Alexa
রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

পাচার হওয়া ১৬ লাখ কোটি টাকা ফিরিয়ে আনুন: সেলিম

আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৮:৪৩

শাহবাগে সিপিবির সমাবেশ। ছবি: আজকের পত্রিকা গত ১০ বছরে ১৬ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে জানিয়ে তা ফিরিয়ে আনার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম। 

আজ শুক্রবার শাহবাগে সিপিবির সমাবেশ ও লাল পতাকা মিছিলে দেওয়া বক্তব্যে তিনি এ দাবি জানান। 

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ‘সরকার বিদ্যুতের দাম বাড়িয়ে বলেছে, আর ভর্তুকি দিতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলব ভর্তুকি বন্ধ করতে হবে না, বিদ্যুতের দাম বাড়াতে হবে না। আপনার টাকা দরকার, টাকার সন্ধান দিচ্ছি। গত ১০ বছরে ১৬ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে। এই টাকা ফেরত আনেন। তাহলে আর ভর্তুকি প্রত্যাহার করতে হবে না, বিদ্যুতের দামও বাড়াতে হবে না।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক শক্তি আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এদের ঠেকাতে হবে।’ 

সিপিবির সদস্য এম এম আকাশ বলেন, ‘দেশে সুশাসনের অভাবে, দুর্নীতির কারণে লুটপাট চলছে। সরকার দলীয় লোকেরা, লুটপাটকারীরা কানাডায় বেগম পাড়া বানিয়েছে। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে, আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।’ 

সিপিবির সমাবেশে বক্তব্য রাখেন দলের নেতারা। ছবি: আজকের পত্রিকা  সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেন, ‘দেশে উন্নয়ের নামে দুর্নীতি, লুটপাটের মহোৎসব চলছে। ক্ষমতায় যারা আছে তাঁদের ওপর আর ভরসা করার কোনো উপায় নেই। যে স্মার্ট বাংলাদেশের কথা বলা হচ্ছে তা তো চুরির স্মার্ট বাংলাদেশ হবে। আবার ক্ষমতার বাইরে যারা আছে, তারা বলছে টেক ব্যাক বাংলাদেশ। যখন ক্ষমতায় ছিল তখন হাওয়া ভবন খুলে তারা কি করেছিল সেটা জনগণ ভুলে যায়নি। তাই বিকল্প বাম গণতান্ত্রিক শক্তি গড়ে তুলতে হবে।’ 

সমাবেশ থেকে সিপিবি বেশ কিছু লিখিত দাবিও জানিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে অবিলম্বে এই ভোটারবিহীন সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দেওয়া, নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কারসহ নির্দলীয় তদারকি সরকারের অধীনে নির্বাচন এবং গ্যাস বিদ্যুৎসহ নিত্যপণ্যের দাম কমানো, রেশনিং-ন্যায্যমূল্যের দোকান চালু, পাচারের টাকা ফেরত আনা, খেলাপি ঋণ উদ্ধার ও এর সঙ্গে জড়িতদের শ্বেতপত্র প্রকাশ, দেশের রাজনীতি-অর্থনীতিতে সাম্রাজ্যবাদী বিদেশি হস্তক্ষেপ বন্ধ, দুঃশাসনের অবসান, ব্যবস্থা বদল ও বিকল্প গড়ার সংগ্রাম জোরদার করা। 

এছাড়া ৪ দফা আন্দোলন কর্মসূচিও ঘোষণা করা হয় দলের পক্ষ থেকে। এর মধ্যে রয়েছে বিদ্যুৎ, গ্যাস, নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ, জাতীয় সম্পদ রক্ষা, পাচারের টাকা উদ্ধার, রেশনিং ও ন্যায্যমূল্যের দোকান খোলার দাবিতে ২৮-২৯ জানুয়ারি দেশের সকল জেলা-উপজেলায় সমাবেশ ও বিক্ষোভ। ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে ভোট ও ভাতের দাবিতে বিভাগীয় সদর, জেলায়-উপজেলায় সমাবেশ ও পদযাত্রা। ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশব্যাপী গণজাগরণ অভিযাত্রা, ঝটিকা সফর। ৬ মার্চ সিপিবির ৭৫ তম বার্ষিকীতে মাসব্যাপী কর্মসূচি। 

সিপিবির সহসাধারণ সম্পাদক মিহির ঘোষের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন সিপিবির সভাপতি মো. শাহ আলমসহ অন্যরা। সমাবেশ শেষে লাল পতাকা মিছিল শাহবাগ প্রজন্ম চত্বর থেকে শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    দেশের ৯৯ শতাংশ মানুষ আওয়ামী লীগের বিদায় চায়, দাবি ফখরুলের

    বিএনপি-জামায়াত অশুভ শক্তি, নির্বাচন চায় না: হানিফ

    বিএনপির এটা পদযাত্রা নয়, মরণযাত্রা: ওবায়দুল কাদের

    খালেদা জিয়ার মুচলেকার দাবি ভিত্তিহীন: মির্জা ফখরুল 

    আওয়ামী লীগের হাতে কিছুই নিরাপদ নয়: নুর

    ৪ ফেব্রুয়ারি বিভাগীয় শহরে সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

    আন্তর্জাতিক অ্যাফিলিয়েশনে গ্রিন ইউনিভার্সিটি

    কঠিন চ্যালেঞ্জে খোমেনিদের কর্তৃত্ব, ঘনীভূত পরমাণু সংকট

    তিন জুটির কাছে আসার গল্প

    ওই দেখা যায় ঝিনুক স্টেশন

    স্মার্ট পোশাকের ঝলক

    আজ রাজশাহীতে ২৫ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী