রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 
আষাঢ়ে নয়

পিচ্চি হান্নানকে দিয়েই ‘হাতেখড়ি’ র‍্যাবের

আপডেট : ১৮ জুলাই ২০২১, ০০:০২

পিচ্চি হান্নান। বিমানবন্দর থেকে উত্তরার দিকে যেতে ডান পাশে র‍্যাব-১-এর যে ভবনটি চোখে পড়ে, তার দোতলায় বসতেন ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার (অধিনায়ক) লে. কর্নেল চৌধুরী ফজলুল বারী। অত শান-শওকত তখন ছিল না, চাইলে যে কেউ বিনা বাধায় ভেতরে যেতে পারত। দোতলার বারান্দায় উঠে দেখি হ্যান্ডকাফ পরা এক লোক টুলে বসে বাটিতে চানাচুর মেশানো মুড়ি খাচ্ছেন। সামনে অস্ত্র হাতে র‍্যাবের দুজন সদস্য। কাছে গিয়ে দেখি হ্যান্ডকাফ পরা লোকটির সঙ্গে তাঁরা গল্প করছেন।

কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে তাঁদের গল্প শুনে হ্যান্ডকাপ পরা লোকটিকে জিজ্ঞেস করলাম–আপনার নাম কী? লোকটি অস্ত্রধারীদের দিকে তাকিয়ে বললেন, মো. আবদুল হান্নান। সঙ্গে সঙ্গে অস্ত্রধারী একজন বললেন, আরে ব্যাটা বল, পিচ্চি হান্নান। লোকটি নীরব। আমি বললাম, ও! কারওয়ান বাজারের হান্নান? এবার তিনি মাথা নাড়লেন। একটু পরেই ডাক পড়ল অধিনায়কের কক্ষ থেকে। আমাকে দেখে চৌধুরী ফজলুল বারী বললেন, পিচ্চি হান্নানকে দেখলেন? ওকে নিয়ে অভিযানে বের হব, খবর পাবেন।

খবর পেলাম ঠিকই। সেই অভিযান হলো ২০০৪ সালের ২৬ জুন রাতে। পরদিন সব কাগজে বড় বড় হেডলাইনে ছাপা হলো—র‍্যাবের ক্রসফায়ারে শীর্ষ সন্ত্রাসী পিচ্চি হান্নান নিহত। ক্রসফায়ারের ‘হাতেখড়ি’ নিল র‍্যাব। এর পরের ইতিহাস সবার জানা।

আমরা যাঁরা ক্রাইম রিপোর্টিং করতাম, তাঁরা এই হান্নানদের অত্যাচারে ঠিকমতো ঘুমাতেও পারতাম না। সেটা অবশ্য সন্ত্রাসী হুমকির জন্য নয়, তাদের কর্মকাণ্ডের জন্য। তখন প্রতি রাতেই গোলাগুলি হতো। আজ কারওয়ান বাজারে বন্দুকযুদ্ধ, তো কাল তেজকুনিপাড়ায়, পরশু রেলগেটে। পরদিন রাজাবাজারে। গোলাগুলি হলেই নাওয়া–খাওয়া বাদ দিয়ে ছুটতে হতো ঘটনাস্থলে। একদিন দেখা গেল, রাতে অফিসের কাজ শেষ করে বাড়ি গেছি, হঠাৎ অফিস থেকে ফোন— মালিবাগে গোলাগুলি হচ্ছে। দিলাম দৌড়। এভাবে চলছিল মাসের পর মাস, বছরের পর বছর।

বিএনপির নেতৃত্বে চারদলীয় জোট ক্ষমতায় এসে সন্ত্রাসীদের থামাতে প্রথম গঠন করল র‍্যাপিড অ্যাকশন টিম–সংক্ষেপে `র‍্যাট’। ডিসি মাজহারুল হক ছিলেন এর প্রধান। র‍্যাটের নাম নিয়ে লোকে হাসাহাসি করত। বলত ‘ইঁদুর বাহিনী’। পরে র‍্যাট বিলুপ্ত করে বানানো হলো র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। তারা মাঠে এসেই শুরু করে দিল ক্রসফায়ার। যদিও সে সময় সন্ত্রাসীদের একটি বড় অংশ বিএনপির কয়েকজন নেতার প্রশ্রয় পেয়ে আসছিল। শীর্ষসন্ত্রাসী পিচ্চি হান্নানও ছিলেন সেই তালিকার একজন। 
যত দূর মনে পড়ে, হাতিরপুলে ফ্রি স্কুল স্ট্রিটে ছিল হান্নানের শ্বশুরবাড়ি। এ এলাকায় আরেক হান্নান ছিলেন, যিনি লিয়াকতের ঘনিষ্ঠ। সেই হান্নান রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে বেড়াতেন। দৈহিক গড়নে দুই হান্নানের মধ্যে কারওয়ান বাজারের হান্নান খাটো হওয়ায় সবাই তাঁকে পিচ্চি হান্নান নামে ডাকতে শুরু করে। সেই থেকে অপরাধজগতে তিনি পরিচয় পেয়ে যান পিচ্চি হান্নান নামে।

কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ীরা তখন বলেছিলেন, চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জের চরদুখিয়া ইউনিয়নের ওয়াজিউল্লাহর পাঁচ সন্তানের দ্বিতীয় ছিলেন হান্নান। ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া। এরপর বাবার কাঁচামালের ব্যবসায় সহযোগিতা করতে চলে আসেন ঢাকায়, কারওয়ান বাজারে। সেখান থেকে ধীরে ধীরে ছোটখাটো চুরি, ছিনতাইয়ে জড়িয়ে পড়া। কারওয়ান বাজার রেললাইনের পাশে তখন মাদক বেচাকেনা শুরু হয়েছে। সেই আস্তানা পুরোপুরি নিজের নিয়ন্ত্রণে নেন হান্নান। ওই সময় কারওয়ান বাজারের উল্টো দিকে স্টার বেকারির পাশে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে হামলা চালায় তাঁর দল। সেখানে গুলি করে রানা নামের এক যুবককে হত্যা করে। এরপরই ঢাকার অপরাধজগতে নাম ছড়িয়ে পড়ে। সে সময় সরকারি দলের প্রভাবশালী কয়েক ব্যক্তিদের সঙ্গেও গভীর সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পুলিশের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গেও সম্পর্ক ছিল তাঁর। 
‘৯৬–৯৭ সালের পর খুব অল্প দিনের মধ্যে রাজধানীর একটি বড় অংশের মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ চলে আসে হান্নানের হাতে। শুরু করেন চাঁদাবাজি। খুব অল্প দিনেই বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হন। ব্যবসাও শুরু করেন।

পিচ্চি হান্নান চলাফেরা করতেন কড়া নিরাপত্তার মধ্যে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দেহরক্ষী চারপাশ ঘিরে থাকত। তাদের প্রত্যেকের হাতে থাকত স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র। কোনো এলাকায় তিনি যাওয়ার পরিকল্পনা করলে অগ্রবর্তী দল গিয়ে সংকেত দিত, এরপর তিনি রওনা হতেন। কেউ তাঁর কর্মকাণ্ডে বাধা দিলেই খুন করতেন। এভাবে তাঁর হাতে খুন হয়ে যান বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান মণ্ডল, ওয়ার্ড কমিশনার শাহাদাত হোসেন, এসআই হুমায়ুন কবিরসহ অনেকে। ২০০৪ সালে ধরা পড়ার সময় তাঁর বিরুদ্ধে ২১টি খুনের মামলা ছিল।

২০০১ সালে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার যেসব সন্ত্রাসীকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা করে, তাঁদের অনেকের সঙ্গে পিচ্চি হান্নানের ঘনিষ্ঠতা ছিল। এর মধ্যে মিল ব্যারাকের কচি একজন। এ ছাড়া সুব্রত বাইন, মোল্লা মাসুদ, টিক্কা, জয়, কিলার আব্বাস, নিটেল, কালা জাহাঙ্গীর, টোকাই সাগরের সঙ্গে তাঁর ভালো সম্পর্ক ছিল। তাঁরা রাজধানীতে এলাকা ভাগাভাগি করে চাঁদাবাজি করতেন।

ওই সময় চলচ্চিত্রেও বিপুল টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন পিচ্চি হান্নান। তবে তিনি সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী নেতা শাহাবুদ্দিনের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে। শাহাবুদ্দিন পিচ্চি হান্নানকে সামাল দিতে আরেকটি গ্রুপ ভাড়া করেন। এ ছাড়া শাহাবুদ্দিন বিভিন্ন দপ্তরে পিচ্চি হান্নানের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিবরণ দিয়ে চিঠি পাঠাতে শুরু করেন। এতে প্রশাসনের নজর পড়ে যায় হান্নানের ওপর। পিচ্চি হান্নান নিহত হওয়ার পর শাহাবুদ্দিনও ক্রসফায়ারে নিহত হন।

