Alexa
শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

দীঘিনালা আবহাওয়া অফিস

সুদৃশ্য ভবনও পড়ে অবহেলায়

আপডেট : ২৩ জুন ২০২২, ১৩:৫১

দীঘিনালা উপজেলা আবহাওয়া ভবনের নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার ৯ বছর পরও অবহেলায় পড়ে আছে। ছবি: আজকের পত্রিকা আবহাওয়া সম্পর্কিত তথ্য জানার জন্য খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ভবনটি ৯ বছর পরও চালু হয়নি। উপজেলার পোমাংপাড়ায় নির্মিত এই আবহাওয়া ভবন এত বছর পেরিয়ে গেলেও কোনো কাজে আসেনি এলাকাবাসীর।

কয়েক দিনের টানা বর্ষণে দীঘিনালার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় অসংখ্য মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়ে। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, আবহাওয়া অফিস চালু থাকলে আগাম বার্তায় রক্ষা পেত অনেক মানুষ। এ ছাড়া কৃষকেরা খেতের ফসলও রক্ষা করতে পারতেন। কিন্তু নির্মাণের এত বছর পেরিয়ে গেলেও এই ভবন এখনো চালু না হওয়ার ক্ষোভ এলাকাবাসীর।

পার্বত্য অঞ্চলের বৃষ্টিপাত, পাহাড়ধসের পূর্বাভাস, কৃষকদের কৃষি পূর্বাভাস দেওয়া, আর্দ্রতাসহ আবহাওয়ার তথ্য ৩ ঘণ্টা পরপর ঢাকার আবহাওয়া অফিসে পাঠানো হয়। আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানার জন্য ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০৯ সালে শুরু হওয়া ভবনের কাজ শেষ হয় ২০১৪ সালে। এদিকে ভবন নির্মাণ শেষে আবহাওয়া পর্যবেক্ষণকেন্দ্রে সব যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়। জনবলসংকটে ৯ বছরেও পূর্ণাঙ্গভাবে চালু হয়নি এ আবহাওয়া ভবন। জনগণের জন্য সরকারের ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে আবহাওয়া ভবন নির্মাণ করা হলেও তা কোনো কাজে আসেনি।

গতকাল দুপুরে সরেজমিন আবহাওয়া অফিস ভবনে গিয়ে দেখা গেছে, প্রবেশের গেটে তালাবদ্ধ। ভেতরে প্রবেশ করে দেখা যায় তালাগুলোতে মরিচা ধরেছে। ভেতরে থাকা ভবন দুটির মধ্যে তালা ঝোলানো।

আবহাওয়া অফিসের মাধ্যমে পাহাড়ের চাষাবাদের গবেষণা, আবহাওয়া পূর্বাভাস, দুর্যোগের সতর্কীকরণ পাওয়া যায়। কিন্তু দীঘিনালা আবহাওয়া অফিসটি ৯ বছরেও চালু না হওয়া এসব কিছু থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দীঘিনালা উপজেলার কৃষকশ্রেণি থেকে সাধারণ মানুষ।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস সম্পর্কে না জানার কারণে এ অঞ্চলের কৃষক ও মৎস্য প্রাণিসম্পদকে ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়তে হয়। হঠাৎ বৃষ্টিপাতে তলিয়ে যায় আমন ও আউশ মৌসুমের বীজতলা, শীতকালীন শাকসবজি। তা ছাড়া হঠাৎ বৃষ্টির কারণে পাহাড়ি ঢলে ছোট-বড় অসংখ্য পুকুরের মাছ ভেসে যায়।

জানা যায়, আবহাওয়া ভবনটি দুজন নিরাপত্তাকর্মী দেখাশোনা করেন। কিন্তু ভেতরে থাকা কাউকে দেখা যায়নি। একটি সূত্রে জানা যায়, ৮ কর্মকর্তা-কর্মচারী থাকার কথা ছিল এই ভবনে। তবে সরেজমিনে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীর দেখা মেলেনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, কয়েক কমাস ধরেই এটি তালাবদ্ধ। কোনো কর্মকর্তা বা কাউকে এখানে প্রবেশ করতে দেখা যায় না। সরকারের প্রচুর টাকা বরাদ্দের একটি আবহাওয়া ভবন জনকল্যাণে ব্যবহার হচ্ছে না, এটি সত্যিই দুঃখজনক।

গতকাল দুপুরে দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা মুস্তফা আবহাওয়া ভবন পরিদর্শন করেন। তিনি জানান, এই বিষয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি সচিত্র প্রতিবেদন দেওয়া হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    কমছে না ডেঙ্গুর প্রকোপ

    ট্রেন অবরোধের ঘটনায় তিন কর্মী বরখাস্ত, তদন্ত কমিটি

    চট্টগ্রাম ক্লাবে পাঞ্জাবি পরে প্রবেশ নিষিদ্ধ!

    টাকা নিয়ে শিক্ষার্থীদের রক্ত পরীক্ষা, লাগবে কোন কাজে?

    পাহাড় কেটেও পার পেয়ে গেছেন ইউপি সদস্য

    ইসলামে মানবসেবার গুরুত্ব

    লোডশেডিং ও প্রচণ্ড গরমে মারা গেল খামারের ৮০০ মুরগি

    দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে বর্ধিত ভাড়া কার্যকর, পরিবহন চালকদের অসন্তোষ

    বিয়ের ৬ দিনের মাথায় নববধূর আত্মহত্যা

    লক্ষ্মীপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে যুবলীগ নেতাকে পেটানোর অভিযোগ

    সমাধানের লক্ষ্যে ভাবা হচ্ছে কর্মশালার কথা