Alexa
রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

আইএমএফের ঋণ এখনো পাওয়া যায়নি, আলোচনা চলছে: সংসদে অর্থমন্ত্রী

আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১৯:২৮

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ফাইল ছবি চলতি অর্থবছরে (২০২২-২৩) আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকে এখন পর্যন্ত কোনো ঋণ পাওয়া যায়নি বলে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানান। তিনি বলেছেন, একটি ঋণের বিষয়ে আইএমএফের সঙ্গে আলোচনা চলছে। 

আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তরে ক্ষমতাসীন দলের সংসদ সদস্য হাবিবর রহমানের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপিত হয়। 

অর্থমন্ত্রী জানান, চলতি অর্থবছরে বিশ্বব্যাংক থেকে ৩০ কোটি ডলার ঋণ পাওয়া গেছে। এই ঋণ পাঁচ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৩০ বছরে পরিশোধযোগ্য। 

সংসদ সদস্য এম আব্দুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নে চলতি অর্থবছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত জাপান সরকার ৯২ কোটি ১৬ লাখ ১০ হাজার ডলার ছাড় করেছে। 

সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য লুৎফুন নেসা খানের প্রশ্নের জবাবে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচারের কিছু সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে পাচারকৃত অর্থ উদ্ধারের আইনগত কার্যক্রম চলমান। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) পাচারকারী বা পাচারকৃত অর্থের বিষয়ে বিদেশি আর্থিক গোয়েন্দা সংস্থা থেকে তথ্য সংগ্রহ করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি), জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ (এনবিআর) বিভিন্ন তদন্তকারী সংস্থায় তা সরবরাহ করে থাকে। বিদেশে (সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, হংকং, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ইত্যাদি) ফ্ল্যাট বা বাড়ি কেনা অথবা অন্য কোনো পদ্ধতিতে অর্থ পাচারবিষয়ক বেশ কিছু মামলা বর্তমানে দুদকের তদন্তাধীন। 

অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থ পাচারসংশ্লিষ্ট সিআইডির করা বেশ কিছু মামলা চলমান। অর্থ পাচারসংক্রান্ত কোনো অভিযোগ বা তথ্য পাওয়া গেলে বিএফআইইউ আইনের বিধান অনুযায়ী গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রস্তুত করে তা সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী সংস্থায় পাঠিয়ে থাকে। 

বিএফআইইউ থেকে গোয়েন্দা প্রতিবেদন পাওয়ার পর সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী সংস্থা অনুসন্ধান ও তদন্ত সম্পন্ন করে প্রয়োজনীয় বিচারিক প্রক্রিয়া গ্রহণ করে থাকে বলে জানান অর্থমন্ত্রী। মন্ত্রী বলেন, দুদকের শিডিউলভুক্ত অপরাধের মাধ্যমে অর্জিত অর্থ বিদেশে পাচার করার ঘটনা দুদক কর্তৃক এবং বৈদেশিক বাণিজ্যের মাধ্যমে অর্থ বিদেশে পাচার করার ঘটনা বর্তমানে এনবিআর কর্তৃক তদন্ত করা হয়ে থাকে। এ ছাড়া হুন্ডি বা অন্য কোনো উপায়ে অর্থ পাচার হলে তা সিআইডি কর্তৃক তদন্ত করা হয়ে থাকে। 

অর্থ পাচার রোধ এবং পাচারকৃত অর্থ বাংলাদেশে ফেরত আনার বিষয়ে সরকার বদ্ধপরিকর এবং এ লক্ষ্যে সরকারের সব সংস্থা একযোগে কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন দেশের সঙ্গে পারস্পরিক আইনগত সহযোগিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অপরাধসম্পর্কিত বিষয়ে পারস্পরিক সহায়তা আইন, ২০১২ জারি করা হয়েছে। এই আইনের আওতায় অপরাধসম্পর্কিত বিষয়ে পারস্পরিক সহায়তা প্রদানকল্পে কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্ধারণ করা হয়েছে। 

সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এম আব্দুল লতিফের প্রশ্নের উত্তরে ডলারসংকট কমাতে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা সংসদে তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী। তিনি জানান, ডমেস্টিক ব্যাংকিং ইউনিটকে (স্থানীয় ব্যাংক) তাদের অফশোর ব্যাংকিং অপারেশন থেকে বৈদেশিক মুদ্রা তহবিল সংগ্রহের প্রাধিকার দেওয়া হয়েছে, যা ৩০ জুন ২০২৩ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। 

রমজান মাসে ভোজ্যতেল, ছোলা, ডাল, পেঁয়াজ, মসলা, চিনি ও খেজুরের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখাসহ পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিতকল্পে এসব পণ্য ৯০ দিনের বিলম্ব মূল্য পরিশোধ ব্যবস্থায় আমদানির সুযোগ দেওয়া হয়েছে, যা ২০২৩ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। চীনের সঙ্গে বাণিজ্য সহজীকরণের লক্ষ্যে ওই দেশের মুদ্রার সঙ্গে লেনদেনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান অর্থমন্ত্রী। 

এম আবদুল লতিফের আরেক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, গত ২০২১-২২ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রির হার আগের বছরের তুলনায় ১৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। টাকার অঙ্কে ১২ হাজার ৩৮৫ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। ২০২১-২২ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রির পরিমাণ ১ লাখ ৩ হাজার ৬৫২ কোটি ৮ লাখ টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরে এর পরিমাণ ছিল ৯১ হাজার ২৬৬ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। 

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ফখরুল ইমামের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, করোনার শুরুতে সকল তফসিলি ব্যাংককে করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর) কার্যক্রমের আওতায় বিশেষ সিএসআর কার্যক্রম পরিচালনার প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা প্রদান করা হয়। ২০২০ সালে অর্জিত নিট মুনাফার ১ শতাংশের বিপরীতে বিশেষ সিএসআর খাতে ব্যাংকগুলোর বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ১০৫ কোটি ৩৯ লাখ টাকা এবং এ খাতে ব্যাংকগুলো বিতরণ করে ১০৫ কোটি ৯০ লাখ টাকা (মোট বরাদ্দের প্রায় ১০০ দশমিক ৪৮ শতাংশ)। 

তফসিলি ব্যাংকগুলোর ২০২২ সালের জানুয়ারি-জুন সময়ে সিএসআর কার্যক্রমের ভিত্তিতে শীর্ষ ব্যয়কারী ১০টি ব্যাংক হলো—ইসলামী ব্যাংক ২০২ কোটি ১৯ লাখ, ডাচ-বাংলা ৩৯ কোটি ৭ লাখ, দি প্রিমিয়ার ব্যাংক ২৯ কোটি ৯৫ লাখ, এক্সিম ব্যাংক ২৮ কোটি ৩৯ লাখ, মার্কেন্টাইল ব্যাংক ২২ কোটি ১৬ লাখ, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ২১ কোটি ৬৫ লাখ, আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ১৯ কোটি ৮১ লাখ, ঢাকা ব্যাংক ১৪ কোটি ৯৬ লাখ, প্রাইম ব্যাংক ১৪ কোটি ৬৩ এবং ব্র্যাক ব্যাংক ১৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। 

ময়মনসিংহ-১১ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য কাজিম উদ্দিন আহম্মেদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশে ডলার রিজার্ভের পরিমাণ ৩২ দশমিক ৪৯ বিলিয়ন ডলার।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    শিক্ষকদের সহজ শর্তে স্মার্ট ক্রেডিট কার্ড দিল এবি ব্যাংক

    শীর্ষ ২০ ঋণখেলাপির তালিকা সংসদকে জানালেন অর্থমন্ত্রী

    শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণের সুদে বড় ছাড়

    এবি ব্যাংকের ইসিবি চত্বর উপশাখার উদ্বোধন

    ‘ঋণ ও আর্থিক খাতের ঝুঁকি’ জানতে চায় আইএমএফ

    শিক্ষার্থীদের বিমার সুবিধা দিতে গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের সঙ্গে কমিউনিটি ব্যাংকের চুক্তি

    এবং বই-এর পঞ্চম বর্ষপূর্তিতে আনন্দ সম্মিলন

    উপশাখা ব্যবসার উন্নয়নে ইসলামী ব্যাংকের সম্মেলন 

    রেমিট্যান্স গায়েব করেছিলেন তারেকের সাবেক পিএস: সিআইডির দাবি

    সরকারই ভোজ্যতেল ও চিনি আমদানিতে নামছে

    ৮৩ হাজার কর্মী নেবে ইতালি, সুযোগ পাবেন বাংলাদেশিরাও

    বার কাউন্সিল সভায় বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ালেন বিএনপি-আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা