বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

সেকশন

 

প্রমোদতরী ‘গঙ্গা বিলাস’ বিপন্ন শুশুকের জন্য হুমকি বলছেন গবেষকেরা

আপডেট : ১৫ জানুয়ারি ২০২৩, ২২:৫৯

 বিলাসবহুল প্রমোদতরী এমভি গঙ্গা বিলাস। ছবি: ফেসবুক থেকে নেওয়া  নৌ-পর্যটনকে উৎসাহিত করতে গত শুক্রবার বিশ্বের দীর্ঘতম নদী-ভিত্তিক নৌবিহারের উদ্বোধন করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বিলাসবহুল প্রমোদতরী নাম এমভি গঙ্গা বিলাস। ভারত-বাংলাদেশের ২৭টি নদী দিয়ে যাবে এই প্রমোদতরীটি। দ্য গার্ডিয়ানের খবরে এমন তথ্য জানানো হয়েছে। 

দ্য গার্ডিয়ানে বলা হয়েছে, ভারতের উত্তর প্রদেশের বারাণসী থেকে গঙ্গা নদীতে যাত্রা শুরু করে–বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত নৌপথ পাড়ি দিয়ে–আবার ভারতের আসামে ডিব্রুগড়ে গিয়ে শেষ হবে এই নৌবিহার। এই যাত্রাপথের মোট দৈর্ঘ্য তিন হাজার ২০০ কিলোমিটার। সময় লাগবে মোট ৫১ দিন। 

নরেন্দ্র মোদি এমভি গঙ্গা বিলাসকে ভারতের পর্যটন খাতের মাইলফলক বললেও পরিবেশবিদ ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণবিদেরা এনিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, নদী-ভিত্তিক এই পর্যটনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিপন্ন গাঙ্গেয় ডলফিনের প্রাকৃতিক আবাস।

এই পর্যটনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিপন্ন গাঙ্গেয় ডলফিন। ছবি: ফেসবুক থেকে নেওয়া গাঙ্গেয় ডলফিন এদেশে স্থানীয়ভাবে ‘শুশুক’ নামে পরিচিত। দেশের প্রধান নদীগুলোতে এখন তাদের দেখা যায় কালেভদ্রে। চট্টগ্রামের হালদা নদী এবং পদ্মা-যমুনা-ব্রহ্মপুত্র ও এর শাখা নদীগুলোতে বিশ্বের মহাবিপন্ন প্রাণী মিঠাপানির গাঙ্গেয় ডলফিন (শুশুক) ও ইরাবতি ডলফিনের আবাসস্থল। 

সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন কারণে বাংলাদেশে গাঙ্গেয় ডলফিন বিলুপ্তির পথে। সে তুলনায় ভারতে এদের সংরক্ষণের উদ্যোগ বেশ জোরালো। রয়েছে ডলফিনের জন্য সংরক্ষিত অঞ্চল। বারাণসী থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে গঙ্গা ও গোমতি নদীর সঙ্গমস্থল। এখানে গভীর পানি ও শান্ত স্রোত বিপন্ন ডলফিন প্রজাতিটির জন্য নিরাপদ আবাস তৈরি করেছে। গত অক্টোবরে ভারতের বন্যপ্রাণী কর্মকর্তারা এখানে বাচ্চসহ ডলফিনের একটি বড় ঝাঁক প্রত্যক্ষ করেন। তাদের ধারণা, দুই নদীর সঙ্গমস্থলে ৩৫-৫৯টি গাঙ্গেয় ডলফিন রয়েছে। অথচ যাত্রাপথে এদিক দিয়েই যাবে এমভি গঙ্গাবিলাস। 

নৌবিহারের যাত্রাপথে মিঠাপানির স্তন্যপ্রায়ী এ প্রজাতিটির এধরনের একাধিক সংরক্ষিত প্রাকৃতিক আবাস রয়েছে। এমন আরেকটি বিচরণক্ষেত্র হলো বিহারের ‘বিক্রমশীলা গাঙ্গেয় ডলফিন অভয়ারণ্য’। 

দক্ষিণ এশিয়ায় মিঠা পানির ডলফিনের মাত্র দুটি প্রজাতি রয়েছে। এরই একটি হলো গাঙ্গেয় ডলফিন, প্রজাতির বৈজ্ঞানিক নাম প্লাটানিস্টা গ্যাঞ্জেটিকা (Platanista gangetica)। আরেকটি প্রজাতি হলো সিন্ধু নদীর-প্লাটানিস্টা মাইনর (Platanista minor), এদের প্রাকৃতিক নিবাস পাকিস্তান এবং উত্তর ভারতের বিয়াস নদী। এরমধ্যে পানিদূষণ, অতিরিক্ত পানি উত্তোলন ও চোরাশিকারের মতো নানান হুমকির মুখে রয়েছে গাঙ্গেয় ডলফিন। জেলেদের জালে জড়িয়েও অনেক সময় তাদের মৃত্যু হচ্ছে। অনেকক্ষেত্রে তাদের স্থানীয়রা অহেতুক হত্যা করে। 

