মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪

সেকশন

 

রোদ-বৃষ্টিতেও ফ্যাশন চলুক পুরোদমে

আপডেট : ২০ মে ২০২৪, ০৭:১০

ছবি সৌজন্য: আর্টেমিস রোদ-বৃষ্টির এমন সময়ে তড়িঘড়ি করে সকালে বের হতে গিয়ে বাধে বিপত্তি। কোন পোশাকটি পরলে আরাম পাওয়া যাবে, সেটাই প্রথম ভাবনা। আবার আকাশে মেঘ দেখলে, হুটহাট বৃষ্টি এলেও যেন সামাল দেওয়া যায়, সে কথাও মনে রাখতে হয়। কিন্তু শুধু আরামের কথা ভাবলে ঠাটবাট তো আর বজায় রাখা যায় না। কাপড় যেন আরামদায়ক হয় আর পোশাকটাও যেন হয় জুতসই, রোদ-বৃষ্টি থেকে দেবে স্বস্তি আবার ফ্যাশনেও যোগ করবে নতুনত্ব। কেমন হবে সেসব পোশাক?

কাপড় যেমন হবে সুতি
এখন যে আবহাওয়া, তাতে পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে তালিকার প্রথমেই রাখা যেতে পারে সুতি কাপড়ের পোশাক। সুতি প্রাকৃতিক তন্তু বলে এ ধরনের পোশাকের ভেতর সহজে বাতাস চলাচল করতে পারে। ফলে ঘেমে গেলে বা বৃষ্টিতে ভিজে গেলে সহজেই শুকিয়ে যায়। এ সময়ের উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়ায় এটি খুব আরামদায়ক। 

লিনেন
কাপড় হিসেবে লিনেন টেকসই, সহজে আর্দ্রতা শুষে নেয় এবং তাপ কুপরিবাহী। ফলে এই কাপড়ও গ্রীষ্মে পরার উপযোগী। এতে অল্প পানি পড়লে দ্রুত শুষে নেবে, এই বৈশিষ্ট্য ভালো মানের লিনেন কাপড় চেনার সহজ উপায়। সহজে আর্দ্রতা শোষণের এই ক্ষমতার কারণে সারা দিন বাইরে পরার পোশাক হিসেবে লিনেন ফ্যাব্রিকস বেছে নিলে ঘামে অস্বস্তি হয় না।

শিফন
গরম ও বৃষ্টির সময় শিফনের কাপড় খুব আরামদায়ক। এগুলো ইস্তিরি করার ঝামেলাও থাকে না। পাশাপাশি ঘাম ও বৃষ্টিতে ভিজলে সহজে শুকিয়ে যায়। এ সময়ে কয়েক সেট শিফনের পোশাক বানিয়ে রাখতে পারেন।

যেমন হবে পোশাক নির্বাচন
গরম ও বৃষ্টির কথা বিবেচনায় রেখে এমন পোশাক নির্বাচন করতে হবে, যা এনে দেবে স্বস্তি। সঙ্গে স্টাইলে আনবে নতুনত্ব। গ্রীষ্মে বেছে নিতে পারেন কুর্তি, ফতুয়া, মিডি ড্রেস, স্কার্ট, কো-অর্ডস, টি-শার্ট, টিউনিক অথবা কাফতান। থ্রিপিসের ক্ষেত্রে নরম সুতি অথবা বাটিক বা টাই-ডাই পছন্দের তালিকায় রাখা যেতে পারে। কাদা মাটি থেকে বাঁচতে জিনস অথবা প্যান্টের ক্ষেত্রে ঢিলেঢালা প্যান্টকে প্রাধান্য দেওয়া উচিত।

একে তো প্রচণ্ড গরম, তার ওপর যেকোনো সময়ে বৃষ্টি নামতে পারে। তাই এ সময়ে পরার জন্য স্ল্যাব কটন, লিনেন, পাতলা ধরনের সিল্কের তৈরি ফতুয়া, সিঙ্গেল কামিজ, কুর্তি আদর্শ। এমন কাপড়ে তৈরি পোশাক দেখতে ভালো লাগে, অভিজাত লুক আনে আবার দামও থাকে নাগালের মধ্য়ে। হ্যান্ডব্লক প্রিন্ট করা হলে এসব কাপড় অফিস থেকে শুরু করে পার্টিতেও পরে যাওয়া যায়। এ ছাড়া এগুলো সহজে পরিষ্কার করা সম্ভব।
ফায়জা আহমেদ রাফা, স্বত্বাধিকারী, আর্টেমিস

পোশাকের রং নির্বাচনে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। গাঢ় রঙের কাপড় রোদের তাপ দ্রুত শোষণ করে বলে গরমও বেশি অনুভূত হয়। রোদ থেকে বাঁচতে হালকা রঙের পোশাক নির্বাচন করুন। এ সময় হঠাৎ বৃষ্টিতে বিপত্তিতে পড়তে হতে পারে। সাদা বা অফ হোয়াইটের মতো হালকা রঙের পোশাকে বৃষ্টির পানি পড়লে ছোপ ছোপ দাগ পড়ে যায়। আবার ফাঙ্গাস বা ছিট পড়ারও আশঙ্কা থাকে। তাই এ সময় হালকা সবুজ, নীল, বেগুনি, ধূসর, হালকা হলুদ এসব রংকে পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন।

ছবি সৌজন্য: আর্টেমিস যেসব বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে
অনেকে গরমেও সিল্কের কাপড় পরেন। এ ধরনের কাপড় স্টাইলে বেশ আভিজাত্য আনলেও গরমে সিল্ক না পরাই ভালো। কারণ, সিল্কের কাপড়ে ঘামের দাগ দ্রুত বসে যায় এবং এতে দুর্গন্ধ হয়। ঘাম শুষে নিতে পারে না বলে গরম আবহাওয়ায় সিল্কের কাপড়ে তৈরি পোশাক পরাটাও অস্বস্তিকর। 

ডেনিম পরতে চাইলে ওজনে হালকা ও পাতলাগুলো বেছে নেওয়াই ভালো।

যেহেতু গরমে অনেকের পা ঘেমে যায়, আবার বৃষ্টি হলে কাদা মাড়িয়ে চলতে হয়, তাই জুতার ক্ষেত্রে চামড়ার বিকল্প খুঁজে নেওয়াটাই ভালো। পা খোলা থাকে এমন ফ্ল্যাট জুতা পরতে পারেন। এ সময় যেকোনো হিল এড়িয়ে চলা ভালো।

অনেকে আঁটসাঁট জামাকাপড় পরতে পছন্দ করলেও গরমের জন্য ঢিলেঢালা পোশাক ভালো। আঁটসাঁট পোশাক পরলে ঘামে শরীরে কাপড় লেগে থাকে। ফলে গরম লাগে বেশি এবং অনেক সময় ত্বকে রক্তসঞ্চালন ঠিকভাবে হয় না। ফলে ত্বকে সমস্যা দেখা দিতে পারে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ঈদুল আজহা কোন দেশে কেমন

    স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে কোরবানির মাংস কীভাবে কতটুকু খাবেন

    এই ঈদে ঘরেই তৈরি হবে হান্ডি কাবাব

    অতিথি এলে চটজলদি তৈরি করে নিন বটি কাবাব

    ঝাল মিষ্টি পেশোয়ারি মাটন

    খাসির ঝাল বিরিয়ানি

    ছাগলের চামড়ার ‘নামমাত্র’ মূল্য, পড়ে আছে বাগানে

    রায়বেরেলি রেখে ওয়েনাড ছাড়ছেন রাহুল, প্রিয়াঙ্কাকে সংসদে আনার তোড়জোড়

    জুরাইনে কোরবানির গরুর মাংস বিক্রির হাট

    জাপান সফরের যাত্রাপথে প্লেন বিড়ম্বনায় নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

    সখীপুরে নিখোঁজের ১ দিন পর গৃহবধূর লাশ মিলল পুকুরে

    কারস্টেনকে কেন পাকিস্তানের চাকরি ছাড়তে বলছেন হরভজন