Alexa
শনিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

মাকে দ্রুত বাড়ি ফেরার কথা বলে ভার্সিটিতে গিয়ে লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সে ফিরল অজয়

আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩:৪৬

অজয়ের মা পাপিয়া রাণী মজুমদারের মাতম। ছবি: আজকের পত্রিকা প্রতিদিনের নিরবপল্লীতে আজ চলছে শোকের মাতম, বিষাদের সুরে ভারী হয়ে গেছে এলাকার বাতাস। গ্রামের সবাই বিস্মিত; সকলের প্রিয় অজয় ছেলেটি আজ চিরবিদায় নিচ্ছে। 

কিছুক্ষণ পর পরই ভেসে আসছে অজয়ের মা পাপিয়া রাণী মজুমদারের মাতম, অজয় তুই বলেছিলি, মা আমি আজ ইউনিভার্সিটি থেকে তাড়াতাড়ি ফিরে আসব। কিন্তু তুই তো এলি না।' সকালে তাড়াহুড়ো করে একটি রুটি খেয়ে গিয়েছিল অজয়। বিশ্ববিদ্যালয় ছুটি হলে বাড়িতে এসে পেটভরে ভাত খাওয়ার কথা বলেছিল। তাও খাওয়া হলো না তাঁর। 

অজয়ের ভাই বিজয় বুক চাপড়ে মাতম করছেন, 'আমি কেন ঘুমিয়ে ছিলাম? যদি ভোরে ঘুম ভেঙে যেতো তাহলে একবার তো তাঁকে দেখতে পেতাম। সে আমাকে স্বপ্ন দেখিয়ে কেন চলে গেল? আমাকে একা রেখে তুমি তো এভাবে যেতে পারো না কলিজা! '

পরিবারের দুই ভাই এক বোনের মধ্যে সবার বড় অজয়কে নিয়ে মা বাবার স্বপ্ন ছিল আকাশ ছোঁয়া। প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার সকাল পৌনে ৮টায় চরবাটা খাসেরহাট রাস্তার মাথা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়িতে করে ক্লাসে যান। ক্লাস শেষ করে আবার একই গাড়িতে বিকেলে বাড়িতে আসার কথা ছিল। সেই বাড়ি ফিরলেন, তবে মরদেহ হয়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসের পরিবর্তে অ্যাম্বুলেন্সে। সোনাপুর সড়কে ট্রাকচাপায় তাঁর মৃত্যু হয়। রাত পৌনে ৯টার দিকে ময়নাতদন্ত শেষে অজয়ের মরদেহ বহনকারী গাড়িটি নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের কাজল মার্কেট নিজ বাড়িতে পৌঁছায়। 

অজয় ২০১৪ সালে চরবাটা খাসের হাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ২০১৬ সালে সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। পরে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনফরমেশন সায়েন্স অ্যান্ড লাইব্রেরি ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ভর্তি হন। তৃতীয় বর্ষে এসে আটকে গেল তাঁর যাত্রা। 

এলাকার সহপাঠী কামরুল ইসলাম টুটুল বলেন, ছোটবেলা থেকে একসঙ্গে চলাফেরা করেছি। অজয় অত্যন্ত মেধাবী ও ভদ্র ছিল। নিয়মিত সহপাঠীদের সঙ্গে খেলাধুলা করত। পড়া লেখার পাশাপাশি এ বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতিতে যুক্ত হতে চেয়েছিল। 

অজয়ের মা পাপিয়া মজুমদার বলেন, পড়ালেখা শেষ করে একই বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করে মায়ের পাশে থাকার কথা বলত সব সময়। 

চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়াউল হক জানান, সোনাপুর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অজয়ের মরদেহ চরজব্বার থানা এলাকায় রিসিভ করে সৎকারের বিষয়ে সরেজমিনে তদারকি করে ও শোকাহত পরিবারকে সান্ত্বনা দেওয়া হয়েছে। 

সুবর্ণচর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আরিফুর রহমান বলেন, অজয়ের পরিবারের প্রতি নোয়াখালী জেলা প্রশাসক মহোদয় ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সান্ত্বনা দেওয়া হয়। এই সময় শোকাহত পরিবারকে শেষ কাজ সম্পূর্ণ করতে জেলা প্রশাসনের আর্থিক সহায়তা অজয়ের মায়ের নিকট পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রাজশাহীতে ট্রাক-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ১

    জমি লিখে না দেওয়ায় মা'কে গলা টিপে হত্যা

    মুড়িকাটা পেঁয়াজে কমছে দাম

    বিশ্বে একদিনে করোনায় মৃত্যু প্রায় সাড়ে ৯ হাজার

    আষাঢ়ে নয়

    আবারও কাঁদলেন টুনটুন

    নিজস্ব ভবন ছাড়াই তিন বছর

    সাবুদানার ডেজার্ট

    অ্যামি জ্যাকসনের সৌন্দর্য-রহস্য