 র‍্যাবের একজন কর্মকর্তা আমাকে বলেছিলেন, একজন সাবেক সাংসদকে হত্যার পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নেমেছেন পিচ্চি হান্নান। তাঁকে ধরতেই হবে। ২০০৪ সালের ২৪ জুন রাতে উত্তরার একটি বাড়িতে অভিযান চালায় র‍্যাব। হান্নান সে সময় দলবল নিয়ে বৈঠকে বসে ছিলেন। র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায় সবাই। র‍্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। গুলিতে হান্নান আহত হন। ভর্তি হন আশুলিয়ার ইনসাফ ক্লিনিকে।

পরদিন সেই ক্লিনিকে অভিযান চালান র‍্যাবের ক্যাপ্টেন কাজী আলমগীর ও লেফটেন্যান্ট আরমান। তাঁরা দেখতে পান, হাসপাতালের দোতলায় একটি ছোট ঘরে শুয়ে আছেন হান্নান। তিনি প্রথমে নিজেকে সাইফুল পরিচয় দেন। পাশের বিছানায় বসে থাকা সাহেব আলী নিজেকে হান্নানের ভাই পরিচয় দেন। তাঁর কথাবার্তায় সন্দেহ হলে র‍্যাব সদস্যরা আরও জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরিচয় প্রকাশ করেই উপস্থিত র‍্যাব কর্মকর্তাদের হান্নান বলেন, ‘স্যার, আমাকে গ্রেপ্তার করে লাভ নেই। তার চেয়ে কিছু সময় অপেক্ষা করুন। আপনাদের ৫০ লাখ টাকা দিই, নিয়ে চলে যান। যদি মনে করেন আরও বেশি টাকার দরকার, সেটাও বলতে পারেন।’ এ সময় উপস্থিত একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘আপাতত র‍্যাব কার্যালয়ে চলো। হান্নানের সঙ্গে ধরা পড়েন সাহেব আলী ও নিটেল। এই নিটেল ছিলেন কালা জাহাঙ্গীরের সহযোগী। কালা জাহাঙ্গীরের মা পেয়ারা বেগম আমাকে নিটেলের কথা বলেছিলেন। কালা জাহাঙ্গীর নিহত হওয়ার পর তাঁর পরিবারকে দেখাশোনা করতেন নিটেল। পরে তিনিও ক্রসফায়ারে মারা যান।

২০০৪ সালের ২৬ জুন পিচ্চি হান্নানকে নিয়ে অভিযানে যায় র‍্যাব। অভিযান শেষে রাত ৮টার দিকে সাংবাদিকদের ডাকা হয় র‍্যাব কার্যালয়ে। আমরা গিয়ে দেখি পিচ্চি হান্নানকে, সাদা শার্ট ও সাদা চাদর পরে মেঝেতে পড়ে আছে পিচ্চি হান্নানের দেহ। বুক থেকে নাভি পর্যন্ত ব্যান্ডেজ বাঁধা। বাঁ পায়েও আরেকটি ব্যান্ডেজ। হাতে-পায়ে পুরোনো অসংখ্য কাটা চিহ্ন। বাঁ পায়ের তিনটি আঙুল নেই।

অবৈধ উপার্জনের মাধ্যমে তৈরি সাম্রাজ্য ও বৈভব যার, সেই হান্নানের পরিণতি এমনই। নিজের জন্মস্থান চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার সন্তোষপুরে গ্রাম যার শেষ আশ্রয়।

আরও পড়ুন

মন্তব্য ( ৩ )

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    অন্তর্ভুক্তিমূলক সহযোগিতাধর্মী জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

    মামলা নিষ্পত্তিতে দেরি হলে খরচ ও জট বাড়ে: প্রধান বিচারপতি 

    সাম্প্রতিক ইস্যুতে সরকারের পদক্ষেপকে ‘অত্যন্ত উত্তম’ বলেছে ভারত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    চলতি অক্টোবরে ডেঙ্গু রোগী ছাড়াল ৪ হাজার

    রাষ্ট্রীয় সফরে ভারত গেলেন নৌবাহিনী প্রধান

    শাহবাগে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের গণ অবস্থান, বিশেষ ট্রাইব্যুনালসহ ৮ দফা দাবি

    নতুন প্রসাধনী ব্যবহারের আগে

    একসঙ্গে তিন নবজাতকের প্রসব

    রামেকে করোনা উপসর্গে দুজনের মৃত্যু

    নোট, গাইড, কোচিং থাকছে অন্য নামে

    ঐক্যের অভাবই কি বড় ঝুঁকি?

    অন্তর্ভুক্তিমূলক সহযোগিতাধর্মী জাতিসংঘ গড়ে তুলতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর