সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪

সেকশন

 

ধার করে চলছে ৭৪% গরিব: জরিপ

আপডেট : ৩০ মার্চ ২০২৩, ০০:৫৮

 বাজারে চাল-ডাল থেকে শুরু করে সবকিছুর দাম বেড়েছে দফায় দফায়। সেই তুলনায় মানুষের আয় বাড়েনি। উচ্চবিত্তের চিন্তা নেই। মধ্যবিত্ত কোনোরকমে ম্যানেজ করে চলছে। কিন্তু দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাচ্ছে নিম্নবিত্তের। জরিপের তথ্য বলছে, ভাত থেকে শুরু করে মাছ-মাংস সবকিছু খাওয়া কমিয়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ। আর ৭৩ দশমিক ৮ শতাংশ নিম্ন আয়ের মানুষ এখন সংসার চালাচ্ছে ধারদেনা করে।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম) এ জরিপ করেছে। গতকাল বুধবার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে জরিপের তথ্য প্রকাশ করা হয়।

সানেম জানায়, গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি–এই ছয় মাসে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনযাত্রা, তাদের আয়-ব্যয়ের তুলনামূলক তথ্য জানতে এ জরিপ চালানো হয়। চলতি মাসের ৯ থেকে ১৮ তারিখের মধ্যে চালানো এ জরিপে দেশের আটটি বিভাগের ১ হাজার ৬০০ পরিবার অংশগ্রহণ করে। শহর ও গ্রামে সমানসংখ্যক পরিবার আসে জরিপের আওতায়।

জরিপের ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, এই ছয় মাসে নিম্ন আয়ের মানুষের খাদ্য বাবদই খরচ বেড়েছে ১৭ দশমিক ২ শতাংশ। কুলিয়ে উঠতে না পেরে ৯০ শতাংশ মানুষ খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়েছে। প্রতি পরিবারে আয় না বাড়লেও গড়ে খরচ বেড়েছে ১৩ দশমিক ১ শতাংশ। 

সানেম বলেছে, বিশ্ববাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, টাকার মান কমার সঙ্গে বাজার ব্যবস্থাপনায় ত্রুটির কারণে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়ায় গত ছয় মাসের তুলনায় বর্তমানে নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট বেড়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির সঙ্গে তাল মেলাতে না পেরে নিম্ন আয়ের মানুষ ভাত, মাছ, মাংস ও ডালের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য গ্রহণে কাটছাঁট করতে বাধ্য হচ্ছে।

জরিপের ফলাফলে দেখা গেছে, বাজারে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় গত বছরের সেপ্টেম্বরের তুলনায় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ৩৭ দশমিক ৮ শতাংশ গরিব ও নিম্ন আয়ের মানুষ ভাত খাওয়া কমিয়েছে। একই সময়ের ব্যবধানে ৯৬ দশমিক ৪ শতাংশ গরিব মানুষ মাংস খাওয়া বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে। মাছ খাওয়া কমিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছে ৮৮ দশমিক ২২ শতাংশ লোক। ৭৭ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ নিম্ন আয়ের মানুষ ডিম ও ৮১ দশমিক ৪৩ শতাংশ লোক ভোজ্যতেল খাওয়াও কমিয়ে দিয়েছে।

সানেম বলছে, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কারসাজি প্রতিরোধে যে শক্তিশালী ব্যবস্থা সরকারের পক্ষ থেকে নেওয়া উচিত, তার অনুপস্থিতির কারণে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম লাগামছাড়া হয়েছে।

সানেমের নির্বাহী পরিচালক ড. সেলিম রায়হান বলেন, কিছু প্রভাবশালী ব্যবসায়ী গোষ্ঠী বাজারে প্রভাব বিস্তারের ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম লাগামছাড়া হয়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির যে চাপ এক বছর ধরে বাংলাদেশ মোকাবিলা করছে, তা শুধু বৈশ্বিক কারণেই হচ্ছে না; বরং এ ক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনাও এর জন্য দায়ী।

সানেমের জরিপের তথ্য বলছে, গত এক বছরে অতিরিক্ত মূল্যস্ফীতি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামের সঙ্গে কুলিয়ে উঠতে না পেরে নিম্ন আয়ের মানুষ সঞ্চয় ভাঙছে। নিম্ন আয়ের ৫৫ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ বলেছে, গত ছয় মাসের তুলনায় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে তাদের সঞ্চয় কমেছে। আয়-ব্যয়ের সঙ্গে তাল মেলাতে ৩৯ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ নিয়মিত কাজের বাইরে অতিরিক্ত কাজ করতে বাধ্য হয়েছে। ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ মূল্যস্ফীতির কারণে বাড়তি খরচ মেটাতে আগের সঞ্চিত টাকা ভাঙতে বাধ্য হয়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে নিম্ন আয়ের মানুষের সঙ্গে মধ্যবিত্তও চাপে আছে বলে মনে করে সানেম। আয় আর ব্যয়ের সঙ্গে তাল মেলাতে না পেরে অনেক মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্তের কাতারে নেমে গেছে।

