Alexa
শুক্রবার, ২১ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা

যত্রতত্র ভাগাড়, ভোগান্তি

আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২০

সড়কের পাশে ময়লার ভাগাড়। গতকাল চুয়াডাঙ্গা–আলমডাঙ্গা–কুষ্টিয়া সড়কের ঘোড়ামারা সেতুর কাছ থেকে তোলা। ছবি: আজকের পত্রিকা ডাম্পিং স্টেশন না থাকায় যেখানে সেখানে ময়লা ফেলছে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা। বাসাবাড়ি, প্রতিষ্ঠান ও শিল্প কারখানার বর্জ্য সংগ্রহ করে তা বিভিন্ন জনবহুল এলাকাসহ নদীর পাড়ে ফেলছে পৌর কর্তৃপক্ষ। এতে হুমকির মুখে পড়ছে পরিবেশ-প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্য। তেমনি দুর্ভোগে রয়েছে পৌরবাসী। এ ছাড়া পর্যাপ্ত ডাস্টবিনও নেই পৌর এলাকায়। যেগুলো রয়েছে তাও অযত্ন-অবহেলায় ভেঙে পড়েছে।

এদিকে শিগগিরই পৌরবাসী এ সমস্যা থেকে রেহাই পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন। তিনি জানান, ডাম্পিং স্টেশনের কাজ চলছে। আগামী ৬ মাসের মধ্যে ডাম্পিং স্টেশনের কাজ শেষ হবে।

চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা সূত্র জানা গেছে, ইতিমধ্যে বর্জ্য শোধনাগারের প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ করছে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা। বিশাল এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে শহর থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে ২ নম্বর ওয়ার্ডের গাইদঘাট রোডের পাশে ৩ একর জমিতে। যার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে।

সূত্র আরও জানায়, চুয়াডাঙ্গা শহরের যত ময়লা-আবর্জনা তা সব এক স্থানে জমা হবে। এরপর সেই আবর্জনা শোধন করে তৈরি হবে জৈব সার, প্লাস্টিকের পণ্য ও অন্যান্য দ্রব্য। ডাম্পিং স্টেশনের প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ৭ কোটি ৫৮ লাখ ৬৬ হাজার ৬৩৪ টাকা। ৬ মাসের মধ্যে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হবে। এ কাজটি শুরু হয়েছে ২০২০ সালের মার্চে। শিগগিরই এ দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পাবে পৌরবাসী।

চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা সেলিমুল হাবিব বলেন, চুয়াডাঙ্গার অন্যতম একটি সমস্যা ময়লা আবর্জনা। আমরা রাস্তায় চলাফেরা করতে পারি না। উৎকট গন্ধের কারণে সামাজিক পরিবেশ ও প্রকৃতির আবহাওয়ায় চরম ক্ষতি হচ্ছে। কিন্তু এখন পৌরসভা একটা বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য ডাম্পিং স্টেশনের উদ্যোগ নিয়েছে। এবার আমরা নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারব।

কথা হয় পৌর এলাকার কেদারগঞ্জের সাইদুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমাদের শহরের যত ময়লা আবর্জনা সবই সড়কের আশপাশে ফেলা হয়। এতে রাস্তায় চলাচল করতে চরম অসুবিধা হয়। কিন্তু এখন পৌরসভা ডাম্পিং স্টেশন তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে। আশা করি খুব দ্রুতই আমরা পৌরবাসী এই ময়লা আবর্জনার হাত থেকে রেহাই পাব।’

একই এলাকার আবু বক্কর জানান, যেখানে-সেখানে ময়লা ফেলানোয় পৌরবাসী একটা ভাগাড়ে বসবাস করছে। যদি ডাম্পিং স্টেশনের কারণে এসব ময়লা আবর্জনা থেকে মুক্তি মিলে তবেই শহর বাসযোগ্য হবে।

চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন বলেন, পৌরবাসীর দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ শহরের ময়লা আবর্জনা। আমাদের পৌরবাসী একটু সচেতন হলে যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা থাকবে না। এ ছাড়া চুয়াডাঙ্গা পৌর ডাম্পিং স্টেশনের কাজ চলছে। আশা করছি আগামী ৬ মাসের মধ্যে ডাম্পিং স্টেশনের কাজ শেষ হবে। চুয়াডাঙ্গার যত ময়লা আবর্জনা সব এক জায়গায় জমা হবে। এভাবে পৌরবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবি পূরণ হবে। সেই সঙ্গে রাস্তায় বা যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনার আর দেখা মিলবে না।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    দোয়া সফলতার হাতিয়ার

    শ্রীবরদীতে সারের কৃত্রিম সংকট, বেশি দামে বিক্রি

    ফ্যাশনেবল ফিউশন

    নিরাপদ অভিবাসন নিয়ে কর্মশালা

    ঘাটাইলে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৩ অবৈধ ইটভাটা

    ‘বাহে এবার জারোত থাকি মুই বাঁচিম বাবা’

    গৃহযুদ্ধের কিনারায় যুক্তরাষ্ট্র!

    দক্ষিণখানে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে মেম্বর প্রার্থী গ্রেপ্তার 

    দক্ষিণখানে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

    রাবিতে সশরীরেই চলবে ক্লাস-পরীক্ষা