বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সেকশন

 

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর: বিধিবিধান না মেনেই ১৪৩ জন নিয়োগ

আপডেট : ২৯ মার্চ ২০২৪, ০১:০৮

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর: বিধিবিধান না মেনেই ১৪৩ জন নিয়োগ সরকারি প্রকল্প থেকে সরাসরি রাজস্ব খাতে জনবল নিয়োগ বেশ কয়েক বছর আগে বন্ধ করেছে সরকার। আবার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির নিয়োগের ক্ষেত্রেও সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি), জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমতি বাধ্যতামূলক করা আছে।

কিন্তু এসব বিধিবিধানের তোয়াক্কা না করেই স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীনে থাকা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর দুটি ধাপে ১৪৩ জনকে নিয়োগ দিয়েছে। ওই জনবলের বেশির ভাগ পদই প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির। স্থানীয় সরকার বিভাগ ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর মিলে এই নিয়োগ দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও অধিদপ্তর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্রমতে, এর আগে এই জনবল নিয়োগের অনুমতি চাওয়া হলে অর্থ বিভাগ নানা অসংগতি তুলে ধরে সেগুলোর বিষয়ে তথ্য চেয়ে পাঠায়। কিন্তু তথ্য না দিয়ে নিয়োগপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করে আবার অর্থ বিভাগসহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। এবার এই নিয়োগের বৈধতা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে। ফলে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে নিয়োগ পাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনিশ্চয়তায় পড়তে পারেন বলে কেউ কেউ মনে করছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. মলয় চৌধুরী (পানি সরবরাহ) আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি এখানে অল্প কিছু দিন হলো দায়িত্বে এসেছি। তাই বিস্তারিত কিছু বলতে পারছি না।’

স্থানীয় সরকার বিভাগ সূত্রে জানা যায়, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ৮টি প্রকল্পে ৬১ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।ওই জনবলের মধ্যে ৫৯ জনকে প্রকল্প থেকে সরাসরি রাজস্ব খাতে আত্তীকরণ করা হয়। তবে আত্তীকরণ আদেশ জারির আগে অর্থ বিভাগের সম্মতি নেওয়া হয়নি। তাদের চাকরির ধারাবাহিকতা গণনা করে পেনশন ও অন্যান্য সুবিধা বাবদ ২৩ কোটি ৬৯ লাখ ৮৩ হাজার ১৩১ টাকা চেয়ে অর্থ বিভাগে সম্প্রতি চিঠি দেয় স্থানীয় সরকার বিভাগ। এ ছাড়া একই অধিদপ্তরের ‘বাংলাদেশ আর্সেনিক মিটিগেশন ওয়াটার সাপ্লাই’ প্রকল্পসহ অন্যান্য প্রকল্প থেকে ৮৪ জনকে রাজস্ব খাতে নিয়োগের বিষয়টিও উল্লেখ করা হয় চিঠিতে। সব মিলিয়ে ১৪৩ জনকে প্রকল্প থেকে রাজস্ব খাতে নিয়োগ দিয়ে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর তার অনুমোদন চাইছে।

অর্থ বিভাগ বলছে, এই নিয়োগে অর্থ বিভাগের অনুমোদন নেওয়া হয়নি। তবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের দাবি, এ ক্ষেত্রে আদালতের রায় ছিল। তাই প্রকল্প থেকে রাজস্ব খাতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

অর্থ বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, এ নিয়োগের জন্য ২০১৮ সালের ২৮ আগস্ট স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছিল। তখন কিছু অসংগতি পেলে অর্থ বিভাগ থেকে ২০১৯ সালের ৮ এপ্রিল আরও কিছু তথ্য চেয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগে চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু ওই চিঠির আর উত্তর পাওয়া যায়নি। এরপর স্থানীয় সরকার বিভাগ ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর মিলে এ নিয়োগ শেষ করে এখন অনুমোদন চাইছে। ফলে এ নিয়োগের বিষয়ে অর্থ বিভাগ থেকে অনুমোদন পাওয়ার আইনগত কোনো সুযোগ নেই।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে চাইলে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী (সংস্থাপন) মোহাম্মদ ফয়েজুল ইসলাম সুমন কিছু বলতে রাজি হননি। অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী প্রকৌশলী মো. সরোয়ার হোসেনকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ধরেননি। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্পের নীতিমালায় অবশ্যই পরিবর্তন দরকার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    দুর্নীতির অভিযোগে জেনারেল আজিজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা সেনাবাহিনীর বিষয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    নারীর জীবনমান উন্নয়নে বাংলাদেশের পাশে থাকবে জাতিসংঘ

    থ্রিডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ বানিয়ে চমক দেখাল এপিএসসিএল

    সব ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মামলা নয়, তালিকাও তৈরি হয়নি

    এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে: শেয়ার হস্তান্তরে স্থিতাবস্থা, থমকে গেছে নির্মাণকাজ

    উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

    দ্বিতীয় ধাপের ভোটে যাঁরা চেয়ারম্যান হলেন

    সিলেটে নির্বাচনে হেরে আ.লীগ নেতাকে বেইজ্জতি করার হুমকি

    সিলেট থেকে সরাসরি হজ ফ্লাইট চালু

    পুনের পোর্শেকাণ্ড: আড়াই হাজার টাকার জন্য লাইসেন্স ছিল না সাড়ে ৩ কোটির গাড়িটির

    এমপি আনোয়ারুল আজীমকে খুন করতে ৫ কোটি টাকার চুক্তি

    যেসব কারণে ভ্রমণ ও পর্যটন সূচকে তলানিতে বাংলাদেশ