Alexa
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 
আষাঢ়ে নয়

সোনার খোঁজে আদার ব্যাপারী

কামরুল হাসান
আপডেট : ১৬ মে ২০২২, ২০:১৩

সোনার খোঁজে আদার ব্যাপারী লোকটা চিৎকার করেই যাচ্ছেন। কোনো কথা শুনছেন না, জবাবও দিচ্ছেন। একবার বললেন, এই রশি আনতো, একে বেঁধে ফেলি। মালিকের হাঁকডাক শুনে কর্মচারীদের সবাই এলেন দলবেঁধে। খালি হাতে। তাঁরা অবাক হয়ে আমাকে দেখছেন, কেউ কিছু বলছেন না। আমি খুব ঠান্ডা মাথায় তাঁকে বোঝানোর চেষ্টা করছি। কিন্তু তিনি আরও উত্তেজিত। আপনি থেকে তুই-তুকারি শুরু করেছেন। বারবার বলছেন, থানা-পুলিশ সব তাঁর কেনা। চাইলে আমাকে হাওয়া করে দিতে পারেন। ‘গুম’ শব্দটা তখনো অতটা মুখ সওয়া ছিল না বলে হয়তো বেঁচে গেছি।

দোকান কর্মচারীদের মধ্যে নেতাগোছের লোকটা আমাকে বললেন, আপনি চলে যান, আর আলাপের দরকার নেই। কিন্তু মালিক আমাকে বেরোতে দিচ্ছেন না। তিনি দেখেই ছাড়বেন। একপর্যায়ে আমাকে রুমের ভেতরে রেখে দুম করে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে চলে গেলেন। হাতে তখন মোবাইল ফোনও ছিল না, কারও কাছে সাহায্য চাইব সে উপায় নেই। উদ্ধার পাওয়ার আশায় চুপ করে বসে আছি।

অবশ্য লোকটির এই বেপরোয়া আচরণে আমি এতটুকু ভয় পাইনি। আসার আগেই আমি এক বন্ধু-কর্মীকে সব জানিয়ে এসেছি। ফিরতে দেরি হলে সে খোঁজ-খবর করবে। পেশাগত জীবনে এই কাজটি আমি সবসময় করি। বিশেষ কোনো স্থানে যাওয়ার আগে দু-একজন সহকর্মীকে জানিয়ে যাই, যাতে বিপদে পড়লে উদ্ধার পেতে পারি।

জীবনে আমি অনেক খুনি-সন্ত্রাসীর মুখোমুখি হয়েছি। কিন্তু এত খারাপ আচরণ কেউ করেনি। তবে যেখানে বসে আছি সেটা কোনো চিহ্নিত সন্ত্রাসীর ডেরা নয়। এটা বায়তুল মোকাররম মার্কেটের নিচের তলায় একজন সোনা ব্যবসায়ীর শোরুম লাগোয়া চেম্বার। শোরুমের ভেতর দিয়েই সেই চেম্বারে ঢুকতে হয়। তবে বাইরে থেকে ভেতরের রুমটি বোঝা যায় না। যার সঙ্গে কথা বলতে এসেছি, তিনি একজন নামকরা স্বর্ণ ব্যবসায়ী। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে মিলে তার ছয়-সাতটি শোরুম। একজন বিখ্যাত নৃত্যশিল্পী তাঁর জুয়েলারির মডেল। টিভি ও খবরের কাগজে হররোজ বিজ্ঞাপন যায়। আমি তাঁর সঙ্গে ফোন করে সময় নিয়ে কথা বলতে এসেছি। আপাতত তাঁর নাম বলছি না।

তখন আমি জনকণ্ঠে। ১৯৯৮ সালের শেষের দিকে পরিকল্পনা করলাম সোনা পাচার ও সোনার গয়নার খাদ নিয়ে রিপোর্ট করব। মোয়াজ্জেম হোসেন তখন জনকণ্ঠের সিনিয়র রিপোর্টার (বর্তমানে বিবিসি বাংলা-লন্ডনে), তিনি রিপোর্টের পরিকল্পনাটি চূড়ান্ত করতে সাহায্য করলেন। যথারীতি খোঁজ-খবর শুরু করলাম। কিন্তু যত ভেতরে যাই তল আর পাই না। এটা বলে রাখি, সোনা পাচারের সঙ্গে দুটি বাহিনী জড়িত। একটি কাস্টমস, আরেকটি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। কাস্টমসের কাছে সোনার মতো বস্তুটাই মুখ্য, ব্যক্তিটা গৌণ।

