বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

সেকশন

 

রমজানে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের নিশ্চয়তা দিতে পারছেন না প্রতিমন্ত্রী

আপডেট : ১৫ মার্চ ২০২৩, ০৯:৪১

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। ফাইল ছবি গত কয়েক বছরের ধারাবাহিকতায় এবারের রমজানও হতে যাচ্ছে গরমকালে। সেই সঙ্গে সম্পূর্ণ সেচনির্ভর ফসল ইরি-বোরোর সময় চলছে। ফলে বিদ্যুতের চাহিদা ক্রমেই বাড়ছে। তবে রমজানে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের নিশ্চয়তা দিতে পারছেন না বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনের বিজয় হলে সৌরবিদ্যুৎ প্ল্যান্টের জন্য ব্যবহৃত জমির বহুমুখী ব্যবহার নিয়ে আয়োজিত ওয়ার্কশপ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন ‘রমজান ও গ্রীষ্ম মৌসুমে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। তবে রমজানে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের নিশ্চয়তা দিতে পারছি না। আমরা বিদ্যুতের এই সমস্যা নিরসনে বিভিন্নভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছি। তবে নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহে কোনো নিশ্চয়তা নেই।’

বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গরমকাল ও রমজান মিলিয়ে এ বছর কমপক্ষে ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের লোডশেডিং হতে পারে। এখন বর্তমানে বিদ্যুতের চাহিদা ৯ হাজার মেগাওয়াটের মতো থাকলেও রমজানে সেটি বেড়ে ১১ হাজার ছাড়িয়ে যাবে। জুলাইয়ে দেশে বিদ্যুতের চাহিদা ১৬ হাজার মেগাওয়াট পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে।

কর্মকর্তাদের হিসাবে, বাংলাদেশে বিদ্যুতের উৎপাদন সক্ষমতা ২৩ হাজার মেগাওয়াটের বেশি থাকলেও জ্বালানি সংকটের কারণে ১২ হাজার মেগাওয়াটের বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব হবে না। ডলারের সংকট থাকায় সরকার চাহিদামতো ডিজেল, কয়লা ও গ্যাস কিনতে পারছে না।

দেশে প্রতিদিন ১০০ মেগাওয়াটের মতো বিদ্যুতের চাহিদা বাড়ছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সংকট নিরসনে সরকারের পরিকল্পনা আছে—কৃষিকাজে ব্যবহৃত ১৩ হাজার মেগাওয়াট ডিজেলচালিত পাম্পকে সৌরবিদ্যুতে চালিত পাম্পে রূপান্তর করা।’ 

কৃষিকাজে সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার কীভাবে আরও বাড়ানো যায়, তা নিয়ে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়কে গবেষণা করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী এক থেকে দেড় বছরে ২ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা আছে।’ নসরুল হামিদ বলেন, ‘প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত বদলে যাচ্ছে। এখন সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনে কম জায়গা লাগছে। তাই ছাদ ব্যবহার করতে হবে। আগামী এক থেকে দেড় বছরে ২ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ থেকে আসবে।’

ঢাকার সব বড় ছাদ ব্যবহার করে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য দুই বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা ডিপিডিসি ও ডেসকোকে নির্দেশনা দেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী। আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যে এ কাজের অগ্রগতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন দাখিল করতেও নির্দেশ দেন।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘বিশ্বের সব দেশের বিমানবন্দর সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যবহার করা হয়। আমাদের দেশেও সৌর বিদ্যুৎকে কাজে লাগাতে হবে। স্টেডিয়াম, বড় শিল্পকারখানার ছাদে সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রকল্প নেওয়ার পরামর্শও দেওয়ার হয়।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    নিত্যপণ্য আমদানিতে ট্যাক্স মওকুফের আবেদন করবে মন্ত্রণালয়: প্রতিমন্ত্রী

    চাঁদ দেখা যায়নি, বৃহস্পতিবার ঈদ

    ১০০ বছরের মহাপরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রীর: অর্থ প্রতিমন্ত্রী

    দুই বছরে কয়লা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন বেড়ে ৩ গুণ, সঙ্গে বাড়ছে দূষণ: গবেষণা

    টিসিবির মাধ্যমে ভারতের পেঁয়াজ বিক্রি শুরু আগামীকাল

    প্রতি কিলোমিটারে বাস ভাড়া ৩ পয়সা কমানোর প্রস্তাব

    বায়ুবাহিত রোগ সংক্রমণের নতুন তথ্য দিল ডব্লিউএইচও

    রাজারবাগ পুলিশ লাইনসের পুকুরে কনস্টেবলের রহস্যজনক মৃত্যু

    সিলেটে প্রবাসী বৃদ্ধাকে হত্যার দায়ে ১ জনের মৃত্যুদণ্ড

    শুক্রবার মঙ্গল প্রার্থনায় শেষ হবে রাখাইনদের জলকেলি উৎসব

    চলে গেলেন আইসিসির ৯২ বছর বয়সী ম্যাচ রেফারি

    ঢাকায় চালু হলো চীনা ভিসা কেন্দ্র