Alexa
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

দেশে দেশে নজরদারির ধারা

আপডেট : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৬:৩৬

প্রাচীন মিসরে ভিন দেশের হয়ে কাজ করা দুই গুপ্তচরকে আটক করেছে সৈনিকেরা। মিসরের প্রাচীন খোদাইচিত্র। ছবি: সংগৃহীত নজরদারি নিয়ে এখন গোটা বিশ্বে তোলপাড়। বিষয়টি রাষ্ট্রকাঠামোর সঙ্গে এমন ওতপ্রোতভাবে জড়িত যে, একে অনেকটা বাতাসের সঙ্গে তুলনা করা যায়। বাতাস একটু জোরে না বইলে যেমন এটি আলোচনায় আসে না, ঠিক তেমনি নজরদারি। বড় কোনো ঘটনা সামনে না এলে বিষয়টি নিয়ে তেমন আলোচনা আসে না। এবার যেমন পেগাসাস কাণ্ডের মধ্য দিয়ে নজরদারির প্রসঙ্গটি আলোচনায় এল।

অথচ নজরদারি সব সময়ই ছিল। এ সম্পর্কিত আগের লেখাতেই বলা হয়েছে যে, যেদিন থেকে গোষ্ঠীর শুরু, সেদিন থেকেই নজরদারির প্রাথমিক ধাপের শুরু। আরও ভালো করে বললে ভিন্ন গোত্র বা গোষ্ঠীর হাঁড়ির খবর বের করতে গুপ্তচরবৃত্তির যে যাত্রা শুরু হয়েছিল, তা–ই ক্রমে নজরদারির এক বিরাট পরিসর দখল করে। আর আজকের দিনে প্রযুক্তির কল্যাণে তা হয়ে উঠেছে সর্বব্যাপী।

এ যুগে কোনো ব্যক্তির নজরদারি কিংবা গোয়েন্দাবৃত্তির বাইরে থাকার সুযোগ নেই। এমনকি আপনার স্মার্টফোনের কল্যাণে যে কেউ চাইলেই আপনার ওপর গোয়েন্দাগিরি করতে পারবে। সে ক্ষেত্রে বিশেষ কোনো গোয়েন্দা হওয়া লাগবে না। দুনিয়াজুড়ে প্রতিনিয়ত যেভাবে লাখ-লাখ ডেটা দেওয়া-নেওয়া চলছে, তার নিরাপত্তার নিশ্চয়তা খুব একটা নেই। কারণ, বালখিল্য অজুহাতে সর্বদা নজরদারি চালাতে অভ্যস্ত নিরাপত্তা দেওয়ার ফেরিওয়ালারা। সঙ্গে রয়েছে প্রাইভেট ডিটেকটিভ ধারণাটি। গল্পের ফেলুদা বা শার্লক হোমসরা তো আর এমনি এমনি উঠে আসেনি। গল্প–উপন্যাসের এই গোয়েন্দা চরিত্রগুলো যদিও একটা ইতিবাচক আবহে আমাদের নিয়ে যায়—দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন তত্ত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে। কিন্তু বাস্তবে বিষয়গুলো এমন নয়। রাষ্ট্র নজরদারির জন্য নিজের বিভিন্ন সংস্থা যেমন কাজে লাগায়, তেমনি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাকেও নিযুক্ত করে। বর্তমানে এটি এমনকি প্রতিষ্ঠানের পরিসর ডিঙিয়ে ব্যক্তি পর্যায় পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। শুরুটা কিন্তু এমন ছিল না। তাহলে কেমন ছিল?

আরবে গুপ্তচরবৃত্তি ও নজরদারির ইতিহাস জানতে সহায় হতে পারে বইটি। ছবি: আমাজন ডটকমের সৌজন্যে প্রাচীন রোমে গুপ্তচরবৃত্তি
বলা হয় সভ্যতার শুরু থেকেই নজরদারি বা গুপ্তচরবৃত্তির চর্চা হয়ে আসছে। এর ইতিহাসও বেশ পুরোনো। প্রাচীন মিসর, গ্রিস কিংবা তারও আগে মেসোপটেমিয়া সভ্যতাতেও নজরদারির ব্যাপক প্রমাণ মেলে। রোমানরা নজরদারিতে অনন্য ছিল। শক্তি দিয়ে সাম্রাজ্য বিস্তার করলেও তা টিকিয়ে রাখতে গুপ্তচরদের উল্লেখযোগ্য ব্যবহার ছিল। সম্রাট জাস্টিনিয়ানের আমলে গুপ্তচর হিসেবে ব্যবহার করা হতো নারীদের। নজরদারির সুবিধার জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বাড়ির নির্মাণকাঠামোতেও ছিল বিভিন্ন রকমের বিধিনিষেধ। আবার প্রভাবশালী ব্যক্তিরাও সে সময় নিজেদের প্রয়োজনে গুপ্তচর নিয়োগ দিতে পারতেন বা নিজে গুপ্তচরবৃত্তি করতে পারতেন। ফলে রোম সিনেট কখনো একক গোয়েন্দা সংস্থা প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি।

প্রাচীন মিসরে গুপ্তচরবৃত্তি
নজরদারি বা গুপ্তচরবৃত্তির আধুনিকায়নে অনস্বীকার্য অবদান রয়েছে প্রাচীন মিসরের। রোমান গুপ্তচরদের মতো মিসরীয়রা কোনো সিনেট বা ব্যক্তিস্বার্থে কাজ না করলেও তারা ফারাও ও তার সাম্রাজ্যের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে এ কাজ করতেন।

ইতিহাসে মিসরীয়রাই প্রথম, যাদের রাজ্যের অভ্যন্তরীণ ও বাইরের বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণে দুটি আলাদা গোয়েন্দা সংস্থা ছিল। একালেও এই কৌশলের সর্বোচ্চ ব্যবহার হচ্ছে। সে সময় গুপ্তচরেরা নিজেদের মধ্যে লেখার জন্য অদৃশ্য কালির পাশাপাশি গোপন তথ্য আদান-প্রদানে বিশেষ কোড ব্যবহার করতেন। তখন একজন গুপ্তচরের ভূমিকা ছিল অনেকটা খুনির মতো। মিসরের ইতিহাস ঘাঁটলে এমন সব অভিজাত বাহিনীর সন্ধান পাওয়া যায়, যারা শত্রুপক্ষের এলাকায় গোপনে ঢুকে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি করে আসত। যুদ্ধবিজ্ঞানে যা ‘কোভার্ট-স্ট্রাইক’ নামে পরিচিত। এ ছাড়া শত্রুপক্ষের কাউকে গোপনে খুন কিংবা পঙ্গু করতে তারা বিষাক্ত রাসায়নিকও ব্যবহার করত। 

ভারতীয় উপমহাদেশ
বলা হয়ে থাকে উপমহাদেশে সিন্ধু সভ্যতার রাষ্ট্রীয় শাসন ব্যবস্থায় কূটনীতির অংশ হিসেবে গুপ্তচরদের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল। বৈদিক সাহিত্যেও গুপ্তচর ব্যবস্থার উল্লেখ পাওয়া যায়। ঋগবেদে দেবাসুরের দ্বন্দ্বেও গুপ্তচরদের উল্লেখযোগ্য উপস্থিতি দেখা যায়। বরুণ, ইন্দ্র, অগ্নিসহ সব দেবতারই ছিল নিজস্ব গুপ্তচর।

কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্র, বৌদ্ধ জাতক সাহিত্য ইত্যাদি অনেক প্রাচীন গ্রন্থে পায়রা, ময়না, শুক, তোতা প্রভৃতি পাখি, এমনকি কাককেও গোপন খবর সরবরাহের জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথা আছে। শনি দেবের বাহন যে কাক ছিল, তা একই সঙ্গে বাহন ও গুপ্ত খবর আনা–নেওয়ার কাজ করত।

চাণক্য বা কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্রে বারবার উঠে এসেছে রাষ্ট্র পরিচালনায় গুপ্তচরের প্রয়োজনীয়তার কথা। ছবি: সংগৃহীত আরব বিশ্ব
আরবের আব্বাসীয় বংশের রাজত্যের সময় অত্যন্ত সুদক্ষ গুপ্তচর ব্যবস্থা ছিল। তারা চৌকস গুপ্তচরদের সাহায্যে উত্তর আফ্রিকা ও স্পেনের কিছু অংশসহ এশিয়ার কিছু অঞ্চল মুসলিম সাম্রাজ্যভুক্ত করেছিলেন। আব্বাসীয় রাজারা কোনো রাজ্য আক্রমণের আগে সেখানে ছদ্মবেশী গুপ্তচর পাঠাতেন। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আক্রমণের পরিকল্পনা ও মানচিত্র তৈরি করা হতো। এ ছাড়া ইসলাম পূর্ব সময়েও এর অস্তিত্ব বেশ ভালোভাবেই ছিল।

এই প্রতিটি সভ্যতার গুপ্তচরবৃত্তি ও নজরদারির সংস্কৃতি ও বিকাশ নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরতে গেলে লেখার পরিসর শুধু বাড়বে। আগ্রহী পাঠকেরা এ সম্পর্কিত বিভিন্ন বই পড়ে দেখতে পারেন। মোটাদাগে এই প্রতিটি সভ্যতাতেই নাগরিক পরিসর থেকে তথ্য সংগ্রহ বা কারও ওপর নজরদারির ক্ষেত্রে জনসমাগমস্থলকেই বেছে নেওয়া হতো। ভিন্ন দেশের তথ্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে গুপ্তচরদের সবচেয়ে পছন্দের মুখোশটি ছিল ব্যবসায়ীর। যেকোনো বাজারে সব শ্রেণির মানুষের সমাগম হয়। সমাজের উঁচু তলা হোক, আর নিচতলাই হোক, সবারই বাজারমুখী হতে হয়। আর এটিই এই ক্ষেত্রটিকে বেছে নেওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ। আর ছিল পতিতালয়।

এখনো কিন্তু তেমন বদল হয়নি। সেবা পণ্যের মোড়ক ধরেই নজরদারির সর্বাধুনিক টুলটি প্রবেশ করছে মানুষের জীবনে। এ তো একেবারে মাঠপর্যায়ের ব্যাপার। তার ওপরের স্তরটির দিকে তাকালেও একটি ব্যবসায়িক মডেলের সঙ্গেই দেখা হবে। নিরাপত্তা সরঞ্জাম বিক্রি, বা নিরাপত্তা ব্যবস্থার অঙ্গ হিসেবে বিভিন্ন সরকারি–বেসরকারি সংস্থাই এই নজরদারির কাজটি করে। চলে লেনদেনও। কী পরিমাণ, তা পেগাসাস কাণ্ডের সঙ্গে কী পরিমাণ অর্থ জড়িত, তার দিকে তাকালেই বোঝা যাবে। আর এই সময়ে সাধারণ থেকে অসাধারণ স্পাইওয়্যার বা ম্যালওয়্যারের অন্যতম বড় সরবরাহটি যে অ্যাডাল্ট সাইটগুলোর গলি–ঘুপচি দিয়ে হয়, তা তো না বললেও চলে। ফলে এখনো সেই আগের মতোই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের তথ্য হাতিয়ে নিতে যৌনতা, লোভ ইত্যাদির মতো মানুষের প্রাথমিক প্রবৃত্তিগুলোকেই কাজে লাগানো হয়। উঁচু দরের স্পাইওয়্যারের ক্ষেত্রে অবশ্য বিষয়টি আলাদা। তখন কিছু না করলেও চলে। রাষ্ট্র যখন খোদ আড়িপাতার জন্য কানটি এগিয়ে দেয়, তখন কেউ তাকে আর না করবে কী প্রকারে!

আরও পড়ুন

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ইউরোপকে শেখাচ্ছে করোনা, শুধু টিকাই যথেষ্ট নয়

    পশ্চিমকে কী চোখে দেখেন পুতিন

    প্রাচুর্যের যুগে সহিষ্ণুতার গান

    গ্লাসগো থেকে কী পেল বিশ্ব

    মুক্ত বাণিজ্য কোন পথে

    পাকিস্তানে পাঠ্যক্রম নিয়ে যা করছে ইমরানের সরকার

    যে কারণে স্টোকস-আর্চারকে দলে রাখেনি রাজস্থান 

    নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ১১ দফা

    নিরাপদ সড়কের দাবিতে আজও সড়কে নেমেছে শিক্ষার্থীরা

    চিকিৎসক সংকটে পাথরঘাটা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

    শ্রীবরদীতে গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগে তিনজন গ্রেপ্তার