Alexa
রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

চলন্ত বাসে ডাকাতি-ধর্ষণের পর রতনের নানির বাড়িতে আশ্রয় নেয় ডাকাতেরা

আপডেট : ০৮ আগস্ট ২০২২, ২১:২৯

এই বাড়িতেই আশ্রয় নিয়েছিল ডাকাতদলের কয়েকজন সদস্য। ছবি: আজকের পত্রিকা  কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের পর সেই ডাকাতদলের কয়েকজন আশ্রয় নিয়েছিল টাঙ্গাইলের মধুপুরের কুড়ালিয়া গ্রামের একটি বাড়িতে। বুধবার ফজরের আজানের আগে তাঁরা সেই বাড়িতে পৌঁছায় এবং সূর্যোদয়ের পর বিদায় নেয়। বাড়িটি ডাকাত দলের অন্যতম সদস্য রতন হোসেনের মায়ের নানির বাড়ি। 

এর আগে, গত সপ্তাহের মঙ্গলবার দিবাগত রাতে বঙ্গবন্ধু সেতু পার হওয়ার পর কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসটির নিয়ন্ত্রণে নেয় ডাকাতেরা। পরে ডাকাতেরা অস্ত্রের মুখে যাত্রীদের হাত, মুখ, চোখ বেঁধে মোবাইল, টাকা ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে। তারপরে ওই বাসে থাকা এক নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ করে। চলন্ত অবস্থায় টানা তিন ঘণ্টার বিভীষিকা পর বাসটি বিভিন্ন স্থান ঘুরে টাঙ্গাইল ময়মনসিংহ সড়কের মধুপুর উপজেলার রক্তিপাড়া নামক স্থানে বাসের গতি কমিয়ে ডাকাতরা নেমে যায়। পরে বাসটি দুর্ঘটনার শিকার হয়। 

এ সময় ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে গেলেও মাহমুদুর রহমান মুন্না ওরফে রতন কয়েকজনকে নিয়ে মধুপুরের কুড়ালিয়া ইউনিয়নের সিটি ব্রিকসের পাশের একটি বাড়িতে কিছু সময়ের জন্য আশ্রয় নেয়। ওই বাড়িটি রতনের মা বেলী বেগমের নানির বাড়ি। রতনের নানিও বাস করেন পাশের বাড়িতেই। রতনের নানির মা আনোয়ারা বলেন, ‘রতন ৪ / ৫ দিন আগে ফজরের আজানের আগে আমার বাড়িতে আইছাল। কতহন বাদে আবার চইলা গেছে। আমি থাকপারও দেইনাই খাবারও দেই নাই।’ 

রতনের গ্রামের বাড়ি। ছবি: আজকের পত্রিকা  রতনের নানি জহুরা বলেন, ‘আমরা ভোররাইতে মেলা কথাবার্তা শুনছি। ঘর থিকা বাইর অইনাই। বেলীরে আমরা বাদ দিয়া দিছি। ওর পোলা ফজরের আজানের আগে আমার মায়ের বাড়িতে আইছাল। আমার মায়ের কাছেই হুনছি। কতক্ষণ থাইকা চইলা গেছে।’ ওই বাড়ির জুয়েলের স্ত্রী জেরিন বলেন, ‘রতন রাইত তিনটার মেলা পরে আইছিল। আছিলও কিছুক্ষণ। রতন যে ঘরে আশ্রয় নিছাল সকালে সেই ঘর মুছবার যাইয়া মোবাইলের তিনটা ব্যাক কভার পাইছি। আর ঘরের সাইটে একটা ছুরি পাইছি।’ 

এদিকে, ডাকাত দলের সদস্য র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার রতনের বাড়ি টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার ধলপুর গ্রামে। সোমবার দুপুরে ধলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের পেছনে রতনের বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, রতনের মা বেলী বেগম গত ১০ / ১২ বছর আগে কুড়ালিয়া থেকে এসে জমি

কিনে বাড়ি করেছেন। বেলীর আগের সংসারের সন্তান রতন ও আয়নাল এবং তাঁর বর্তমান স্বামী শাকিল সকলেই ঢাকায় থাকেন। শুধুমাত্র রতনের মা বেলী বেগম ও তাঁর একমাত্র ৫ বছরের মেয়েকে নিয়ে দিনাতিপাত করেন। সোমবার জোহর নামাজের পর তাঁরা বাড়ি ছেড়ে চলে গেছেন বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। 

ডাকাতদের ফেলে যাওয়া ফোনের ব্যাককভার ও ছুরি। ছবি: আজকরে পত্রিকা  এলাকাবাসী জানান, রতনের মা বেলী বেগমের ভয়ে এলাকার লোকজন তটস্থ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বাসিন্দা বলেন, ‘বেলীর আগের ঘরের ছেলে

রতন ও আয়নালের নামে একাধিক ডাকাতি ছিনতাইয়ের মামলা রয়েছে। এর আগেও তাঁরা কারাভোগ করেছেন। কিছু বললেই বেলি তেড়ে আসেন। থানায় গিয়ে মামলা করার ভয় দেখান।’ ৮০ বছর বয়সী মীর আলী বলেন, ‘আমাদের বাড়ির লোকজনতো দূরের কথা নাতি-পুতিরাও ওই বাড়িতে যায় না।’ 

এ ব্যাপারে মধুপুর থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. মুরাদ হোসেন বলেন, ‘রতনের বাড়ি মধুপুরে আমিও শুনেছি। অফিসিয়ালি কোনো বার্তা পাইনি। বিষয়টির তদন্ত করছে ডিবি পুলিশ। তাঁরা যদি প্রয়োজন মনে করেন মধুপুরের বিষয়গুলোও ক্ষতিয়ে দেখবেন।’ কুড়ালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মান্নান বলেন, ‘আমি লোক মারফত জানতে পেরেছি, চলন্ত বাসে ডাকাতি ও ধর্ষনের ঘটনায় জড়িত রতনের বাড়ি মধুপুরের ধলপুর। এলাকাবাসী অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিও দাবি করেছেন।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওয়ার্ড বয়ের বিরুদ্ধে রোগীকে ধর্ষণের অভিযোগ

    সেনাবাহিনীতে যুক্ত হলো নতুন সামরিক বিমান

    ইডেন কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, সভাপতি রিভাসহ আহত ১০

    যাবজ্জীবনের প্রথম রায় দিলেন বান্দরবান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব‍্যুনাল

    আশুলিয়া থেকে ঈশ্বরদী গিয়ে ধর্ষণের শিকার ২ তরুণী, গ্রেপ্তার ৪

    রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু

    টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ, নেই তাসকিন

    স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওয়ার্ড বয়ের বিরুদ্ধে রোগীকে ধর্ষণের অভিযোগ

    ‘উপাত্ত সুরক্ষা আইন’ ঢেলে সাজানোর দাবি টিআইবির

    মরীচিকা পড়া সেতুর কাজ পুনরায় শুরু, অনিয়ম নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ 

    সেনাবাহিনীতে যুক্ত হলো নতুন সামরিক বিমান

    সরকারের সব লেনদেন ‘নগদে’ করার পরামর্শ সংসদীয় কমিটির