বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সেকশন

 

ওষুধ ছাড়াই ডায়াবেটিসকে উল্টো পথ দেখালেন এক পঞ্চাশোর্ধ্ব

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:২১

প্রতীকী ছবি ডায়াবেটিস থেকে পুরোপুরি সেরে ওঠার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত একজন চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার (সিএফও)। আর এটা তিনি করেছেন কোনো ওষুধ সেবন না করেই।

সম্প্রতি সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট হংকং-ভিত্তিক আমোলি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা রবি চন্দ্রের ডায়াবেটিস থেকে প্রত্যাবর্তনের খবর প্রকাশ করে। সংবাদমাধ্যমটি জানায় ৫১ বছর বয়সে টাইপ-টু ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়েছিলেন রবি। সে সময় চিকিৎসক তাঁকে এই রোগের জন্য ওষুধ সেবনের পরামর্শ দিয়েছিলেন। তবে ওষুধ সেবন না করে নিয়ম করে দৌড়াতে শুরু করেছিলেন ওই ভারতীয়। এতে আশ্চর্যজনক সুফল পান তিনি। মাত্র তিন মাসের মধ্যেই তাঁর রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছিল।

জানা যায়, রবি চন্দ্রের ডায়াবেটিস ধরা পড়েছিল ২০১৫ সালে। এরপর তাঁর জীবনে একটি বড় পরিবর্তন আসে। পঞ্চাশোর্ধ্ব বয়সেই তিনি একজন দৌড়বিদ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। এটি শুধু কথার কথা নয়—২০১৫ সালের পর তিনি হংকং, চীন, তাইওয়ান ও ভারতে অন্তত ২৯টি দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন। এর মধ্যে ১২টি প্রতিযোগিতা ছিল ম্যারাথন,৫টি অর্ধ-ম্যারাথন,৭টি ১০ কিলোমিটার এবং ৫টি আল্ট্রা-ম্যারাথন। পাশাপাশি তিনি হেঁটে হেঁটে হংকংয়ের ১০০ কিলোমিটার দীর্ঘ অক্সফাম ট্রেইলও পাড়ি দিয়েছেন।

রবি জানান, দৌড়াতে শুরু করার মাত্র তিন মাস পর তাঁর রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা ৮ থেকে ৬.৮০-তে নেমে এসেছিল। তিনি বলেন, ‘আমি অনুভব করেছিলাম, একবার ওষুধ সেবন শুরু করলে ডোজ বাড়তেই থাকবে। আমি বুঝতে পেরেছিলাম, ফিটনেস উন্নত করলেই তা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে।’

ভারতীয় বংশোদ্ভূত সিএফও আরও জানান, ২০১১ সালে সুস্থ থাকা অবস্থায়ও এক বন্ধুর অনুপ্রেরণায় তিনি একবার নিয়মিত দৌড়াতে শুরু করেছিলেন। তাঁর সেই বন্ধু শতাধিক ম্যারাথনে অংশ নিয়েছেন। তবে কয়েক দিনের মধ্যেই দৌড়ানোর অভ্যাস ত্যাগ করেছিলেন রবি।

যা হোক, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার খবরটি রবিকে আবারও দৌড়ের জগতে ফিরিয়ে আনে। তবে হুট করেই নিয়মিত দৌড়াতে শুরু করেননি তিনি। প্রাথমিকভাবে কয়েক দিন এক কিলোমিটার করে হেঁটেছেন। অল্প অল্প করে বাড়িয়ে একপর্যায়ে তিনি ১০ কিলোমিটার পর্যন্ত হাঁটতে শুরু করেন। এভাবে তাঁর স্ট্যামিনাও বাড়তে শুরু করে এবং তিনি দৌড়াতে শুরু করেন। প্রতি সপ্তাহে অন্তত তিন থেকে চার দিন তিনি একটানা ১০ কিলোমিটার দৌড়াতে সক্ষম হয়েছিলেন।

বর্তমানে তিনি সপ্তাহে ৬ দিনই কাজে যাওয়ার আগে ৪ থেকে ৯ কিলোমিটার পর্যন্ত দৌড়ান। শনিবার কাজ শেষে তিনি একটি দীর্ঘ দৌড়ে যান। এ ক্ষেত্রে তাঁর সবচেয়ে প্রিয় রুট হলো—হংকংয়ের তুং চুং থেকে লানতাও দ্বীপ। এই রুট সম্পর্কে রবি বলেন, ‘এটি ২১ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং সুন্দর। আমি সমুদ্রের কাছে দৌড়াতে পছন্দ করি।’

রবি চন্দ্রের ধারণা, দৌড়াতে শুরু করার পর এখন পর্যন্ত তিনি প্রায় ২০ হাজার কিলোমিটার দৌড়েছেন। দৌড়কে তিনি একই সঙ্গে আসক্তি ও সংক্রামক মনে করেন। বাবার দেখা দেখি তাঁর ২৯ ও ২৪ বছর বয়সী দুই সন্তানও এখন নিয়মিত দৌড়ান।

ডায়াবেটিসের ওপর ছড়ি ঘোরানো রবি জানান, তিনি সাধারণত নিরামিষ খাবার খান। তবে মাঝে মাঝে মাছ বা মুরগিও খান। দৌড়ের জ্বালানি হিসেবে তিনি আপেল ও কমলা খান।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    তথ্য ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকায় সোশ্যাল মিডিয়া: স্বাস্থ্যের ডিজি

    ‘স্বাস্থ্য তথ্য ও পরামর্শ ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকায় সোশ্যাল মিডিয়া’

    এমআরসিপিতে সর্বোচ্চ নম্বরের রেকর্ড গড়লেন ডা. হালিম

    চার কোটি শিশু পাচ্ছে কৃমিনাশক ওষুধ

    খাবারে প্রতিক্রিয়া মানেই অ্যালার্জি নয়, ফুড অ্যালার্জি বুঝবেন যেভাবে

    মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতি কমাতে পারে পুষ্টিকর খাদ্য: গবেষণা

    নীল নদের উৎস জিঞ্জা

    মেরুপথের দুই অভিযাত্রী

    ৫০ লাখের মাইলফলকে হামাদ এয়ারপোর্ট

    নজরুলের স্মৃতিধন্য তেওতা

    আলোকচিত্র প্রদর্শনী