Alexa
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 
নয়াপল্টনে সংঘর্ষ

‘আমার বাচ্চাকে ছেড়ে দিন, তার পরীক্ষা’ 

আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩:৫৮

নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয় থেকে মা-ছেলেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ছবি: আজকের পত্রিকা ‘আমার বাচ্চাকে ছেড়ে দিন, তার পরীক্ষা, তাকে ছেড়ে দিন, না হলে তার জীবন নষ্ট হয়ে যাবে। তার জীবনটা বাঁচান।’ বুধবার সন্ধ্যায় বিএনপি কার্যালয় থেকে এক নারী ও তাঁর কিশোর ছেলেকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) বের করে নিয়ে আসার সময় এভাবে ওই নারী পুলিশকে কান্না করে অনুরোধ করেন। তবে পুলিশ তাঁর অনুরোধ শোনেননি, কিশোর ছেলেসহ ওই নারীকে প্রিজন ভ্যানে তুলে নেন।

পরবর্তীতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই নারীর নাম সুরাইয়া জেরিন রনি। তিনি বগুড়া গাবতলী উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান এবং বগুড়া জেলার মহিলা দলের যুগ্ম সম্পাদক। তাঁর ছেলের নাম রোমিও। ছেলে মিরপুর মণিপুরি স্কুলের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার বার্ষিক পরীক্ষা চলছে। বাসায় কেউ না থাকায় ছেলেকে নিয়ে আজকে বিএনপির অনির্ধারিত সমাবেশে এসেছিলেন। সমাবেশ শেষে আবার বাসায় ফিরে যাওয়ার কথা ছিল। তবে তার আগেই পুলিশ ও বিএনপির নেতা কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। রনি তাঁর ছেলেকে নিয়ে বিএনপির পার্টি অফিসে সবার সঙ্গে আশ্রয় নেয়। ডিবি পুলিশ সন্ধ্যায় অভিযান শুরু করার পর একে একে সবাইকে বের করে আনেন, তখন মা ছেলে হাত ধরে বের হন। 

সরেজমিনে দেখা যায়, সুরাইয়া জেরিন ও তাঁর ছেলে একে অপরের হাত ধরে সন্ধ্যা সোয়া ৫টার দিকে বিএনপির নয়াপল্টনের কার্যালয় থেকে পুলিশের ব্যারিকেডের মধ্য দিয়ে সারিবদ্ধভাবে বের হন। পুলিশ তাদের প্রিজনভ্যানে উঠতে বলেন, তবে রোমিও তার মায়ের হাত ধরে দ্রুত প্রিজন ভ্যানে না উঠে বের হয়ে চলে যেতে শুরু করেন। এ সময় দুজন পুলিশ সদস্য তাদের দৌড়ে গতিরোধ করেন। প্রথমে আদের একটি প্রিজন ভ্যানে তোলার চেষ্টা করেন ডিবি পুলিশের দুজন সদস্য, তবে সেটিতে সব পুরুষ নেতা-কর্মী থাকায় তার পেছনের একটি প্রিজন ভ্যানে নেওয়া হয়, যেটিতে বিএনপির নারী কর্মীদের আগে থেকেই তোলা হয়েছে। মা ছেলেকে জোড় করে ডিবি পুলিশ ওই প্রিজন ভ্যানে তুলে দেন। প্রিজন ভ্যানে ঢুকে, সুরাইয়া জেরিন ছেলের জন্য চিৎকার করে কান্না শুরু করেন। তিনি কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘আমার বাচ্চাকে ছেড়ে দিন, আমাকে নিয়ে যান, আমার বাচ্চার পরীক্ষা। তার বার্ষিক পরীক্ষা চলে, তার জীবন নষ্ট হয়ে যাবে, তাকে ছেড়ে দিন।’

তবে পুলিশ তাঁর এই অনুরোধ পাত্তা দেয়নি। সন্ধ্যা ৫টা ২০ মিনিটের দিকে তাদের বহনকারী ভ্যানটি বিএনপির কার্যালয়ের সামনের সড়ক থেকে কাকরাইল হয়ে ডিবি অফিসে চলে যায়। 

এর আগে বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে বিএনপি ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সন্ধ্যা ৫টা পর্যন্ত সংঘর্ষ চলে। এতে মকবুল নামে বিএনপির একজন কর্মী পুলিশের গুলিতে মারা যান। এ ছাড়া সাংবাদিক, পুলিশ ও বিএনপি কর্মীসহ অন্তত শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন। তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। 

এই ঘটনায় সন্ধ্যা ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয় অভিযান চালায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। কার্যালয় থেকে হাত বোমা, ককটেল, ১৬০ বস্তা চাল, কার্টন কার্টন তেল, খাবার পানি উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া বিএনপি নেতা রুহুল কবীর রিজভী, আমান উল্লাহ আমান, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীসহ তিন শতাধিক নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে পুলিশ। 

ডিএমপির ডিবি পুলিশের প্রধান ও অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ বিএনপি কার্যালয় অভিযান শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা তাদের দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করলাম। সেখানে দেখলাম অবিস্ফোরিত ককটেল রয়েছে। সেখানে অবিস্ফোরিত ১৫টি হাত বোমা, দুই লাখেরও অধিক টাকা পেলাম। লক্ষ লক্ষ পানির বোতল, খিচুড়ি, ১৬০ বস্তা চাল এবং খিচুড়ি পাক করা দেখেছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    খালেদা জিয়ার মুচলেকার দাবি ভিত্তিহীন: মির্জা ফখরুল 

    আওয়ামী লীগের হাতে কিছুই নিরাপদ নয়: নুর

    কর্মীদের উৎসাহ দিতেই বিএনপি নেতারা আন্দোলনের কথা বলেন: আবদুর রহমান

    সংবিধান অনুযায়ী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে: আখাউড়ায় আইনমন্ত্রী

    বিভাগীয় শহরে সমাবেশের আগে রাজধানীতে পদযাত্রা করবে বিএনপি

    ৪ ফেব্রুয়ারি বিভাগীয় শহরে সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

    ‘পান খেলেই’ মাথা দিয়ে ধোঁয়া ওঠে রব্বানীর

    ডায়াবেটিস রোগীর সংক্রমণ প্রতিরোধে

    অস্থির ব্যথা দূর করতে

    অসাবধানতায় বাড়ে স্ট্রোকের ঝুঁকি

    বাড়ি থেকে বের হওয়ার পরদিন মিলল বৃদ্ধের গলাকাটা লাশ

    ডাচ ডিফেন্ডারের গোলেই ম্যাচ হেরেছে আর্সেনাল