Alexa
রোববার, ২৬ মার্চ ২০২৩

সেকশন

epaper
 

আপনার জিজ্ঞাসা

শিশুদের রোজায় অভ্যস্ত করবেন যেভাবে

আপডেট : ২৬ মার্চ ২০২৩, ১৪:৩৪

ছবি: সংগৃহীত আমার ১২ বছরের ছেলের কী রোজা রাখতে হবে, তাকে কীভাবে রোজা রাখায় অভ্যস্ত করব?

কামরুন নাহার, ঢাকা

ইসলামের বিধান মতে, সাবালক হওয়ার আগ পর্যন্ত শিশুদের জন্য রোজা রাখা ফরজ নয়। কেননা রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তিন শ্রেণির মানুষ থেকে ইসলামের বিধান পালনের আবশ্যকতা উঠিয়ে নেওয়া হয়েছে। এক. ঘুমন্ত ব্যক্তি, যতক্ষণ না সে জাগ্রত হয়, ২. শিশু, যতক্ষণ না সে সাবালক হয় এবং ৩. পাগল, যতক্ষণ না সে সুস্থ হয়।’ (আবু দাউদ) তা সত্ত্বেও শিশুদের রোজা রাখার প্রতি উৎসাহিত করা উচিত, যেন তারা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার আগেই রোজায় অভ্যস্ত হয়ে যায় এবং রোজা ফরজ হওয়ার পর একটি রোজাও ছুটে না যায়। সাহাবি ও তাবেয়িগণ এমনটাই করতেন।

সহিহ বুখারিতে এসেছে, হজরত ওমর (রা.) রমজান মাসে দিনের বেলা এক মাতাল ব্যক্তিকে দেখে বললেন, ‘আফসোস তোমার জন্য, তুমি মাতাল হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছ, অথচ এখন আমাদের শিশুরাও রোজা পালন করছে।’ এ কথা বলে তিনি তাকে প্রহার করলেন।

রুবাইয়ি বিনতে মুআওয়িজ (রা.) বলেন, আশুরার দিন সকালে রাসুল (সা.) আনসারি সাহাবিদের গ্রামে সংবাদ পাঠালেন, যারা ইতিমধ্যে পানাহার করে ফেলেছে, তারা দিনের বাকি অংশ পানাহার থেকে বিরত থাকবে, আর যারা এখনো পানাহার করেনি, তারা রোজা রাখবে। রুবাইয়ি (রা.) বলেন, এর পর থেকে আশুরার দিন আমরা রোজা রাখতাম এবং আমাদের শিশুরাও রোজা রাখত। শিশুদের জন্য আমরা রং মাখা পশম দিয়ে খেলনা তৈরি করে রাখতাম। কেউ খাবারের জন্য কান্না করলে তার হাতে খেলনা তুলে দিতাম। এভাবে ইফতারের সময় পর্যন্ত তাদের ভুলিয়ে রাখতাম। (বুখারি)

হিশাম ইবনে উরওয়া বর্ণনা করেন, তাঁর বাবা উরওয়া (রহ.) নিজ সন্তানসন্ততিদের মোটামুটি রোজা রাখার মতো সামর্থ্য হলেই রোজা রাখার নির্দেশ দিতেন। (কিতাবুল ইয়াল)

ঠিক কত বছর থেকে শিশুদের রোজা রাখায় অভ্যস্ত করতে হবে, এ নিয়ে আলেমগণের বিভিন্ন মত রয়েছে। কেউ সাত বছর, কেউ দশ বছরের কথা বলেছেন। তবে ইবনে সিরিন, জুহরি, আতা, হাসান, কাতাদাহ (রহ.)-সহ অনেক ফকিহ বলেছেন, এ ক্ষেত্রে শিশুদের শারীরিক গঠন ও শক্তিমত্তা দেখে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। মোটকথা, শিশুর যখন ভালো-মন্দ পার্থক্য করার যোগ্যতা এবং রোজা রাখার শক্তি-সামর্থ্য অর্জিত হবে, তখন থেকে তাকে রোজায় অভ্যস্ত করে তোলা বাঞ্ছনীয়। সন্তানের কষ্ট হবে, ওজন কমে যাবে, পড়াশোনার ক্ষতি হবে ইত্যাদি

সাধারণ অজুহাতে রোজা রাখতে সক্ষম শিশুদের রোজা রাখতে বাধা দেওয়া বা নিরুৎসাহিত করা উচিত নয়। (আল মুগনি, আল মাজমু, আল-ফাতাওয়া) তবে শিশুদের রোজায় অভ্যস্ত করার প্রক্রিয়া ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করতে হবে, যেন তারা কোনোরকম চাপ অনুভব না করে। এর জন্য নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করা যেতে পারে।

  • শিশুদের মনে রোজার ফজিলত ও জান্নাতে রোজাদারের ঈর্ষণীয় মর্যাদা লাভের কথা গেঁথে দেওয়া।
  • রোজা না রাখলেও বড়দের সঙ্গে সাহ্‌রি ও ইফতারের সময় গুরুত্বসহকারে তাদের শরিক রাখা।
  • পূর্ণাঙ্গ রোজা না রাখলেও দিনের নির্দিষ্ট অংশ পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকার প্রতি উৎসাহিত করা এবং ধীরে ধীরে এর পরিমাণ বাড়ানো।
  • পূর্ণাঙ্গ রোজা রাখলে পুরস্কার দেওয়া এবং পরিবারের লোকজন ও প্রতিবেশীদের সামনে তার দৃঢ়তা ও সাহসিকতার প্রশংসা করা।
  • অক্লান্তিকর খেলাধুলায় মাতিয়ে রাখা অথবা শিক্ষণীয় কার্টুন ইত্যাদি দেখিয়ে ভুলিয়ে রাখা, যেমনটি সাহাবিগণ করতেন। 

উত্তর দিয়েছেন, মুফতি আবু আবদুল্লাহ আহমদশিক্ষক ও ইসলামবিষয়ক গবেষক

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    ছবিতে বিভিন্ন দেশে কয়েকজন নবীর সমাধি

    আজকের তারাবিহ: দাম্পত্য কলহের সমাধান ও যে ১১ খাদ্য হারাম

    যেসব কাজ করলে রোজা ভেঙে যায়

    রহমতের রমজান: অসুস্থ ইহুদি বালককে দেখতে গিয়েছিলেন মহানবী (সা.)

    যে ইংরেজি সালে রমজান মাস পাওয়া যাবে দুইবার

    আজকের তারাবি: যে ১৪ নারীকে বিয়ে করা হারাম

    বুড়িচংয়ে যুবককে পিটিয়ে হত্যা, মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

    দুর্গাপুরে বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষের পর বাড়ি বাড়ি অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার ৭ 

    ধামরাইয়ে ওয়ার্ড আ. লীগের সভাপতির ওপর হামলা, থানায় মামলা 

    ছবিতে বিভিন্ন দেশে কয়েকজন নবীর সমাধি

    মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে শিশুর মৃত্যু, বাবা হাসপাতালে 

    নওগাঁয় র‍্যাবের হেফাজতে ভূমি অফিসের নারী কর্মচারীর মৃত্যু