Alexa
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 
ফ্যাক্টচেক

বুয়েটে পড়তে ওই তিন নারীকে মামলা করতে হয়নি

আপডেট : ২৪ মার্চ ২০২২, ১৮:১৫

ফেসবুকে দাবি করা হচ্ছে বুয়েটে পড়ার জন্য তিনজন নারীকে মামলা করতে হয়েছিল। ছবি: ফেসবুক থেকে স্ক্রিনশট সম্প্রতি ফেসবুকে তিন নারীর সাদাকালো একটি ছবি পোস্ট করে দাবি করা হচ্ছে, বুয়েটে পড়ার জন্য তাঁদের মামলা করতে হয়েছিল। দাবি করা হচ্ছে, সে সময় বুয়েটে মেয়েদের পড়া নিষিদ্ধ ছিল।

পোস্টগুলোতে দাবি করা হচ্ছে, ১৯৬৪ সালের দিকে দোরা রহমান, মনোয়ারা ও চুমকি নামের এই তিন বাঙালি নারী বুয়েটে পড়তে না পারার কারণে কোর্টে মামলা ঠুকে দেন। মামলায় জয়ী হয়ে প্রথম নারী শিক্ষার্থী হিসেবে তাঁরা বুয়েটে পড়ার সুযোগ পান।

ফ্যাক্টচেক
ভাইরাল হওয়া ছবি ও কি-ওয়ার্ড দিয়ে গুগলে অনুসন্ধান করলে ২০১৯ সালের ১৮ অক্টোবর দৈনিক প্রথম আলোয় প্রকাশিত 'আমাদের দেখতে ভিড় লেগে যেত' শিরোনামে একটি প্রাসঙ্গিক প্রতিবেদন খুঁজে পাওয়া যায়।

ওই প্রতিবেদনে সম্প্রতি ভাইরাল ছবির তিন নারী প্রকৌশলীর একজন খালেদা শাহারিয়ার কবির (ডোরা রহমান) প্রথম আলোর সঙ্গে সেই সময়ের স্মৃতিচারণ করেন। প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, অপর দুই নারীর একজন শিরীন সুলতানা, এখন যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী। আর মনোয়ারা বেগম ২০০২ সালে মারা গেছেন।

প্রথম আলোতে ২০১৯ সালে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায় ওই তিন নারী মামলা করেননি। ছবি: প্রথম আলো থেকে স্ক্রিনশট  আলাপচারিতায় খালেদা শাহারিয়ার জানান, সংখ্যায় কম হওয়ার কারণে ওই সময় বুয়েটে মেয়েদের ভর্তি নেওয়া হতো না। বুয়েট তখন ইপুয়েট নামে পরিচিত ছিল।

প্রথম আলোর প্রতিবেদনে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ডোরা রহমান বলেন, ‘আমি আর শিরীন তখন ইডেন কলেজে পড়ি। আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম ইঞ্জিনিয়ারই হব। আমাদের ইচ্ছার কথা হলিক্রস কলেজের মনোয়ারার কানে পৌঁছাল। তিনজন মেয়ে দেখে স্যাররা রাজি হলেন। তখন প্রথম বর্ষে একটিই সাধারণ বিভাগ ছিল। দ্বিতীয় বর্ষ থেকে পুর, তড়িৎ, যন্ত্রকৌশল বিভাগ ভাগ হতো।'

খালেদা শাহরিয়ার আরও বলেন, পুরকৌশলে সে সময় মেয়েদের পড়তে দেওয়া হতো না। এর কারণ হিসাবে তিনি জানান, এই বিভাগে পড়লে সাভারে এক মাসের জন্য থাকতে হবে সার্ভের জন্য। ফলে তাদের তিনজনকে শর্ত দেওয়া হয়েছিল, তাঁরা পুরকৌশলে পড়তে পারবেন না এবং এই শর্ত মেনেই ভর্তি হয়েছিলেন তাঁরা।

শিক্ষকেরা শুরুতে নিমরাজি থাকলেও ওই তিন নারীর আত্মবিশ্বাসের কাছে নতি স্বীকার করতে বাধ্য হন। তাঁরা শিক্ষকদের বলেছিলেন, ‘সংবিধানে তো বলা নেই পুরকৌশলে মেয়েরা পড়তে পারবে না। তাই আপনারা পড়তে না দিলে আইনি ব্যবস্থা নিতে পারব।’ পরে তিন নারী প্রচলিত নিয়মেই বুয়েটে ভর্তি হয়েছিলেন। তাঁদের মামলা করতে হয়নি।

ফেসবুকে ছড়ানো গুজবের প্রসঙ্গটিও এসেছিল ওই প্রতিবেদনে। এর জবাবে খালেদা শাহরিয়ার বলেন, 'তথ্য বিকৃতি করে কারা যেন এ কথা ছড়িয়েছে। আমাদের মামলা করতে হয়নি।'

১৯৬৮ সালে খালেদা শাহারিয়ার কবির ও শিরীন সুলতানা বাংলাদেশের প্রথম নারী হিসেবে পুরকৌশলে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৭০ সালে মনোয়ারা বেগম কেমিকৌশলে স্নাতক ডিগ্রি পান।

সিদ্ধান্ত
সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া ছবির তিন নারী প্রচলিত নিয়মেই বুয়েটে ভর্তি হয়েছিলেন। বুয়েটে পড়ার জন্য তাঁদের মামলা করতে হয়েছিল, এ তথ্য সঠিক নয়।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, সংবাদমাধ্যম বা যেকোনো মাধ্যমে প্রচারিত কোনো ছবি, ভিডিও বা তথ্য বিভ্রান্তিকর মনে হলে, তার স্ক্রিনশট বা লিংক কিংবা সে সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য আমাদের ই-মেইল করুন। আমাদের ই-মেইল ঠিকানা— [email protected]

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     
    ফ্যাক্টচেক

    পদ্মা সেতু: লড়তে হয়েছে গুজবের সঙ্গেও

    ফ্যাক্টচেক

    মঞ্চ ভেঙে শিল্পী অদৃশ্য: কোক স্টুডিও বাংলা কনসার্টে নয়

    ফ্যাক্টচেক

    পুরোটাই গুজব: পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠান স্থগিত

    ফ্যাক্টচেক

    ওই সাত শিশু এক মায়ের নয়

    ফ্যাক্টচেক

    মৃতদেহ পানিতে পড়ে যাওয়ার ভিডিওটি টিভি নাটকের দৃশ্য

    ফ্যাক্টচেক

    আইয়ুব আলীর কি সত্যিই সবুজ নামে ছেলে আছে

    ৩৫ রানে হেরে সিরিজে পিছিয়ে গেল বাংলাদেশ 

    জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ১৯৪ রান

    রাজশাহীতে জন্মদিনে খুন হলেন শ্রমিক নেতার ছেলে

    শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন সচিব মামুন আল রশীদ

    ব্যাঙ শিকারের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অর্থদণ্ড

    কনকা অ্যান্ড্রয়েড ভয়েস কন্ট্রোল টেলিভিশন