রোববার, ১৯ মে ২০২৪

সেকশন

 

স্বীকৃতি পেয়েও বঞ্চিত হওয়ার শঙ্কা হিজড়া জনগোষ্ঠীর

আপডেট : ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০

স্বীকৃতি পেয়েও বঞ্চিত হওয়ার শঙ্কা হিজড়া জনগোষ্ঠীর সরকার তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি দিয়েছে হিজড়া হিসেবে। এই পরিচয়েই হিজড়াদের ভোটার হওয়া এবং জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) পাওয়ার সুযোগ আছে। কিন্তু হিজড়া লিঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়ে তাঁরা এখন মা-বাবার সম্পত্তি ও সরকারি-বেসরকারি চাকরি থেকে বঞ্চিত হওয়ার শঙ্কায় আছেন। তাঁরা বলছেন, দেশের আইনে ছেলেমেয়ের মধ্যে সম্পত্তি বণ্টনের বিষয়টি উল্লেখ থাকলেও হিজড়া লিঙ্গের বিষয়ে কিছু বলা নেই। এ জন্য হিজড়া লিঙ্গ হিসেবে এনআইডি নিতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না অনেকেই।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন হিজড়া বলেন, ‘জমিজমাসংক্রান্ত আইন এখনো স্পষ্ট হয়নি। সে কারণে আমার আইডিটা এখনো ছেলে হিসেবেই আছে। আইনি অস্পষ্টতার কারণে অনেকেই হিজড়া পরিচয়ে এনআইডি করছেন না।’

পদ্মকুঁড়ি হিজড়া সংঘের সাধারণ সম্পাদক মো. মিজানুল হক মিতু বলেন, ‘সন্তান হিসেবে কিন্তু আমি সম্পত্তির ভাগ পাই। এটি আমার অধিকার। হিজড়া হিসেবে যদি আমি নিতে যাই, সে ক্ষেত্রে একটি আইনি বাধা আসবে।’  

বিষয়টি নজরে আনা হলে ভূমিসচিব মো. খলিলুর রহমান বলেন, সিদ্ধান্ত আছে, তৃতীয় লিঙ্গের বিষয়ে একটি আইন হবে। এটি পারসোনাল ল, এ বিষয়ে একটি আউটলাইন পাঠানো হয়েছে আইন ও বিচার বিভাগে।

জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৩ নভেম্বর মন্ত্রিসভা হিজড়াদের স্বীকৃতির বিষয়টি অনুমোদন দেয়। পরে ২০১৪ সালের ২২ জানুয়ারি হিজড়া জনগোষ্ঠীকে ‘হিজড়া লিঙ্গ’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। এর ধারাবাহিকতায় নির্বাচন কমিশনও (ইসি) ভোটার তালিকা আইনে পরিবর্তন এনে হিজড়া হিসেবে ভোটার হওয়ার সুযোগ দেয়। ২০২০ সালে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময় প্রথমবার হিজড়া পরিচয়ে ভোটার হন ৩৫৩ জন। গত ২ মার্চ ইসির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে ৯৩২ জন হিজড়া ভোটার আছেন। এদের এনআইডিতে ‘হিজড়া লিঙ্গ’ লেখা হয়েছে।

বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্টের (ব্লাস্ট) জুনিয়র অ্যাডভোকেসি অফিসার শোভা সরকার বলেন, ‘একজন মেয়ে বাবা-মায়ের পাশাপাশি স্বামীর সম্পত্তিরও ভাগ পায়। হিজড়াদের যেহেতু বিয়ে হয় না, স্বামীর সম্পত্তির অংশ পাওয়ারও সুযোগ নেই। তাই আমি মনে করি, হিজড়াদের সম্পত্তিটা ভাইয়ের সমপরিমাণ দেওয়া উচিত। কারণ হিজড়ারা মারা গেলে সম্পত্তি তাদের পরিবারের লোকেরাই পাবে।’

হিজড়া হিসেবে এনআইডি করতে অনীহার বিষয়ে শোভা সরকার বলেন, ‘সম্পত্তির ভাগ ছাড়াও হিজড়া হিসেবে সমাজে গ্রহণযোগ্যতা পাওয়ার পরিবেশ এখনো তৈরি হয়নি। বৈষম্যমূলক যে আইন আছে, সেটিও এখনো সংশোধন হয়নি। এখন যদি তারা হিজড়া হিসেবে আইডেনটিটি নেয়, তখন কিন্তু সে সম্পত্তি পাচ্ছে না। তারপর সে পরিবারে থাকতে পারছে না। হিজড়া হিসেবে এনআইডি করলে সরকারি বা বেসরকারি চাকরি পাবে না। কারণ চাকরির বিজ্ঞপ্তিতে শুধু পুরুষ বা নারী উল্লেখ থাকে।’

শোভা সরকার আরও বলেন, ‘সর্বশেষ জনশুমারিতে দেশে ১২ হাজার ৬২৯ জন হিজড়া ক্যাটাগরিতে আছে বলা হলেও আমাদের ধারণা, বাংলাদেশে ২ লাখের মতো হিজড়া আছে।’

ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, হিজড়া লিঙ্গের বিষয়ে আইনগুলোতে বেশ কিছু অস্পষ্টতা আছে। সরকার তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি হিজড়া লিঙ্গ হিসেবে দিলেও তাদের সম্পত্তির অধিকার সত্যিকার অর্থে খুবই জটিল। সম্পত্তির বিলিবণ্টন বিষয়ে ইসলামিক ফরায়েজে সুনির্দিষ্টভাবে বলা আছে, ছেলে হলে কত শতাংশ পাবে, মেয়ে হলে কত শতাংশ পাবে। কিন্তু হিজড়া লিঙ্গ হলে কত শতাংশ পাবে সে রকম কিছু নেই।

সুপ্রিম কোর্টের আরেক আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, ‘এখানে একটি আইনি জটিলতা আছে। আমাদের দেশে উত্তরাধিকার আইনটা তো মুসলিম আইনকে ফলো করে। প্রাইভেট লতেও ভাগটা কী হবে বলা আছে। কিন্তু হিজড়া লিঙ্গের ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা নেই। যেহেতু এদের স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে, অতএব উত্তরাধিকার আইনেও এ ধরনের একটি পরিবর্তন আনা উচিত।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বাড়তি ভাড়ার খড়্গ আম রপ্তানিতে

    সাক্ষাৎকার

    ট্রলকে কখনোই পাত্তা দিই না, আমার যোগ্যতা আমি জানি

    উপাচার্য-শিক্ষকদের দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীরা

    মুজিবনগর সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিভঙ্গি

    ইউরোপে অভিবাসন: কপাল পুড়ছে বাংলাদেশিদের

    বিদ্যুৎ নিয়ে সরকারের অনেক চ্যালেঞ্জ

    ৭২ লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

    শরীয়তপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ওপর হামলা, আহত ১০ 

    মাকে হত্যার আসামি হওয়ার পর জানলেন তিনি আসলে পালিত কন্যা

    চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

    কিরগিজস্তানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার নেপথ্যে

    ইরানে দুই নারীসহ সাতজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর, ফাঁসিতে ঝুলতে পারে আরেক ইহুদি