জরিপের তথ্য বলছে, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের অতিরিক্ত দামের সঙ্গে কুলাতে না পেরে নিম্ন আয়ের ৪৫ দশমিক ৪২ শতাংশ মানুষ ক্ষুদ্রঋণ নিতে বাধ্য হয়েছে। ৩৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ বন্ধু, পাড়া-প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনের কাছে ধার করছে। অনেকেই আবার কো-অপারেটিভ সোসাইটি, ব্যাংক ও মহাজনের কাছ থেকে ঋণ নিতে বাধ্য হয়েছে।

গরুর মাংস, খাসির মাংস, মুরগি, ডিম, ইলিশ মাছ, রুই ও কাতলা মাছকে গরিব ও নিম্ন আয়ের মানুষের ‘বিশেষ খাদ্য’ উল্লেখ করে সানেম বলছে, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে আগের ছয় মাসে অর্থাৎ সেপ্টেম্বর মাসের দিকে প্রতি মাসে গরিব মানুষ এক মাসে গরুর মাংস খেয়েছে একবার। এখন সেটা নেমে এসেছে শূন্য দশমিক ৩ বারে।

মুরগির মাংস ফেব্রুয়ারি মাসের দিকে প্রতি মাসে ২ বার খাওয়া হলেও সেটা সেপ্টেম্বর মাসের দিকে প্রতি মাসে ছিল ৪ বার। এই ছয় মাসে ডিম খাওয়ায় ছেদ পড়েছে। সেপ্টেম্বরের দিকে ৮ দশমিক ১ বার খাওয়া হলেও ফেব্রুয়ারি মাসে খাওয়া হচ্ছে ৫ দশমিক ৮ বার।

পর্যাপ্ত খাদ্যপ্রাপ্তি নিয়ে গরিব ও নিম্ন আয়ের মানুষ গত ছয় মাসের তুলনায় এখন উদ্বিগ্ন কি না? এই প্রশ্নে সেপ্টেম্বরের দিকে ৪১ দশমিক ২৫ শতাংশ বলেছে, তারা পর্যাপ্ত খাদ্যপ্রাপ্তি নিয়ে উদ্বিগ্ন। বর্তমানে সেটার পরিমাণ বেড়েছে ৭২ দশমিক ৯৪ শতাংশ। ছয় মাস আগে ৫৬ দশমিক ২৫ শতাংশ নিম্ন আয়ের মানুষ স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিকর খাবার খেতে পেত না। বর্তমানে এই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৮ শতাংশে।

সেলিম রায়হান বলেন, উচ্চ মূল্যস্ফীতি হচ্ছে গরিব মানুষের ওপর নিষ্ঠুরতম শুল্ক। গরিব ও নিম্ন আয়ের মানুষকে স্বস্তি দিতে সরকারের উচিত মূল্যস্ফীতির চাপ কমাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের স্থানীয় উৎসে উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি বিকল্প উৎস থেকে আমদানি করতে হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    দালালের মাধ্যমে বিদেশ যাওয়ার প্রবণতা বেশি যে দুই বিভাগে

    গরুর চামড়ার দাম নির্ধারণ: ঢাকায় প্রতি পিস ১২০০, বাইরে ১০০০ টাকা

    ১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম কমল ৪৯ টাকা

    বাস–মিনিবাসের সর্বনিম্ন ভাড়া অপরিবর্তিত, কিলোমিটারে ৩ পয়সা কমিয়ে প্রজ্ঞাপন

    খাদ্য নিরাপত্তা টেকসই করতে গবেষণায় আরও জোর দিতে হবে: কৃষিমন্ত্রী

    দেশের ৬৪ শতাংশ মানুষ বিবাহিত 

    বাংলাদেশে সাগরের পানি বৃদ্ধির হার বিশ্বের অন্যতম দ্রুততম

    সান্ত্বনা নিয়ে বিশ্বকাপ শেষ করতে পাকিস্তানের লক্ষ্য ১০৭ 

    সেন্ট মার্টিনের কাছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও কোস্ট গার্ডের টহল 

    চিনি ছিনতাইয়ের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা জাহিদুল গ্রেপ্তার, রিমান্ড চায় পুলিশ 

    ফুলবাড়ীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে কৃষকের মৃত্যু

    দক্ষিণে ২৪ ঘণ্টা, উত্তরে ৬ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা