Alexa
শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

শিশু কতটুকু মাংস খাবে

আপডেট : ০৩ জুলাই ২০২২, ১০:১৭

শিশু কতটুকু মাংস খাবে সবকিছু পেছনে ফেলে কোরবানির ঈদ আসছে। এই ঈদের একটা বড় অংশজুড়ে রয়েছে রান্না আর খাওয়াদাওয়া। ঈদের দিন থেকে শুরু করে পরবর্তী কয়েকটা দিন চলবে প্রতি বেলায় মাংসের তৈরি বিভিন্ন ধরনের খাবারের সমাহার। ক্যালরি মেপে হিসাব করে মাংস খাওয়া খুবই মুশকিলের ব্যাপার এ সময়; বিশেষ করে শিশুদের জন্য, যাদের অধিকাংশের কাছে মাংস মানেই আনন্দ।

কোরবানির ঈদ মানে গরু কিংবা খাসির মাংস, যা লাল মাংস হিসেবে পরিচিত। অনেকেই এই লাল মাংস শিশুদের খাওয়াতে ভয় পান। তবে লাল মাংস বিভিন্ন পুষ্টিগুণে পূর্ণ। এটি উৎকৃষ্ট প্রোটিন এবং এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন, জিংক, বিভিন্ন খনিজ উপাদান ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা বাড়ন্ত শিশুদের জন্য প্রয়োজন।

বিভিন্ন পেডিয়াট্রিকস অ্যাসোসিয়েশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ছয় মাস বয়স থেকে বাড়তি খাবারের একটা অংশ হিসেবে লাল ও সাদা উভয় ধরনের মাংস খাওয়ানো যাবে। তবে প্রতি দুই-তিন দিন পরপর একটা করে নতুন খাবার যোগ করতে হবে খাদ্যতালিকায় এবং লক্ষ করতে হবে কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না, নতুন খাবারে।

একজন সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষ ৮৫ গ্রাম বা ৩ আউন্স মাংস নিরাপদে খেতে পারেন। এতে ১৭৩ থেকে ১৭৫ গ্রাম ক্যালরি এবং ২৫ গ্রামের মতো প্রোটিন থাকে। তবে যাঁরা অসুস্থ কিংবা যাঁদের প্রোটিন খাওয়া নিষেধ, তাঁদের মাংস না খাওয়াই ভালো।

  • ১ থেকে ৪ বছর পর্যন্ত শিশুদের দৈনিক ২-৩ আউন্সের মতো মাংস খাওয়ানো যাবে।
  • ৫ থেকে ১৮ বছর চাহিদা অনুযায়ী ৪-৬ আউন্স পর্যন্ত দেওয়া যাবে।
  • ১ আউন্স মানে ২৮-৩৫ গ্রাম; আমরা যেভাবে মাংস কেটে থাকি, সেখানে একটি বড় টুকরোতে থাকে প্রায় ২০ গ্রাম মাংস।
    তবে ঈদে শিশুরা যেহেতু ইচ্ছেমতো মাংস খেয়ে থাকে, তাই অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে যেন সারা দিনের খাদ্যতালিকায় পর্যাপ্ত শাকসবজি, ফলমূল ও পানি থাকে। কোষ্ঠকাঠিন্য যেন না হয়, সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে।

এ ছাড়া যেসব শিশুর ডায়াবেটিস আছে, কোলেস্টেরলের সমস্যা আছে কিংবা অতিরিক্ত ওজন, তাদের ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। সেসব শিশু কতটুকু মাংস খাচ্ছে, সেটা নজরে রাখতে হবে। প্রয়োজন হলে আগে থেকে ধারণা দিয়ে রাখতে হবে তাদের স্বাস্থ্যের ওপর অতিরিক্ত মাংসের প্রভাব সম্পর্কে। এ ক্ষেত্রে মাংস রান্না করার আগে গরম পানি দিয়ে সেদ্ধ করে চর্বি সরিয়ে নিতে পারেন। এ ছাড়া অ্যালার্জি কিংবা হজমে সমস্যা হচ্ছে কি না, সেদিকেও বিশেষ নজর রাখতে হবে।

উচ্চ তাপমাত্রায় মাংস রান্না করা হলে ক্ষতিকর ট্রান্সফ্যাট তৈরি হয়। তাই অল্প আঁচে উচ্চ চাপে ভালো করে সেদ্ধ করে রান্না করলে মাংসের সবটুকু উপকার পাওয়া যাবে।

ঈদের এই খুশি যেন অসুস্থতার ছোঁয়ায় নষ্ট না হয়, তাই অতিরিক্ত জনসমাগম যথাসাধ্য এড়িয়ে ও ডেঙ্গু প্রতিরোধের উপায়গুলো মেনে চলতে হবে।

ডা. নূরজাহান বেগম, স্পেশালিস্ট, পেডিয়াট্রিক আইসিইউ, এভারকেয়ার হাসপাতাল, ঢাকা 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    ডায়াবেটিস রোধ করা গেলে বছরে ৪টি পদ্মাসেতু নির্মাণ সম্ভব: বিএসএমএমইউ উপাচার্য

    পাঠদান চালু রাখতেই শিশুদের টিকা দেওয়া হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

    প্রাথমিকের প্রথম টিকা পেল নন্দিনী

    ভালো থাকার জন্য নাকি ভালো থেকে সন্তানের জন্ম দেবেন

    হৃদ্‌যন্ত্রের ক্ষতির কারণ হতে পারে ন্যাপিং

    চল্লিশ পেরিয়ে নারীর স্বাস্থ্য

    বগুড়ায় ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২ 

    মুসলিম লীগের মতো বিএনপিও হারিয়ে যাবে: তথ্যমন্ত্রী 

    খরার আশঙ্কা ব্রিটেনে, পানির ব্যবহার কমাতে তোড়জোড় 

    অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ বেহেশতে আছেন: মোমেন 

    ইডেন গার্ডেনের তারকাদের হাটে থাকছেন মাশরাফিও

    সিডনিতে ২ সৌদি বোনের মৃত্যু নিয়ে রহস্য