সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

সেকশন

 

আমেরিকার নিজের বেলায় এক নীতি, অন্যের বেলায় ভিন্ন: মন্ত্রী মোজাম্মেল

আপডেট : ২৫ মার্চ ২০২৩, ১৪:৪৫

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ গণহত্যা নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আ ক ম মোজাম্মেল হক। ছবি: আজকের পত্রিকা মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলছেন, আমেরিকা নিজেদের বেলায় এক নীতি আর অন্যদের বেলায় অন্য নীতি নিয়ে চলে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে তাদের নীতি এক রকম। কিন্তু যখন ইরাক ও আফগানিস্তান হয়, তখন অন্য রকম সিদ্ধান্ত হয়ে পড়ে।

আজ শনিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ গণহত্যা নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়কাল ও ২৫ মার্চ ঘটে যাওয়া নৃশংসতাকে গণহত্যা বললে তাদের প্রত্যক্ষ মদদের বিষয় উঠে আসে, তাই স্বীকৃতি দেয় না।

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর ঘটে যাওয়া ঘটনাকে গণহত্যার স্বীকৃতি জানানো হয়েছে উল্লেখ করে বলেন, তবে বাংলাদেশে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ ও ৯ মাসের যুদ্ধকে এখনো গণহত্যার স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। স্বীকৃতি তো তাঁদের হাতে। 

মন্ত্রী মোজাম্মেল হক বলেন, ‘জাতীয়ভাবে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। স্বীকৃতি না পেলেও আমদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতির জন্য কূটনৈতিক চেষ্টা অব্যাহত আছে। বিশ্ববাসীর শুভবুদ্ধির উদয় হোক স্বীকৃতি দেওয়ার।’

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহারিয়ার আলম বলেন, পাকিস্তানের পক্ষে অনেক রাষ্ট্র সমর্থন দিয়েছিল। আর এখন সেই রাষ্ট্রগুলো পৃথিবীব্যাপী গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য জোরালোভাবে চেষ্টা করে। সেই রাষ্ট্রগুলো বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ চাইলেও বা না চাইলেও দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কথা বলে। বিশ্বে বিবদমান একাধিক রাষ্ট্র সে সময় গণহত্যার পক্ষে ছিল।’

মো. শাহারিয়ার বলেন, ‘আজ আমরা তাকিয়ে থাকব গণহত্যা দিবসে তারা কী বলছে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ বক্তা এশিয়ান জাস্টিস অ্যান্ড রাইটসের চেয়ারম্যান প্যাট্রিক বারজার্স বলেন, এই গণহত্যার স্বীকৃতি দিতে হবে। যারা এর পেছনে দায়ী, তাদের সাজা দিতে হব। আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে বিচার নিশ্চিত করতে হবে। সত্য উন্মোচন করে তুলে ধরতে হবে।

প্যাট্রিক তাঁর বক্তব্যে বলেন, অনেকেই এটাকে রাজনৈতিক ইস্যু বানিয়ে ফেলেছে। এতে গণহত্যা হওয়ার যে বিষয়গুলো থাকে তা পূরণ করা যায়নি। তাই স্বীকৃতি লাভে এত সময় পার হয়ে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহজাহান খান, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হকসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    কুড়িগ্রাম ও পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ঢাকা স্টেশন ছাড়বে না আজ

    ব্রাজিলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায় আসছেন আজ

    ঈদযাত্রায় রেলস্টেশনে যাত্রাবিরতি বেড়েছে ২ মিনিট 

    বুয়েটে জঙ্গিবাদ ঢুকেছে কি না সেটিও দেখা দরকার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    ঢাকায় ২০ বছর পুরোনো বাস থাকবে না, তালিকা চাইলেন পরিবেশমন্ত্রী

    বুয়েটে জঙ্গিবাদী গোষ্ঠীর কার্যক্রম তদন্ত করা হবে: শিক্ষামন্ত্রী

    যুক্তরাষ্ট্রের ‘সম্মতিতে’ ইসরায়েলে ইরানের হামলা, দূতিয়ালি করেছে তুরস্ক

    ক্রিস্টালের কাছে হেরে শিরোপা জয়ের স্বপ্নে ধাক্কা খেল লিভারপুল

    আড়িয়াল খাঁ নদে গোসল করতে নেমে ২ তরুণী নিখোঁজ 

    সাতক্ষীরায় ভাড়া বাড়িতে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

    প্রেমিকার অন্যত্র বিয়ে ঠিক হওয়ায় যুবকের আত্মহত্যা

    পিরোজপুরে কর্মচারীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ দোকানমালিকের বিরুদ্ধে