Alexa
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২

সেকশন

epaper
 

আফগানিস্তানে শিশু ও তরুণীদের বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে

আপডেট : ৩১ মার্চ ২০২২, ১৫:৫৮

সীমাহীন দারিদ্র্য আর বেকারত্ব চেপে বসেছে আফগানিস্তানে। ছবি: আল-জাজিরার সৌজন্যে আফগানিস্তানের মানুষ বেঁচে থাকার প্রয়োজনে শিশু ও তরুণীদের বিক্রি করে দিচ্ছেন বলে এক খবর প্রকাশ করেছে কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা। 

আজ বৃহস্পতিবার আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফারাহানাজ নামের এক নারী নিজের পরিচয় লুকাতে একাধিকবার নিজের নাম পরিবর্তন করেছেন। তিনি গত ২৪ ঘণ্টায় মাত্র একবার খাবার খেতে পেরেছেন। উত্তর আফগানিস্তানের ২৪ বছর বয়সী প্রাক্তন এই রেডিও উপস্থাপক আল-জাজিরাকে বলেছেন, ‘আমরা বড় মানুষ। আমরা না হয় অভুক্ত থাকতে পারি, কিন্তু বাচ্চারা যখন খাবারের কথা জিজ্ঞেস করে, তখন কী বলব বুঝতে পারি না।’ 

আফগানিস্তানে অনেক পরিবারই শুধু রুটি, সবজি আর সবুজ চা ছাড়া তেমন কোনো খাবার জোগাড় করতে পারছে না। চায়ে চিনি দেওয়া এখন বিলাসিতায় পরিণত হয়েছে। ফারাহানাজ জানিয়েছেন, তাঁর পরিবারে আটজন সদস্য। পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিলেন শুধু তিনিই। গত আগস্টে তালেবানরা আফগানিস্তান দখল করার পর তাঁর চাকরি চলে গেছে। এখন তিনি পরিবারের অন্ন জোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছেন। 

ফারাহানাজ করুণ কণ্ঠে বলেন, ‘আমার ছোট বোন তখন মাত্রই অস্ত্রোপচার থেকে সেরে উঠেছিল। আর তখনই তালেবানরা ক্ষমতা দখল করে নিল। আমার চাকরিটা চলে গেল। জীবনটাই উল্টে গেল। এখন ছোট বোনটি আমার খাবার না পেয়ে শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে। তার ওজন ভয়াবহভাবে কমে গেছে। আমরা তার চিকিৎসাও ঠিকমতো করাতে পারছি না।’ 

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের ডেপুটি বিশেষ প্রতিনিধি ড. রমিজ আলাকবারভ বলেছেন, ‘আফগানিস্তানে ফারাহানাজের মতো প্রায় ২ কোটি ৩০ লাখ ক্ষুধার্ত পরিবার রয়েছে। দেশটিতে অবিশ্বাস্যভাবে ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। ভয়াবহভাবে দারিদ্র্য বাড়ছে সেখানে।’ 

এ মাসের শুরুর দিকে এক বিবৃতিতে আলাকবারভ বলেছিলেন, ‘আফগানিস্তানের জনসংখ্যার ৯৫ শতাংশ এখন খাবার পাচ্ছে না। ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা এত বেশি যে তা কল্পনা করা যাচ্ছে না। এটি এক কঠিন, কঠোর বাস্তবতা। আর যেসব পরিবারে নারীই একমাত্র উপার্জনকারী, সেই সব পরিবার শতভাগ ক্ষুধার্ত অবস্থায় আছে।’ 

ফারাহানাজ অশ্রুসজল গলায় বলেন, ‘যখন আমাদের দিন ভালো ছিল, আমি রেডিও উপস্থাপক ছিলাম, পাশাপাশি খণ্ডকালীন শিক্ষকতা করতাম এবং আমার ভাই আফগান নিরাপত্তা বাহিনীতে কাজ করত, তখন পরিবারের আটজন সদস্যকে খাওয়াতে খুব একটা সমস্যা হয়নি। কিন্তু এখন আমাদের অবস্থা এতটাই খারাপ যে বলার মতো নয়। তিনবেলা খাবার জোটাতে পারছি না।’ 

সীমাহীন দারিদ্র্য আর বেকারত্ব চেপে বসেছে আফগানিস্তানে। ছবি: আল-জাজিরার সৌজন্যে তিনি জানান, তালেবানরা ক্ষমতা দখলের পর তাঁর ভাই নিপীড়নের ভয়ে দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হন। ফলে ফারাহানাজই এখন তাঁর পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। ফারাহানাজ বলেন, ‘গত সাত মাস ধরে আমার চাকরি নেই। পরিবারকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য নিদারুণ লড়াই করতে হচ্ছে।’ 

ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব জার্নালিস্ট জানিয়েছে, তালেবানরা ক্ষমতায় ফিরে আসার পর থেকে গণমাধ্যমে কর্মরত প্রায় ৬০ শতাংশ নারী তাদের চাকরি হারিয়েছেন। এদের মধ্যে ৯০ শতাংশেরও বেশি ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী। 

এদিকে আফগানিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পুষ্টির অভাবে ২০২২ সালে প্রায় ১৩ হাজার ৭০০ নবজাতক মারা গেছে। একই সঙ্গে ২৬ জন মা মারা গেছেন। 

ফারাহানাজ কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘লাখ লাখ আফগান হতাশার মধ্যে ডুবে আছে। খাবার নেই। কাজ নেই। সীমাহীন দারিদ্র্য আর বেকারত্ব চেপে বসেছে। মানুষ বেঁচে থাকার প্রয়োজনে শিশুদের বিক্রি করে দিচ্ছে। তরুণীদেরও বিক্রি করে দিচ্ছেন অনেকে। তবু আফগানরা বাঁচতে পারছে না। বেঘোরে মারা যাচ্ছে।’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতামূলক সম্পর্ক অব্যাহত রাখবে ইন্দোনেশিয়া

    ভাইকে ৪৩৪ মিটার লম্বা চিঠি লিখলেন বোন

    একনাথ সিন্ধে নয়, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হতে পারেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ

    চাকরি ছাড়ার দুদিনের মধ্যে পাওনা মেটানোর আইন ভারতে

    ভারতের পরিত্যক্ত হাসপাতাল থেকে ৪ জনের মরদেহ উদ্ধার

    ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিলেন ফার্দিনান্দ মার্কোস জুনিয়র

    ‘বই নষ্ট হয়ে গেছে, পড়ব কী’

    সহযোদ্ধার শেষ বিদায়ে কাঁদলেন খাদ্যমন্ত্রী

    বুয়েটে ভর্তির সুযোগ পেলেন সৈয়দপুরের এক কলেজের ১৬ শিক্ষার্থী

    আবেদনের ৮ বছর পর লিখিত পরীক্ষার জন্য ডেকেছে বাপেক্স

    ছয় দফাকে কবর দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন হয় না: গণফোরাম

    ছাত্রলীগ নেতার মরদেহ উদ্ধার, পরিবার বলছে প্রেমের কারণে আত্মহত্যা