Alexa
রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

যেভাবে টুইটারের খোলনলচে পাল্টে দিতে চান ইলন মাস্ক

আপডেট : ২৬ এপ্রিল ২০২২, ২১:৫৪

টুইটারকে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার প্ল্যাটফর্মে পরিণত করতে চান ইলন মাস্ক। ছবি: রয়টার্স প্রায় ৪৪ বিলিয়ন ডলারে টুইটার কিনে নিতে যাচ্ছেন মার্কিন উদ্যোক্তা ইলন মাস্ক। বিশ্বের শীর্ষ ধনী তিনি। গতকাল সোমবার টুইটারের পরিচালনা বোর্ড মাস্কের প্রস্তাবে সম্মতি দেয়। প্রতিটি শেয়ারের বিনিময়ে নগদ ৫৪ দশমিক ২০ ডলার দেওয়ার শর্তে এই সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্টের মালিক হতে যাচ্ছেন তিনি।

হুট করে এতো টাকায় একটি সামাজিক যোগাযোগ প্ল্যাটফর্ম কিনে নেওয়ার পেছনে কারণ কি শুধুই ব্যবসাচিন্তা? ইলন মাস্ক কিন্তু তা বলছেন না। তিনি টুইটারের ভক্ত সেকথা আজ থেকে পাঁচ সাত বছর আগে থেকেই বলে আসছেন। একাধিক ফোরামে বলেছেন। শক্তিশালী গণতন্ত্রের জন্য মত প্রকাশের স্বাধীনতার যে বিকল্প নেই সেটি বারবার উল্লেখ করে সেক্ষেত্রে টুইটার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বলে মত দিয়ে আসছেন তিনি। টুইটার কেনার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হওয়ার পর তাঁর ৮৪ দশমিক ৮ মিলিয়ন ফলোয়ারের উদ্দেশে সে কথাই বলেছেন মাস্ক। 

গতকাল সোমবার টুইটার বোর্ডের সম্মতি ঘোষণার পরপরই টুইটার নিয়ে বহুদিন আগে বলা একটি বক্তব্যের স্ক্রিনশট শেয়ার করেছেন ইলন মাস্ক। বক্তব্যটি এরকম—

স্বাধীন মত হলো একটি কার্যকর গণতন্ত্রের অপরিহার্য উপাদান। টুইটার হলো সেই ডিজিটাল ক্ষেত্র, ভবিষ্যৎ মানবতার প্রশ্নে  যে বিতর্ক চলমান সেখানে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান। 

মাস্ক বলেন, আমি টুইটারকে আরও ভালো অবস্থানে নিতে চাই। নতুন ফিচার যুক্ত করা, আস্থা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এর অ্যালগরিদম উন্মুক্ত (ওপেন সোর্স) করা, স্প্যাম প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেওয়া এবং সেই সঙ্গে সব ব্যবহাকারীর পরিচয় নিশ্চিতের ব্যবস্থা করার মাধ্যমে সেই লক্ষ্য অর্জন করতে চান তিনি।

মাস্ক যোগ করেন, টুইটারের সক্ষমতা অবিশ্বাস্য—এই সম্ভাবনাকে উন্মোচন করতে কোম্পানি এবং টুইটার কমিউনিটির সঙ্গে কাজ করার জন্য আমি মুখিয়ে আছি। 

গতকাল আরেক টুইটে ইলন মাস্ক বলেছেন, আমি আশা করি, আমার সবচেয়ে কঠোর এবং বাজে সমালোচকও টুইটারে বহাল তবিয়তে থাকবেন। কারণ এটাই হলো স্বাধীন মত বা মত প্রকাশের স্বাধীনতা।

অবশ্য গত কয়েক বছর ধরে মিথ্যা ও ভুয়া তথ্যের বিস্তার প্রতিরোধ নিয়ে হিমশিম খেতে থাকা টুইটারকে আরও স্বচ্ছ ও নিরাপদ করতে ইলন মাস্ক আসলে কোন ধরনের ব্যবস্থা নেবেন সেটি এখনো পরিষ্কার নয়। অবশ্য তিনি তাঁর পরিকল্পনার কথা কখনো পরিষ্কার করে বলেনও না। এমনকি ইলন মাস্কের রকেট সংস্থার প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা গোয়েন শটওয়েল এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, তাঁর বসের কথাবার্তা বা পরিকল্পনা বোঝা দুষ্কর। তবে মাস্ককে বোঝার একটি শর্টকাট কৌশল তিনি বুঝেছেন, সেটি হলো—বড় চিন্তা করো। 