কে সোনা আনল, তা নিয়ে তাদের মাথাব্যথা নেই। পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে মুখ্য ব্যক্তি। সোনা পাচারের নেপথ্যের যে ব্যক্তি, তাকে খুঁজে বের করা পুলিশের কাজ। কিন্তু তারা সেটা করে না। কেন করে না তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কিন্তু আমার সব তথ্যই দরকার, না হলে সিরিজ জমবে না।

তার আগে সোনা পাচার নিয়ে একটু ধারণা দিই। ২০১৭ সালে দেশে ৬৯১ কেজি সোনা পাচারের সময় উদ্ধার হয়েছে। ইউএনওডিসির একটি হিসাব আছে, যত মাদক ধরা পড়ে তা পাচার হওয়া মাদকের মাত্র ১০ শতাংশ। সোনার ক্ষেত্রে যদি সেই হিসাব চালিয়ে দেওয়া যায়, তাহলে বছরে কত সোনা পাচার হয়, তার যোগফল শুনলে আঁতকে উঠবেন।

সোনার কারবারের জন্য দুনিয়াজুড়ে সিন্ডিকেট আছে। এটা ঢাকা থেকে দুবাই হয়ে কলকাতা-মুম্বাই পর্যন্ত বিস্তৃত। দুবাই ও ঢাকার সাত-আটটা মানি এক্সচেঞ্জের মালিক এদের টাকার লেনদেনের ব্যবস্থা করে দেন। সোনার চালান সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া—যেখান থেকেই আসুক না কেন, সব লেনদেনই হয় দুবাই থেকে। তবে ঢাকা ও কলকাতার নগদে কোনো লেনদেন হতো না। পাচার করা গরুর দামের মাধ্যমে সোনার দাম পরিশোধ করা হতো। আরেকটু পরিষ্কার করে বলি, সিঙ্গাপুরের সোনা ব্যবসায়ী স্টিফেন এক মণ সোনার চালান পাঠিয়েছেন ভারতে। সেই চালান উড়োজাহাজে এসে প্রথমে খালাস হবে ঢাকায়। এরপর সড়কপথে চলে যাবে ভারতে। ঢাকার কয়েকটি মানি এক্সচেঞ্জের মালিক সেই দাম পরিশোধ করবেন দুবাইয়ে বসে থাকা সোনার মূল ব্যবসায়ীর কাছে। পাচার হওয়া সোনা ভারতে পাঠানোর পর কলকাতার সোনা চোরাচালানি আসিফ, অজিত, গোবিন্দ, বিজন হালদার, লক্ষ্মণ, গোপাল বা কৃষ্ণ কুমার দাস সেই দাম দেন ভারত থেকে যারা গরু চোরাচালান করতেন, তাদের হাতে। তার বিনিময়ে তারা গরু পাঠাবে বাংলাদেশে। আবার বাংলাদেশের গরু ব্যবসায়ীরা সেই দাম ঢাকার কয়েকজন সোনা ব্যবসায়ীকে দেবেন। মানি এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে সেই টাকা চলে যাবে দুবাইয়ে। এভাবে ঘুরতে থাকে সোনা পাচারের অর্থ।

তবে সোনা পাচারের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল বিমানবন্দর এলাকার নিয়ন্ত্রণ। তার জন্য বিপুল অর্থও খরচ করতে হয়। সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া বা দুবাই থেকে সোনার চালান আসে ওইসব দেশে কর্মরত শ্রমিকদের মাধ্যমে। পাচারকারীদের লোকজন সরাসরি এ কাজে জড়ান না। যে কারণে সোনার বাহক ধরা পড়লেও এর মালিককে সহজে খুঁজে পাওয়া যায় না।

আমার কাছে তথ্য ছিল, সোনা পাচারের পেছনে ঢাকার যেসব ব্যবসায়ী লগ্নি করেন, তাঁদের একজন নামকরা সেই সোনার দোকানের মালিক, যিনি আমাকে আটকে রেখেছেন। তিনি আসলেই ছিলেন সোনা পাচারকারীদের রিং লিডার। বিশাল জুয়েলারি ব্যবসার আড়ালে এসব করতেন। আমার কাছে তাঁর যাবতীয় তথ্য ছিল, কলকাতায় বাড়ি, ঘনঘন দুবাই যাতায়াতের রেকর্ড, পাচারের সময় গ্রেপ্তার হওয়া লোকজনের বক্তব্য—এই সব। আমার সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে তিনি বুঝতে পারছিলেন ফেঁসে যাচ্ছেন। অনুমতি নিয়েই তাঁর কথা রেকর্ড করছি। তারপরও একপর্যায়ে রাগে অগ্নিশর্মা হয়ে ওঠেন। 
যাহোক, ঘণ্টা দুয়েক পর ওই ব্যবসায়ী নিজে এসে দরজা খুলে দেন। পরে শুনেছিলাম আমাকে আটকে রেখে তিনি জনকণ্ঠে ফোন করেছিলেন। সে সময় জনকণ্ঠে তাঁর পরিচিত ছিলেন ডেস্কের স্বপন দত্ত। তাঁর কাছ থেকে সবকিছু জানার পর আমাকে ছেড়ে দেন। তবে ছেড়ে দেওয়ার সময় ভয় দেখিয়ে বলেন, ‘নিউজ হলে তোর খবর আছে’।

