Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

কাঞ্চনময় দেশ শ্রীলঙ্কা

আপডেট : ২৭ মে ২০২২, ১২:৫৩

নুয়ারা এলিয়ার কাছেই সেই রামের স্মৃতি-বিজড়িত অশোকবন। ছবি: লেখক ‘ওই সিন্ধুর টিপ সিংহল দ্বীপ কাঞ্চনময় দেশ! 
ওই চন্দন যার অঙ্গের বাস তাম্বুল বন কেশ!’ 

—সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত 

আজ যতই সংকটে জর্জরিত থাকুক না কেন শ্রীলঙ্কা আমার দেখা এক মনোরম অভিজ্ঞতা হয়েই থাকবে—সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের কবিতার পঙ্‌ক্তিগুলির মতোই। 

অনেকেই হয়তো জানেন! তবু শুরুতেই জানাই, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ভারত এবং বাংলাদেশ অচ্ছেদ্য বন্ধনে জড়িত। সেই বন্ধন দুটির নাম রবীন্দ্রনাথ ও জাতীয় সংগীত। ভারত ও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতে রবিঠাকুরের কথা আলাদা করে বলার কিছু নেই—সে আমরা সকলেই জানি। শ্রীলঙ্কার জাতীয় সংগীতেও তাঁর অবদান রয়ে গেছে। একটি প্রবন্ধে শ্রী সুজন দাশগুপ্ত তার দিকে আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। লিখেছেন—

‘শ্রীলঙ্কা থেকে আনন্দ সামারাকুন নামে একটি ছাত্র বিশ্বভারতীতে এসেছিলেন পড়াশোনা করতে এবং অল্পদিনের মধ্যেই রবীন্দ্রনাথের প্রিয়পাত্র হয়ে ওঠেন। আনন্দের অনুরোধে রবীন্দ্রনাথ নাকি বাংলায় “নমো নমো শ্রীলঙ্কা মাতা” গানটি লিখে সুর করে আনন্দকে দেন। আনন্দ দেশে ফিরে গিয়ে এটিকে সিংহলিতে অনুবাদ করে রেকর্ড করেন। পরে ১৯৫১ সালে গানটি শ্রীলঙ্কার জাতীয় সংগীত হিসেবে গৃহীত হয়।’ (অবসর ডট নেট) 

পিনাওয়ালার অনাথ হাতিরা, যাদের খাবার জোগাত আগে শ্রীলঙ্কা সরকার। ছবি: লেখক

এ ছাড়া সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত ‘আমাদের ছেলে বিজয় সিংহ/হেলায় লঙ্কা করিয়া জয়/সিংহল নামে রেখে গেছে/নিজ শৌর্যের পরিচয়’ বা দ্বিজেন্দ্রলাল রায় ‘একদা যাহার বিজয় সেনানী হেলায় লঙ্কা করিল জয়/একদা যাহার অর্ণবপোত ভ্রমিল ভারত সাগরময়।’ এমন কবিতা লিখে বাঙালির গৌরবগাথায় শ্রীলঙ্কাকে জুড়ে রেখেছেন। গৌতম বুদ্ধের আশীর্বাদধন্য শ্রীলঙ্কা ভ্রমণে তাই আমাদের বেশ আগ্রহ ছিল। 

যাঁরা ভারত থেকে অন্য দেশ ভ্রমণে যান, তাঁরা জানেন, সেই দেশের এয়ারপোর্টে অবতরণ করার আগে নতুন দেশের সঙ্গে ঘড়ির কাঁটা মিলিয়ে নিতে হয়। একটিমাত্র দেশের সঙ্গেই তা করতে হয় না। সেই দেশটির নাম শ্রীলঙ্কা, যার সঙ্গে ভারতের সময় কাঁটায় কাঁটায় মিলে যায়। 

কলম্বোয় নেমে তাই আমাদের মনে হলো, একেবারেই পরিচিত কোনো জায়গায় এসেছি। তবে এই জায়গার রাস্তাঘাটের অবস্থা আমাদের তুলনায় বেশ ভালো। এমনকি সেখানে যানবাহনের সুশৃঙ্খল অবস্থা তাক লাগিয়ে দেওয়ার মতোই ছিল। তার কারণ জানা গেল আমাদের পথপ্রদর্শক শ্রী প্রসাদের কাছ থেকে। শ্রীলঙ্কার পুলিশ নাকি এই ব্যাপারে রীতিমতো কড়া—নিয়ম ভাঙলেই হাজতে যেতে হয়। ফলে তার সুফল পরিদৃশ্যমান। 