টুইটারের বর্তমান সিইও পরাগ আগরওয়ালও তেমন অনিশ্চয়তার কথাই বলেছেন। তিনি বলেছেন, ইলন মাস্ক আসলে কী করতে চাইছেন সে ব্যাপারে কোম্পানি একেবারে অন্ধকারে আছে। ইলন মাস্কের হাতে মালিকানা যাওয়া নিশ্চিত হওয়ার পরই চরম অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে টুইটার! 

অবশ্য মাস্কের আগের বহু বক্তব্য এবং টুইটে যেসব বিষয় অনুমান করা যাচ্ছে সেগুলোর মধ্যে মোটাদাগে তিনটি পরিবর্তনের কথা বলা যেতে পারে—

স্বচ্ছতা বজায় রাখা এবং ভুল তথ্যের বিস্তার ঠেকাতে সবাইকে ব্লু টিক দেওয়ার একটা পরিকল্পনা মাস্ক অনেক আগেই বলেছেন। অর্থাৎ সবাই যাচাইকৃত অ্যাকাউন্টের অধিকারী হতে পারেন। প্রতিটি অ্যাকাউন্ট যাচাই করা উচিত। কিছু যাচাই করা, আর কিছু সাধারণ অ্যাকাউন্ট রাখা—এ ভাবে স্বচ্ছতা বজায় রাখা অসম্ভব। এমনটিই ভাবছেন মাস্ক। তাই প্রত্যেক প্রকৃত টুইটার ব্যবহারকারীকে ‘ব্লু-টিক’ দেবেন তিনি। 

মত প্রকাশের স্বাধীনতায় পরম বিশ্বাসী ইলন মাস্ক। এক্ষেত্রে কোনো সেন্সরশিপ রাখার পক্ষপাতি নন। পক্ষ বিপক্ষ কখনো বিবেচ্য হওয়া উচিত নয়। আইনের মধ্যে থেকে তা প্রকাশে কুণ্ঠিত হবে না টুইটার। বেশ কয়েক বছর আগে টেড টকে এমনটিই বলেছিলেন মাস্ক। তাঁর মতে, ভালো-মন্দ বিবেচনার ভার ব্যবহারকারীর। 

নির্দিষ্ট মতাদর্শের হওয়ায় অ্যাকাউন্ট স্থগিত করার কারণে এরই মধ্যে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে টুইটার। এর মধ্যে সবচেয়ে হাইপ্রোফাইল ব্যক্তিটি হলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ ছাড়া শুধু সরকারের বিরাগভাজন হওয়ার কারণেও অনেকের অ্যাকাউন্ট স্থগিত করা হয়েছে। এ নিয়ে ব্যাপক অসন্তোষ রয়েছে। ইলন মাস্ক বলছেন, প্রতিটি ব্যবহারকারী যাতে অবাধে নিজের মতামত জানাতে পারেন, তা নিশ্চিত করবেন তিনি। 

ভুয়া অ্যাকাউন্টের দিনও শেষ করে দিতে চান ইলন মাস্ক। ফলে নির্বাচনের আগে ভুয়া অ্যাকাউন্ট তৈরি করে জনমত নিয়ন্ত্রণের দিন শেষ হতে চলেছে! দেখা যায়, এ ধরনের কর্মকাণ্ডের জন্য বহু অর্থ বিনিয়োগ করে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তিকে কাজে লাগানো হয়। বিশেষ কোনো মতবাদ বা তথ্য ছড়িয়ে দিতে বা জনমত ঘুরিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে এখন ‘বট অ্যাকাউন্ট’ তৈরি করা হয়। এই বট স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর করা একটি টুইটই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বহু ভুয়া অ্যাকাউন্ট থেকে প্রতিফলিত করে। দেখে মনে হয়, যেন বহু মানুষ এই মতের পক্ষে। এতে সাধারণ মানুষও প্রভাবিত হয়। 

