Alexa
রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

ব্যাংকে দেড় লাখ কোটি টাকা অতিরিক্ত তারল্য, এলসি খোলাও স্বাভাবিক: বাংলাদেশ ব্যাংক

আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০২২, ২০:৪৫

ফাইল ছবি ব্যাংকগুলো প্রতিদিনই বাণিজ্যিক ঋণপত্র (এলসি) খুলছে। তবে কিছু কিছু সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। ডলারের কিছু সংকট থাকলেও এলসি খোলা বন্ধে নির্দেশনা জারি করেনি বাংলাদেশ ব্যাংক। পাশাপাশি দেশের ব্যাংকগুলোতে কোনো তারল্য সংকটও নেই বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। 

আজ সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র জিএম আবুল কালাম আজাদ। মূলত সমসাময়িক বিষয় এবং আমানতকারীদের আশ্বস্ত করতেই এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এতে উপস্থিত ছিলেন। 

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘সক্ষমতা অনুযায়ী ব্যাংকগুলো পণ্যের বিপরীতে এলসি খুলছে। বাজারের চাহিদা মেটানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়মিত ডলার সহায়তা দিচ্ছে ও ভবিষ্যতেও দেবে।’ 

তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ষড়যন্ত্রমূলক খবর প্রচারিত হচ্ছে। সেখানে বিনিয়োগকারীদের ব্যাংকের আমানত তুলে নেওয়ার জন্য বলা হচ্ছে। বলা হচ্ছে ব্যাংকগুলোতে নগদ অর্থ নেই বা তারল্য সংকট আছে। কিন্তু এটি সত্য নয়। বাংলাদেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থা অত্যন্ত সুদৃঢ় অবস্থায় রয়েছে। ব্যাংকিং ব্যবস্থায় তারল্যের কোনো সংকট নেই। ব্যাংক ব্যবস্থায় বর্তমানে ১ লাখ ৬৯ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকার অতিরিক্ত তারল্য রয়েছে।’ 

ব্যাংকের তারল্য পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকের সব ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের কাছে বিশেষ সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। কোনো ব্যাংকের তারল্য ব্যবস্থাপনায় কোনো ব্যত্যয় থাকলে বাংলাদেশ ব্যাংক তা সর্বোচ্চ গুরুত্বসহ সমাধানে পদক্ষেপ নেবে বলেও উল্লেখ করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ মুখপাত্র। 

আমানতকারীদের আশ্বস্ত করে আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘তারল্য ব্যবস্থাপনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের রেপো ও অ্যাশিউরড লিকুইডিটি সাপোর্ট নীতি সর্বদা চালু রয়েছে। ব্যাংকের পরিদর্শন ও সুপারভিশন বিভাগ ব্যাপকভাবে তৎপর রয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫১ বছরে কোনো ব্যাংক বন্ধ হয়নি। আশা করা যায়, আগামীতেও বাংলাদেশের কোনো ব্যাংক বন্ধ হবে না। ব্যাংকগুলোতে জনগণের আমানত সম্পূর্ণ নিরাপদ রয়েছে। ব্যাংকে জনগণের সংরক্ষিত আমানত নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার মতো কিছু ঘটেনি।’ 

তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানি কমাতে শতভাগ এলসি মার্জিন নির্ধারণের পাশাপাশি এলসি খোলার আগে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনাপত্তি নিতে হচ্ছে। সব ঠিক থাকার পরও কিছু ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক বলে দিচ্ছে, এই এলসি খোলা যাবে না। বিশেষ করে গাড়ি, টিভি, ফ্রিজ, ফুল, ফলের মতো পণ্য আমদানিতে অনেক ক্ষেত্রে অনাপত্তি দিচ্ছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক। কারণ এসব পণ্য দ্রুত আসে এবং দায় পরিশোধও করতে হয় দ্রুত। এসব পণ্যের বাইরে অন্য যে কোনো ক্ষেত্রে ডলার সংস্থান না করে এলসি না খোলার বিষয়ে সতর্ক করা হচ্ছে। অধিকাংশ ব্যাংক এখন এলসি খোলার আগে আমদানিকারককে ডলার সংগ্রহ করার শর্ত দিচ্ছে। আর আগের দায় পরিশোধে দফায় দফায় সময় নিচ্ছে। 

নতুন এলসি কমলেও বাকি বা দেরিতে পরিশোধের শর্তে আগে খোলা এলসির দায় পরিশোধের পরিমান বেড়েছে। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার খরচ কমেনি। চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে এলসি খোলা ৮ দশমিক ৫৭ শতাংশ কমলেও আমদানির দায় পরিশোধ বেড়েছে ১১ দশমিক ৭০ শতাংশ।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    কাস্টমস দিবসে স্বীকৃতি পেল জিহান ফুটওয়ার

    চিনির দাম কেজিতে বাড়ল ৫ টাকা

    সাড়ে ৩৪ লাখ টাকায় মিলবে এসইউভি

    ‘ক্যাশ লেস বাংলাদেশ’ উদ্যোগের সঙ্গে এবি ব্যাংকের একাত্মতা

    শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণের সুদে বড় ছাড়

    ‘ঋণ ও আর্থিক খাতের ঝুঁকি’ জানতে চায় আইএমএফ

    শেখ মুজিব সাফারি পার্কে দর্শণার্থীদের কাছে আকর্ষণের নাম কমনইল্যান্ড

    আজকের রাশিফল

    ঝুঁকি নিয়ে বিশেষ ট্রেনের ছাদে উঠে সমাবেশে যাচ্ছেন নেতা-কর্মীরা 

    ক্ষমা করার সুফল পাবে তো আওয়ামী লীগ?

    এমন ঐক্য যদি সব ক্ষেত্রে হতো!

    সুচিত্রা সেনের মঞ্চনাটক