এরপর আমি ‘সোনার গয়নায় খাঁটি সোনা নেই’—শিরোনামে একটি সিরিজ রিপোর্ট করি, রিপোর্টটি করে পুরস্কারও পেয়েছিলাম। সে সময়ে জনকণ্ঠে ‘রিপোর্টারের ডায়েরি’ নামে একটি কলাম ছাপা হতো প্রতি সোমবারে। তাতে থাকত খবরের পেছনের গল্প। আমিও তাতে কারও নাম উল্লেখ না করে সেই গল্পটা লিখলাম। ছাপা হওয়ার পর জনকণ্ঠের সম্পাদক মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদের পিএস নজরুল ইসলাম (বর্তমানে ইসলামি ব্যাংকের কর্মকর্তা) আমাকে ডাকলেন। সম্পাদক সব ঘটনা শুনে বকাঝকা করলেন, কেন এ ঘটনা আগে তাঁকে বলিনি।

পরের দিন বিকেলে অফিসে ঢুকতেই শুনি সম্পাদক আবার ডেকেছেন। তখনকার আদালত প্রতিবেদক আলী আসগর স্বপনকে (নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের পিপি) নিয়ে গেলাম ওপর তলায়। দেখি সেই সোনার ব্যবসায়ী বসে আছেন। সম্পাদক তাঁকে ডেকে এনে বসিয়ে রেখেছেন। আমাকে সামনে পেয়ে তিনি সোনার ব্যবসায়ীর কাছে জানতে চাইলেন, কেন আমাকে আটকে রাখা হয়েছিল। অতবড় ব্যবসায়ী কিছু না বলে শুধু ‘ভুল হয়েছে ভাই’ বলে সম্পাদককে বললেন। কিন্তু সম্পাদক তাতে খুশি নন। তিনি বললেন, আমার রিপোর্টারের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। ব্যবসায়ী পড়লেন বিপাকে। কিন্তু সম্পাদক নাছোড়। শেষ পর্যন্ত তাঁকে ক্ষমা চাইতেই হলো।

আমার মতো খুব সাধারণ মানের একজন রিপোর্টারের কাছে এ ঘটনা খুবই অপ্রত্যাশিত ছিল। আবেগে চোখে পানি চলে এল। আমার চোখ ভেজা দেখে আদুরে বকা দিয়ে সম্পাদক বললেন, ‘ক্রাইম রিপোর্টিং করতে এসেছো, তো মন এত নরম কেন হে, চোখ মোছো।’

সম্পাদকের কথা শুনে চোখ মুছতে মুছতে বাইরে চলে এলাম।

মন্তব্য ( ১ )

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    অপরাধ প্রমাণিত হলে কূটনীতিক আনারকলির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা 

    আষাঢ়ে নয়

    নায়িকা পপির শূন্য হওয়ার গল্প

    ইউজিসির ‘টেবিল মেইড’ প্রতিবেদন নিয়ে ক্ষুব্ধ সংসদীয় কমিটি

    জুলাইয়ে বেড়েছে খুন, গণপিটুনি বেড়েছে উদ্বেগজনক হারে

    আষাঢ়ে নয়

    সরব প্রতিবাদের দিন শেষ

    মানবতাবিরোধী অপরাধ: খুলনার ৬ আসামির মৃত্যুদণ্ড

    ধর্ষণের অভিযোগে খুবি শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার

    প্রথম দক্ষিণ এশীয় হিসেবে ‘মিলেনিয়াম লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন স্থপতি মেরিনা

    মাদারগঞ্জে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগিতা

    আর্জেন্টিনায় উগ্র সমর্থকদের ক্ষোভের আগুনে পুড়ে ছাই ফুটবলারদের গাড়ি

    দেশে-বিদেশে সর্বত্রই ধিক্কৃত হচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল

    ভেড়ামারায় ফিলিং স্টেশনে অগ্নিকাণ্ড, নিহত ২