Alexa
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

এশিয়া কাপ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত বাহরাইনে 

আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫:৫৫

এশিয়া কাপ নিয়ে এসিসির জরুরি বৈঠক হবে বাহরাইনে। ছবি:সংগৃহীত ২০২৩ এশিয়া কাপ নিয়ে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) ও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) দ্বন্দ্ব চলছে গত বছর থেকেই। দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে এক বিন্দুতে আনতে এবার বাহরাইনে জরুরি সভা ডেকেছে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)। 

এবছরের এশিয়া কাপের আয়োজক হিসেবে পাকিস্তানের নাম ছিল আগে থেকেই। যেখানে সমস্যার সূত্রপাত করেছিলেন জয় শাহ। গত বছরের অক্টোবরে বিসিসিআই সচিব জানিয়েছিলেন, ২০২৩ এশিয়া কাপ খেলতে পাকিস্তানে যাবে না ভারতীয় দল। এরপর জয় যখন এই মাসের প্রথম সপ্তাহে ২০২৩ ও ২০২৪ এর এসিসির সূচি প্রকাশ করেছিলেন, তখন অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন নাজাম শেঠি। পিসিবি প্রধানের মতে, এটা ছিল একতরফা সিদ্ধান্ত। দুই বোর্ডের দ্বন্দ্বের অবসানে তাই ৪ ফেব্রুয়ারি বাহরাইনে জরুরি সভা তলব করেছে এসিসি। 

দীর্ঘদিন পর এসিসির বৈঠক হবে দেখে খুশি শেঠি। এই ব্যাপারে পিসিবি প্রধান বলেন, ‘এসিসির বৈঠক অনেকদিন হচ্ছিল না। এর মধ্যে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত হয়েছে, যার একটিকে আমরা চ্যালেঞ্জ করেছি। ভালো খবর এই যে বৈঠকের ব্যাপারে তাদের রাজি করাতে পেরেছি। সেই বৈঠকে আমি থাকছি।’ 

২০১২-১৩ মৌসুমে সর্বশেষ দ্বিপক্ষীয় সিরিজে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত-পাকিস্তান। ভারতে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে গিয়েছিল পাকিস্তান। এরপর গত ১০ বছরে আইসিসি ইভেন্ট, এশিয়া কাপ—এই টুর্নামেন্টগুলোই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর মুখোমুখি হওয়ার একমাত্র মঞ্চ হয়ে গেছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বিপিএলে রুবেলের অন্য রকম ‘সেঞ্চুরি’ 

    সবার আগে শেষ চারে সিলেট

    ৩৫ দিনের মধ্যে তিন এল ক্ল্যাসিকো

    পাকিস্তানিরা গেলেও সমস্যা দেখছেন না পাপন

    আইসিসির বিশ্বকাপ দলে বাংলাদেশের স্বর্ণা

    মেহেদী ঝড়ে শেষ চারের স্বপ্নভঙ্গ ঢাকার

    আবারও বাড়াল বিদ্যুতের দাম, কার্যকর কাল থেকে

    বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

    চাকরি দেবে কর কমিশনারের কার্যালয়, পদসংখ্যা ৩০

    ইউক্রেনে যুদ্ধবিমান পাঠাবেন না বাইডেন

    ভবিষ্যৎ স্মার্ট বাংলাদেশের জন্য

    শিল্পের পথ রুদ্ধ করা যায় না