কলম্বো থেকে বেরিয়ে প্রথম দ্রষ্টব্য ছিল ডামবুলার বিখ্যাত মন্দির। গুহার মধ্যে এই মন্দিরের গায়ে আছে বেশ কিছু চিত্র। 

শ্রীলঙ্কার অর্থনীতিতে পর্যটন শিল্পের খুবই বড় অবদান। তাই তার জন্য সরকার বিশেষ মনোযোগী। বিভিন্ন কলেজে এ বিষয়ে পড়ানো হয়। সেটি সফলভাবে সম্পূর্ণ করলেই মেলে গাইড হওয়ার সুযোগ। আমাদের গাইড প্রসাদও তেমনি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এবং অভিজ্ঞ। শ্রীলঙ্কার ইতিহাস তাঁর ভালোমতোই জানা। তাঁকে তাই আমরা নির্দ্বিধায় বিজয় সিংহের জয়গাথার কথা জিজ্ঞেস করলাম। প্রসাদ অবশ্য বিজয় সিংহের ব্যাপারে একটু ভিন্নমত পোষণ করেন। তাঁর ধারণা, বিজয় সিংহ তাঁর দেশ থেকে বিতাড়িত হয়েই শ্রীলঙ্কায় পাড়ি দিয়েছিলেন। এ কথার সত্যতা নির্ধারণও করেছি। তার ফলে প্রসাদ এবং তাঁদের পঠন ও প্রশিক্ষণের ওপর শ্রদ্ধাও বেড়ে গেছে। 

পুরোনো রাজধানী সিগরিয়ার প্রবেশদ্বার। ছবি: লেখক আমরা যাত্রা শুরু করেই দেখতে পেয়েছি পিনাওয়ালার অনাথ হাতিদের। হ্যাঁ, ঠিকই। যেসব হাতি মায়েরা শিশু হাতিদের ভরণপোষণ করতে পারে না, তাদের জন্যই শ্রীলঙ্কা সরকারের এই রাজকীয় ব্যবস্থা। অভাবনীয়, তাই না! আজ যেখানে মানুষেরাই খাদ্যসংকটে আছে, কয়েক বছর আগে তারা পরম মমতায় ‘হাতির খোরাক’ জোটাত! আমাদের পরের দর্শনীয় স্থান ছিল সিগরিয়া। 

সিগরিয়ার একটি ঐতিহাসিক তাৎপর্য আছে। রাজা প্রথম কশ্যপ (৪৭৩-৪৯৫ খ্রিষ্টাব্দ) সিংহাসনে আরোহণের পর সিলনের নতুন রাজধানী নির্বাচন করেন সিগরিয়াকে। ৪৯৫ খ্রিষ্টাব্দে কশ্যপের পতন ঘটলে সিলনের রাজধানী অনুরাধাপুরে স্থানান্তর করা হয়। এর পর তেরো থেকে চৌদ্দ শতক পর্যন্ত এটি বৌদ্ধ মঠ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর পর উনিশ শতকের প্রথমার্ধের শেষের দিকে এসে এটি দৃষ্টি কাড়তে শুরু করে প্রত্নতত্ত্ববিদদের। প্রাচীন নগর-পরিকল্পনার অন্যতম শ্রেষ্ঠ এ নিদর্শনকে ১৯৮২ সালে বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ঘোষণা করে ইউনেসকো। সিগরিয়াতে একটি খুব সুন্দর মিউজিয়ামও আছে। সেটি জাপান সরকারের উপহার। ২০০৯ সালে এই মিউজিয়ামের উদ্বোধন করা হয়। 

শ্রীলঙ্কার শৈল শহর ক্যানডি ভ্রমণকারীদের বেশ পছন্দের জায়গা। কারণ সম্ভবত আবহাওয়া। ক্যানডিতে স্বয়ং রবীন্দ্রনাথও ছিলেন তাঁর দল নিয়ে, ১৯৩৪ সালে। সেখানে আমাদেরও সৌভাগ্য হয়েছিল একটি নৃত্যানুষ্ঠান দেখার। তবে শ্রীলঙ্কার বড় পরিচিতি রাবণের দেশ বলে। আমাদের পরের যাত্রা ছিল অশোক বনের উদ্দেশে। এখন অবশ্য তার নাম নুয়ারা এলিয়া। 

