Alexa
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

ইন্টারনেট নিয়ে কী হচ্ছে ইরানে

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:৪০

ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দিয়েছে ইরানের ইবরাহিম রাইসির সরকার। ছবি: টুইটার পুলিশি হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর ইরানজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাপক বিক্ষোভ। অন্তত ৮০টি শহরে নারীরা বিক্ষোভ করছেন বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতে খবর বেরিয়েছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, ইতিমধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। যদিও ইরান সরকার বলছে, মৃত্যুর সংখ্যা ১৭। শুরু থেকেই এসব বিক্ষোভ ঠেকাতে লাঠিপেটা, কাঁদানে গ্যাস, জলকামান ও বুলেট ছুড়েছে ইরানের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এমনকি ইন্টারনেট সেবা পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছে ইবরাহিম রাইসির সরকার। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, তাঁরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রবেশ করতে পারছেন না।

লন্ডনভিত্তিক ইন্টারনেট মনিটরিং গ্রুপ নেটব্লকস বলেছে, ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপে প্রবেশ করতে পারছিলেন না ইরানের মানুষ। অথচ ইরানে এ দুটি অ্যাপ পারস্পরিক যোগাযোগের অন্যতম প্রধান মাধ্যম।

হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ বলেছে, ইরানের ব্যবহারকারীরা যাতে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন, সে ব্যাপারে তারা কাজ করছে।

কয়েক বছর আগে ইরানে ফেসবুক ও টুইটার নিষিদ্ধ করেছে ইরান সরকার। কিন্তু ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপ চালু রেখেছিল। ফেসবুক-টুইটার নিষিদ্ধ করার পর থেকে ইনস্টাগ্রাম-হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবহার বাড়তে শুরু করে ইরানে। দেশটিকে এখন ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবহারকারী লাখ লাখ। সাম্প্রতিক বিক্ষোভের জেরে মেটা ইনকর্পোরেটের মালিকানাধীন এ দুটি অ্যাপও বন্ধ করে দিল ইরান সরকার। একই সঙ্গে টেলিগ্রাম, ইউটিউব এবং টিকটকও বন্ধ করে দিয়েছে।

নেটব্লকস জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে ইন্টারনেট সেবা আংশিকভাবে চালু করা হয়েছিল। পরদিন শুক্রবার আবার তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। 
ইনস্টাগ্রামের প্রধান অ্যাডাম মোসেরি এক টুইটার পোস্টে বলেছেন, ‘ইরানের নাগরিকদের অনলাইন ও অ্যাপ পরিষেবা থেকে বিচ্ছিন্ন করা হচ্ছে। আমরা আশা করি তাদের অনলাইন ব্যবহার করার অধিকার খুব শিগগিরই ফিরিয়ে দেওয়া হবে।’

ইরানের অন্তত ৮০টি শহরে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। ছবি: টুইটার মেটাতে ফার্সিভাষী পর্যালোচকদের একটি দল রয়েছে। তারা মেটার নিয়ম লঙ্ঘনকারী পোস্ট দেখলেই তা সরিয়ে দেয়। কেউ যদি কোনো পোস্টের বিরুদ্ধে ‘রিপোর্ট’ কিংবা কোনো পোস্ট যদি মেটার ‘কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড’ লঙ্ঘন করে, তবে সেই সব পোস্ট সরিয়ে দেয় মেটার ফার্সিভাষী পর্যালোচকদের দল।

অনেক বিক্ষোভকারী অভিযোগ করে বলেছেন, তাদের বিক্ষোভের পোস্ট সরিয়ে দিচ্ছে মেটা। এমনকি ভিপিএন ব্যবহার করেও হোয়াটসঅ্যাপে প্রবেশ করা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন তাঁরা।

ইরানের ওয়েবসাইটগুলো ব্যাপকভাবে নজরদারি করে থাকে ইরান সরকার। সে ক্ষেত্রে ভিপিএন ব্যবহার করে বিদেশি ওয়েবসাইটগুলোতে প্রবেশ করতেন ইরানের ব্যবহারকারীরা। কিন্তু এখন ভিপিএন ব্যবহার করেও প্রবেশ করতে পারছেন না। বোঝা যাচ্ছে ইন্টারনেট ইস্যুতে আগের চেয়ে আরও কঠোর অবস্থান নিয়েছে ইরান সরকার।

এ সপ্তাহের শুরুতে ইরানের যোগাযোগমন্ত্রী বলেছেন, নিরাপত্তাজনিত কারণে ইন্টারনেট পরিষেবা স্থগিত করা হয়েছে। তবে নেটব্লকসের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, রাস্তার বিক্ষোভ সামাল দিতে ইরান কর্তৃপক্ষ ইন্টারনেটের ওপর হস্তক্ষেপ করছে। ইরানে যেহেতু কোনো ব্যক্তিগত সম্প্রচার নেটওয়ার্ক নেই, সুতরাং ইন্টারনেটই হচ্ছে বিক্ষোভকারীদের বক্তব্য তুলে ধরা ও নিজেদের সংগঠিত করার একমাত্র জায়গা।

একজন বিক্ষোভকারী ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিকে বলেছেন, ‘ইন্টারনেট বন্ধ করার কারণে আমরা উদ্বিগ্ন। কারণ ইন্টারনেট বন্ধ করার সঙ্গে সঙ্গে সারা বিশ্ব ইরানকে ভুলে যাবে। ইতিমধ্যে ভুলতে শুরু করেছে।’

এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করেই বেশির ভাগ মানুষ সংগঠিত হয় এবং বিক্ষোভ-প্রতিবাদে অংশ নেয়। ফলে ইন্টারনেট যখন বন্ধ করে দেওয়া হয়, তখন বিপুলসংখ্যক মানুষকে সংগঠিত করা কঠিন হয়ে পড়ে।

বিবিসির ডিসইনফরমেশন ইউনিটের শায়ান সরদারিজাদেহ বলেছেন, বিক্ষোভের কারণে ইরানের ক্ষমতাসীন সরকার যখন গদি হারানোর ভয় পায়, তখনই সারা দেশের ইন্টারনেট বন্ধ করে দেয়। অতীতেও বিক্ষোভ দমন করতে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেওয়ার নজির রয়েছে ইরান সরকারের।

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইবরাহিম রাইসি বলেছেন, দেশে প্রতিবাদ করার অনুমতি আছে তবে ‘দাঙ্গা’ সহ্য করা হবে না।

উল্লেখ্য, গত ১৩ সেপ্টেম্বর সঠিকভাবে হিজাব না পরার অভিযোগে তেহরান থেকে ২২ বছর বয়সী মাহসা আমিনিকে গ্রেপ্তার করেছিল ইরানের নৈতিকতাবিষয়ক পুলিশ। পরে তাঁর মৃত্যু হলে পুলিশ দাবি করে, হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা গেছেন। তবে সাধারণ মানুষের ধারণা, পুলিশের নির্যাতনের কারণেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। এরপর হিজাব আইন সংস্কারের দাবিতে ইরানজুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

ইরানের শরিয়াহ আইনে রয়েছে, সাত বছরের বেশি বয়সী নারীদের ধর্মীয় হেড স্কার্ফ (হিজাব) পরা বাধ্যতামূলক। এই আইনের প্রতিবাদে অনেক নারী এখন নিজেদের চুল কেটে ফেলছেন এবং হিজাব পুড়িয়ে ফেলছেন।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র গত শুক্রবার বলেছে, তারা ইন্টারনেট পরিষেবা সম্প্রসারণের জন্য ইরানের ওপর রপ্তানি নিষেধাজ্ঞাগুলো শিথিল করতে যাচ্ছে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার স্পেসএক্সের মালিক ইলন মাস্ক বলেছেন, তিনি ইরানে তাঁর কোম্পানি স্টারলিংক স্যাটেলাইট পরিষেবা চালু করার জন্য নিষেধাজ্ঞা থেকে অব্যাহতি চাইবেন।

তথ্যসূত্র: বিবিসি ও এএফপি

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    অ্যাপ স্টোর থেকে টুইটার সরিয়ে ফেলার হুমকি অ্যাপলের

    বাংলাদেশের ৩৮ লাখ হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর তথ্য চুরি

    দ্রুত ক্ষত সারাবে স্মার্ট ব্যান্ডেজ 

    জিমেইল ও ওয়ার্কস্পেসে নতুন সুবিধা আনলো গুগল 

    ডলার সংকটে অনলাইনে গেম ও অ্যাপ কেনা নিষিদ্ধ করল পাকিস্তান

    চাকরি বাঁচাতে দিনে সাড়ে ১২ ঘণ্টা কাজ করেছেন টুইটার কর্মী

    স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার হাতে বড় ভাই খুন 

    ফুটবল বিশ্বকাপ

    পোল্যান্ডকে নিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে আর্জেন্টিনা

    অর্থায়ন কমায় রোহিঙ্গাদের দক্ষতা উন্নয়নে জোর

    এনডিটিভির মালিকানা চলে গেল আদানির হাতেই

    সম্মেলনের আগেই উৎসবে আ. লীগ নেতা-কর্মীরা

    ফুটবল বিশ্বকাপ

    ফ্রান্সকে হারিয়েও শেষ ষোলোয় যাওয়া হলো না তিউনিসিয়ার