একারণে পরিবেশবাদীরা মনে করেন, সংরক্ষিত প্রাকৃতিক আবাসগুলোকে রক্ষা করা এই প্রজাতিকে বিলুপ্তির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য অপরিহার্য। 

বিলাসবহুল প্রমোদতরী এমভি গঙ্গা বিলাস। ছবি: ফেসবুক থেকে নেওয়া পরিবেশবিদ রবীন্দ্র কুমার সিনহা জানান, তার প্রচেষ্টায় নব্বইয়ের দশকে ভারত সরকার এ প্রজাতির ডলফিনকে সংরক্ষিত বলে ঘোষণা করে। সম্প্রতি নদীতে গাঙ্গেয় ডলফিনের সংখ্যাও বাড়ছিল। গঙ্গায় ৩ হাজারের বেশি এবং ব্রহ্মপুত্রে অন্তত ৫০০ ডলফিন থাকার কথা। 

রবীন্দ্র কুমার বলছেন, বর্তমানে একাধিক হুমকির মুখে রয়েছে এ ডলফিন। তার ওপর নৌবিহারের এ আয়োজন হবে আরো বিপজ্জনক। 

রবীন্দ্র কুমার আরও জানান, সংরক্ষণ প্রচেষ্টার কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোয় ভারতে সংখ্যায় বেড়েছিল গাঙ্গেয় ডলফিনেরা। পাশাপাশি পানি দূষণ কমানোর প্রচেষ্টাও এর পেছনে অবদান রাখে। বর্তমানে গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্রে তাদের জনসংখ্যা প্রায় তিন হাজার ২০০ এবং ৫০০টি। কিন্তু, নৌবিহার পর্যটন এই অর্জনকে নস্যাৎ করে দেবে বলে মনে করছেন তিনি। 

জানা যায়, পানিতে শব্দকম্পন ব্যবহার করে একে-অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ, মাছ শিকার ইত্যাদি করে ডলফিন। ফলে তাদের জীবনপ্রক্রিয়া খুবই শব্দ-সংবেদনশীল।

এ বিষয়ে রবীন্দ্র কুমার বলেছেন, ‘প্রমোদতরী চলাচলের ফলে উৎপন্ন শব্দে প্রচণ্ড নেতিবাচক প্রভাব পড়বে তাদের ওপর। কারণ, তারা খুবই শব্দ-সংবেদনশীল প্রাণী।’ 

 ‘অন্তরা ক্রুজ’ নামক প্রতিষ্ঠান এমভি গঙ্গাবিলাস প্রমোদতরীর পরিচালনা করবেন। প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং ডিরেক্টর কাশিফ সিদ্দিকী জানান, এমভি গঙ্গাবিলাস এতটা জনপ্রিয়তা লাভ করেছে যে, আগামী দুই বছরের জন্য সব টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে। 

এই পর্যটনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিপন্ন গাঙ্গেয় ডলফিন। ছবি: ফেসবুক থেকে নেওয়া  কাশিফ সিদ্দিকী দাবি করে বলেন, ‘আমরা সরকারি বিধিমালা মেনে সব ধরনের পরিবেশত সতর্কতা পালন করছি।’ 

গঙ্গার ন্যাশনাল ওয়াটারওয়ে-১ এবং ব্রহ্মপুত্রে ন্যাশনাল ওয়াটারওয়ে-২ নদীপথে প্রায় ১০০টি প্রমোদতরী সেবা পরিচালিত হচ্ছে। এই সংখ্যা ১০ গুণ বৃদ্ধির লক্ষ্য নিয়েছে ভারত সরকার। 

পরিবেশবিদেরা বলছেন, এই হারে নৌপর্যটন বাড়লে, নদীর প্রাকৃতিক বাস্তসংস্থানের ওপর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বাংলাদেশে সাগরের পানি বৃদ্ধির হার বিশ্বের অন্যতম দ্রুততম

    মিয়ানমারে ভূমিকম্পে কাঁপল বাংলাদেশ

    ঢাকার পোশাক কারখানা এলাকার পানিতে বিপজ্জনক মাত্রায় ক্ষতিকর রাসায়নিক: গবেষণা

    দিল্লিতে রেকর্ড ৫২.৯ তাপমাত্রা নিয়ে সন্দেহ, তদন্তে নেমেছে আবহাওয়া দপ্তর

    কয়েক ঘণ্টার মধ্যে কিছুটা শক্তি হারাবে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, ঢাকায় ঝড়-বৃষ্টি শুরু

    রাত ৯টার পর রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, ৩ নম্বর সতর্কসংকেত

    মার্কোসের মন্ত্রিসভা থেকে দুতার্তে কন্যার পদত্যাগ, রাজনৈতিক সংকটের শঙ্কা

    ঈদের ছুটি শেষেও ঢাকা ছাড়ছে মানুষ

    চিলমারীতে ঝড়ে প্রায় শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

    পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া একেবারে বন্ধ হয়ে আছে: সন্তু লারমা

    ভারতে দ্বিপক্ষীয় সফরে গিয়ে যা যা করবেন প্রধানমন্ত্রী

    ঢল ও বৃষ্টিতে বাড়ছে শেরপুরের নদ-নদীর পানি