ক্যানডির মতো নুয়ারা এলিয়ার আবহাওয়াও রীতমতো মনোরম। তাই এই শহরের অন্য নাম ছোট্ট ইংল্যান্ড। সেখানে চিরবসন্ত বিরাজমান। শহরজুড়ে সুন্দর সব ভিউ পয়েন্ট। আরও আছে সুদর্শন চা বাগান। আমাদের মন একেবারে কেড়ে নিয়েছিল এই শহর ও তার আশপাশের চমৎকার নৈসর্গিক দৃশ্যাবলি। জায়গাটি এতই উপভোগ্য যে মনে হয় বেশ তিন-চার দিন থেকে বিশ্রাম নেওয়া যায়। 

ডামবুলার গোল্ডেন টেম্পলে বিখ্যাত বুদ্ধ মূর্তি। ছবি: লেখক সেখানকার প্রকৃতি এবং রাস্তাঘাট খুবই মনোগ্রাহী। সদলবলে ঘুরতে ঘুরতে প্রকৃতির নিবিড় স্পর্শ পাওয়া যায়। আর দেখতে পাওয়া যায় রামচন্দ্র ও সীতার স্মৃতি বিজড়িত অশোকবন। চা বাগান ও চা কারখানার অভিজ্ঞতাও বেশ উপভোগ্য। 

আমাদের শ্রীলঙ্কা ভ্রমণ সমাপ্ত হয়েছিল বেনটোটার সমুদ্রতীরে এসে। বেনটোটা হলো একটি অতি বিখ্যাত সমুদ্রশহর। শ্রীলঙ্কা ভ্রমণের সমাপ্তিতে সাধারণত সকলেই একটু হাত-পা ছড়িয়ে একটি বা দুটি দিন এই বিখ্যাত সমুদ্রতীরে এসে কাটাতে চায়। এখানে এসে আমাদের সৌভাগ্য হয়েছিল প্রায় জলের ওপরে, অনেকটা হাউসবোটের মতো একটি হোটেলে থাকার। স্থল থেকে সেই হোটেলে যেতে হয় স্টিমারে চড়ে। 

আজ শ্রীলঙ্কার চরম দুর্দিনেও আমার কাছে বড় প্রিয় ওই ক’টি দিনের স্মৃতি। ছবি দেখতে দেখতে বারংবার মন ফিরে যাচ্ছিল সেই ফেলে আসা দিনগুলোতে। ২০১৫ সালে আমরা যখন গিয়েছিলাম তার আগেও দুটি বড় দুর্যোগ কাটিয়ে উঠেছিল দেশটি—২০০৫ সালের সেই ভয়ংকর সুনামি এবং ২০১০ অবধি চলা গৃহযুদ্ধ। শাক্যমুনির আশীর্বাদধন্য দেশটি আশা করছি আবারও সে অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারবে। 

ঐতিহাসিক দীনেশচন্দ্র সেন সিংহলিরা আর বাঙালিরা যে ‘তুতো’ ভাই তা বেশ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করে ছেড়েছেন। প্রায় হাজার দু-এক বাংলা আর সিংহলি শব্দের মিল খুঁজে বার করেছেন সেন মহাশয়। সেই গরিমা আবার ফিরে আসুক শ্রীলঙ্কায়। 

আমাদের প্রতিবেশী ‘সিন্ধুর টিপ’ আবার কাঞ্চনময় দেশ হয়ে উঠবে—তারই প্রতীক্ষা রইল।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ঈদে হোক কম তেলে রান্না

    ঈদের দিনে হাতের যত্নআত্তি

    ‘দেশীয় পোশাককেই সঙ্গী করেছি’ 

    আম জনতার আমের বিচার

    কেমন হবে ঈদের খাবার

    সুপারি পাতার প্লেটে আঁকি

    পদ্মায় জেলের জালে সাড়ে ৩১ কেজির বাগাড়, ৩৯ হাজার ৩৭৫ টাকায় বিক্রি 

    নিরাপত্তা বিবেচনায় ‘লকডাউন মোড’ আনছে অ্যাপল

    পাটুরিয়ায় লোকাল পরিবহনে আসা যাত্রীর চাপ বাড়ছে

    গরু মোটাতাজায় অনিয়ম যাচাইয়ে র‍্যাবের অভিযান

    ক্যাটল ট্রেনে প্রায় এক হাজার গরু-ছাগল আসল ঢাকায়

    ইংল্যান্ডের নতুন ধারার ক্রিকেটকে চ্যালেঞ্জ জানালেন স্টিভ স্মিথ