কিলোমিটারে ৪০ বাঁক, সড়ক যেন মরণফাঁদ

    নতুন ডানায় পরবর্তী প্রজন্মের বাণিজ্যিক বিমান

    স্মার্টফোন বিক্রিতে এগিয়ে ছিল যারা

    নাটক ছাড়ছেন না মেহজাবীন

    শুরু হচ্ছে সিসিমপুরের নতুন মৌসুম

    এভাবেও প্রচারণা হয়!

    বাস্তবতা দিয়ে গড়া প্রতিটি দৃশ্য