মাস্ক বলছেন, সেই চালাকির দিন শেষ। তবে ভুয়া অ্যাকাউন্ট শনাক্ত খুব সহজ কাজ নয়। সেটি মাস্ক কীভাবে করবেন তা স্পষ্ট নয়। 

সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে অ্যালগরিদম উন্মুক্ত করতে চান ইলন মাস্ক। একটি কনটেন্ট কীভাবে কতো মানুষের কাছে পৌঁছাবে, কাদের কাছে পৌঁছাবে—অর্থাৎ দ্রুত সময়ের মধ্যে ভাইরাল হবে সেটি নির্ভর করে সেই সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যালগরিদমের ওপর। ফলে ভাইরাল কনটেন্টের ব্যাপারে নির্দোষ সাধারণ ব্যবহারকারীরা অন্ধকারে থাকেন। ইলন মাস্ক বলছেন, তিনি টুইটারের অ্যালগরিদম ওপেন সোর্স রাখবেন। ফলে সবাই দেখতে পারবেন কনটেন্ট কীভাবে কোথায় ভাইরাল হওয়ার ব্যবস্থা এতে রয়েছে। এতে করে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার মাধ্যমে টুইটারের ওপর মানুষের আস্থা বাড়বে বলে মনে করছেন তিনি। 

তবে মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিয়ে ইলন মাস্কের এই চরম অবস্থান নিয়ে রক্ষণশীলদের মধ্যেই বেশি উচ্ছ্বাস দেখা যাচ্ছে। টুইটারের মালিকানা পরিবর্তনের খবর নিশ্চিত হওয়ার পরপরই যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান পার্টির অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেল থেকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। বহু রিপাবলিকান সিনেটর উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন। তাঁরা দ্রুত ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলেছেন। অবশ্য ট্রাম্প তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ইলন মাস্ককে ‘ভালো লোক’ বলে অভিহিত করে অভিনন্দন জানালেও আর টুইটারে ফিরবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। 

এদিকে সেলিব্রিটি ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিক অ্যালেক্স জোনসের মতো উগ্রবাদীরা টুইটারে ফিরলে কতোটা গণতন্ত্র ও সামাজিক শৃঙ্খলা বজায় থাকবে তা নিয়ে বিশেষজ্ঞরা সন্দেহ পোষণ করছেন। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মতো মানবাধিকার সংস্থাগুলোও উদ্বেগ জানিয়েছে। যদিও এক্ষেত্রে ইলন মাস্কের রুল অব থাম্ব হচ্ছে—একটি সোশ্যাল মিডিয়ার নীতিকে তখনই ভালো বলা যাবে যদি ব্যবহারকারীদের মধ্যে ১০ শতাংশ চরম ডান এবং চরম বাম সমান নাখোশ হয়! 

মজার ব্যাপার হলো, টুইটারের সাবেক সিইও জ্যাক ডরসি মাইক্রো ব্লগিং সাইটটি দর্শন অক্ষুণ্ন রাখার জন্য ইলন মাস্ককেই একমাত্র উপযুক্ত ব্যক্তি বলে মনে করছেন!

তথ্যসূত্র: রয়টার্স, টুইটার, এনডিটিভি

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    চলতি বছরের প্রথমার্ধে কত অর্থ খোয়ালেন ইলন? 

    হোম অফিস থেকে ফিরিয়ে কর্মীদের জায়গা দিতে পারছে না টেসলা

    বড় লোকসানের মুখে টেসলা

    পরীক্ষামূলকভাবে ‘নোট’ ফিচার চালু করছে টুইটার

    চলতি সপ্তাহে টুইটারের কর্মীদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন ইলন মাস্ক

    টেসলাকে টেক্কা দিতে হাই-ভোল্টেজ ব্যাটারি আনছে ‘নিও’

    ঈদের আগে পদ্মা সেতুতে চলছে না মোটরসাইকেল

    হিজবুল্লাহর ৩টি ড্রোন ভূপাতিত করার দাবি ইসরায়েলের

    ঢাবির ‘ক’ ইউনিটের ফল সোমবার

    কাওরানবাজার থেকে সরানো হচ্ছে কাঁচাবাজার

    বাবরসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন বিষয়ে আরও শুনানি ১৮ জুলাই

    রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে জাতীয় পার্টির ঈদ শুভেচ্ছা