Alexa
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২

সেকশন

epaper
 

এক জাতের সাপ আর ব্যাঙের কারণে অর্থনৈতিক ক্ষতি ১৬.৩ বিলিয়ন ডলার: গবেষণা

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২২, ১৮:৩৯

আমেরিকান বুল ফ্রগ এবং ব্রাউন ট্রি স্নেক। ছবি: সংগৃহীত বিশ্বজুড়ে আক্রমণাত্মক কীটপতঙ্গের দ্বারা সৃষ্ট অর্থনৈতিক ক্ষতির একটা হিসাব করেছেন বিজ্ঞানীরা। তাঁরা দেখিয়েছেন, বহু প্রজাতির কীটপতঙ্গের কারণেই অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়। কিন্তু এর মধ্যে দুটি প্রজাতি যে পরিমাণ ক্ষতি সাধন করে, অন্য সব প্রজাতির দ্বারা সৃষ্ট ক্ষতি তার ধারেকাছেও নেই!

আমেরিকান বুল ফ্রগ (কোলা ব্যাঙ) ও ব্রাউন ট্রি স্নেক (বাদামি বৃক্ষচারী সাপ) যৌথভাবে ১৯৮৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ১৬ দশমিক ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতি করেছে। পরিবেশগত ক্ষতির পাশাপাশি, এ দুই প্রজাতি খামারের ফসল নষ্ট করেছে এবং ব্যয়বহুল বিদ্যুৎবিভ্রাটের কারণ হয়েছে। 

গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বাদামি বৃক্ষচারী সাপ প্রজাতিটি একাই বিশ্বব্যাপী ১০ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ ক্ষতি করেছে। এরা প্রশান্ত মহাসাগরীয় কয়েকটি দ্বীপে অনিয়ন্ত্রিতভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। 

গত শতাব্দীতে মার্কিন মেরিনদের মাধ্যমে গুয়ামে চলে যায় এই প্রজাতির সাপ। বর্তমানে গুয়ামে এই প্রজাতির সাপের সংখ্যা বিপজ্জনক রকম ঊর্ধ্বমুখী। প্রায়ই বৈদ্যুতিক তারে ঝুলে পড়ার কারণে মাঝেমধ্যেই বিদ্যুৎবিভ্রাটের ঘটনা ঘটে। এ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের মালিকানাধীন দ্বীপটির ব্যাপক অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়। 

প্রশান্ত মহাসাগরীয় ছোট্ট দ্বীপটিতে ২০ লাখেরও বেশি বাদামি বৃক্ষচারী সাপ রয়েছে। সে হিসাবে বলা যায়, গুয়ামের জঙ্গলে প্রতি একরে ২০টি করে বাদামি সাপের বাস। 

এই আক্রমণাত্মক প্রজাতিটির কারণে দ্বীপের বাস্তুতন্ত্র ঝুঁকির মুখে পড়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এরা স্থানীয় প্রাণী এবং প্রাণিজগতের অস্তিত্বের জন্য বড় হুমকি তৈরি করেছে। 

ইউরোপে ব্যাপকভাবে বাড়ছে আমেরিকান কোলা ব্যাঙ। এদের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য দরকার বৃহৎ পরিসরে ব্যয়বহুল ব্যবস্থাপনা কর্মসূচি। 

এই প্রজাতির ব্যাঙ দৈর্ঘ্যে ৩০ সেন্টিমিটার (১২ ইঞ্চি) এবং ওজনে আধা কেজি পর্যন্ত হতে পারে। উভচর এই প্রাণী প্রজাতির বিস্তার রোধে পরিচিত প্রজনন এলাকাগুলোর চারপাশে ব্যয়বহুল ব্যাঙ-প্রুফ বেড়া স্থাপন করা হচ্ছে। 

এই ব্যাঙদের পরিবেশে ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে মাত্র পাঁচটি পুকুরে বেড়া দেওয়ার জন্য জার্মানির খরচ হয়েছে ২ লাখ ৭০ হাজার ইউরো। বেশ কিছুদিন আগে প্রকাশিত ইউরোপীয় ইউনিয়নের গবেষকদের একটি প্রতিবেদনে এমন তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। 

বলা হয়, আমেরিকান কোলা ব্যাঙ প্রায় সবকিছু খায়। এমনকি নিজের প্রজাতির সদস্যদেরও খেয়ে ফেলে এরা! 

আরেকটি ক্ষতিকর প্রজাতি হলো কোকুই ব্যাঙ। এরা অর্থনৈতিক ক্ষতি করে অন্যভাবে। এরা প্রজননকালে সঙ্গমের সময় অত্যন্ত উচ্চ স্বরে ডাকাডাকি করে। যেসব এলাকায় এদের সংখ্যা অনেক বেড়ে যায়, সেখানে দেখা যায় রিয়েল এস্টেট ব্যবসায় ধস নামে। কারণ টানা উচ্চ শব্দের কারণে সেখানে কেউ ফ্ল্যাট কিনতে চান না।

গবেষকেরা আশা করছেন, এই গবেষণার ফলাফলগুলো ভবিষ্যতে কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণ এবং অন্যান্য জৈব নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আরও বেশি বিনিয়োগ করতে সংশ্লিষ্টদের উৎসাহিত করবে। বিজ্ঞান সাময়িকী নেচারে প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    জলবায়ু পরিবর্তন দুর্বিষহ করে তুলছে জনজীবন, সিপিআরডির গবেষণা

    বায়ুদূষণে বিশ্বে পঞ্চম স্থানে ঢাকা

    বাঙালির পাতে ফিরবে নারিকেলি চেলা ও তিতপুঁটি

    রিসাইকেলে বিপ্লব ঘটাতে পারে প্লাস্টিকখেকো পোকার লার্ভা

    গরুর তৃপ্তির ঢেকুর যখন পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণ

    জলবায়ুর পরিবর্তনে ছোট মৌমাছির জন্ম হতে পারে

    রাশিয়ার পকেটে ইউক্রেনের ১৫ শতাংশ, কোন দিকে যাচ্ছে যুদ্ধ

    চাকরিজীবী ছাত্রলীগ নেতা হলে থাকেন এসি লাগিয়ে

    পুতিনের সমালোচনায় বিদ্ধ পশ্চিমা মূল্যবোধ

    দলের লাগাম থাকছে গান্ধী পরিবারের হাতেই 

    রাশিয়ার কাছে ৪ অঞ্চল হারানোর দিনে ন্যাটোর সদস্য হতে ইউক্রেনের আবেদন 

    ৯ মাস ধরে নিখোঁজ ছায়েদ