মহানবী (সা.), মসজিদের ইমাম এবং ইসলামের নানা বিষয়ে ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে বাউলশিল্পী শরিয়ত বয়াতীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ১১ জানুয়ারি শনিবার সকালে ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার বাশিল এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বয়াতি শরিয়ত সরকার মির্জাপুর উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের আগধল্যা গ্রামের পবন মিয়ার ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বয়াতি শরিয়ত সরকার গত ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলার রৌহাট্রেক পীর হযরত হেলাল শাহ’র দশম বাৎসরিক মিলনমেলায় পালাগানের অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন। এ সময় তিনি বলেন, গান-বাজনা হারাম কোরআনে কোথাও লেখা নেই। এছাড়াও অভিযোগ আছে যে তিনি বলেছেন, দাউদ (আ.) নবী কোনো নবী না, তিনি বয়াতি ছিলেন। রাসুল (সা.) গান না শুনে ঘুমাইতেন না।

স্থানীয়দের দাবি, সেখানে শরিয়ত সরকার আরও বলেছেন, নবীজি আবু মুসা আশয়ারী (র.)’কে ২৩ রকমের গানের বাদ্যযন্ত্র হাদিয়া প্রদান করিয়াছেন। ওই সব বাদ্যযন্ত্র দাউদ নবীর ছিল। এছাড়া মসজিদের ইমাম ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে ভুল ব্যাখা দিয়েও বক্তব্য রাখেন বলে এলাকাবাসীর দাবি।

যারা নামাজ পড়ে, সেজদা দিয়া কপালে কালো দাগ করে- তাদের কপাল থেকে ১১৩টি কিরা বের হয়- শরিয়তের এমন বক্তব্য পরবর্তীতে ইউটিউবের মাধ্যমে ভাইরাল হয়। গত ৯ জানুয়ারি উপজেলার আগধল্যা গ্রামের শওকত আলীর ছেলে মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় মামলা করেন। এছাড়া শরিয়ত বয়াতীকে গ্রেফতারের দাবিতে ধল্যা এলাকার লোকজন ৫ ও ৭ তারিখ ধল্যা বাজারে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে।

মির্জাপুর থানার এসআই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান শনিবার সকালে শরিয়ত বয়াতীকে গ্রেফতারের পর বিকেলে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে টাঙ্গাইলের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করেন। আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আসলাম তার ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আজকের পত্রিকা/সিফাত