Alexa
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

বাবা বিখ্যাত হলে যে সমস্যা

আপডেট : ১৪ জুলাই ২০২১, ১৩:৩৫

জাফর পানাহি। ছবি: ইনস্টাগ্রাম বিশ্বনন্দিত ইরানি সিনেমা নির্মাতা জাফর পানাহির ছেলে পানাহ পানাহি প্রথমবারের মতো চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। নাম ‘হিট দ্য রোড’। ছবিটির ক্যামেরাম্যান পানাহর বোন সোলমেজ পানাহি। ইরানে নিষিদ্ধ পরিচালক জাফরের ছেলের এই সিনেমা প্রথমবারের মতো দেখা গেল কানে। এই বছর ৭৩তম কান উৎসবে সিনেমাটি ‘ডিরেক্টরস ফোর্টনাইট’ বিভাগে প্রতিযোগিতা করছে। ‘ইয়ার অব দ্য এভারলাস্টিং স্ট্রম’ এন্থলজি শর্টফিল্ম বানিয়ে প্রশংসিত হয়েছিলেন। পানাহ বলেন, ‘সিনেমা নির্মাণের আগে থেকেই জানি যে আমার প্রথম লড়াইটা হবে আমার বাবার সঙ্গে। আমার বাবা কানে ১৯৯৫ সালেই পুরস্কিত হয়েছেন। আর মানুষ তাঁর সঙ্গে আমার তুলনা শুরু করবেন, এটাই স্বাভাবিক। যেটা আমার বাবার জন্য অস্বস্তির। কারণ তিনি চান যে আমার মৌলিক কোনো কৃতিত্ব থাকুক যার জন্য তিনি গর্ববোধ করতে পারেন। সারাজীবন আমি সেই চেষ্টাই করব। আর তার প্রথমধাপ এই সিনেমা। সিনেমাটি নির্মাণের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিলো বাবার ছিটেফোঁটাও যেন এখানে আশ্রয় না পায়।’

এক ইরানি পরিবারের রোড ট্রিপের গল্প দেখানো হয়েছে ‘হিট দ্য রোড’ সিনেমায়। সিনেমায় ইরানের সমাজটাকেই তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। এর আগে বাবার সহকারী হিসেবে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন পানাহ। নিজের প্রথম সিনেমায় বাবার সাহায্য ছিলো না? ভ্যারাইটিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পানাহ বলেন,‘স্ক্রিপ্ট লিখে আমি বাবাকে দেখিয়েছি। বললাম আমি এই স্ক্রিপ্টে খুব শীঘ্রই শুটিং শুরু করতে চাই। বাবা কোনো কারেকশন দেননি। তবে পোস্ট প্রডাকশনে অনেক হেল্প করেছেন।’

পানাহ পানাহি। ছবি: ইনস্টাগ্রাম দুই বছর আগে ৭১তম কান উৎসবেও পুরস্কৃত হয়েছিল জাফর পানাহির ছবি ‘থ্রি ফেসেস’। ছবিটি জিতে নিয়েছে আসরের সেরা চিত্রনাট্যকারের পুরস্কার। তবে ‘গৃহবন্দি’ থাকার কারণে পুরস্কার নিতে পারেননি পানাহি। এই ছবিটি এডিটিং করেছিলেন পানাহ।

ইরান সরকার রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে এনে ২০১০ সালে স্ত্রী-কন্যাসহ জাফর পানাহিকে গ্রেপ্তার করে। তখন তাকে ছয় বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়, সঙ্গে ২০ বছর চলচ্চিত্র নির্মাণে নিষেধাজ্ঞাও। কারাভোগের পর এই নির্মাতাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়। বিদেশ ভ্রমণ ও সব রকম সাক্ষাৎকার দেওয়াতেও দেশটির আদালত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন।

বোন সোলমেজ পানাহি ও অভিনেত্রী বেহনেজ জাফরিকে নিয়ে কানের রেড কার্পেটে পানাহ। ছবি: ইনস্টাগ্রাম এরপরও থমকে যাননি ৬১ বছর বয়সী এই হার না মানা নির্মাতা। সব প্রতিবন্ধকতাকে পায়ে ঢেলে নির্মাণ করে গেছেন চলচ্চিত্র। বন্দি জীবনে মোট চারটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন তিনি। এর একটিই হলো ‘থ্রি ফেসেস’।

ফ্রান্স সরকার ইরান সরকারের কাছে পানাহিকে আসতে দেওয়ার সুপারিশ করলেও তাতে কাজ হয়নি। তার সম্মানে সেই বছর সংবাদ সম্মেলনের একটি চেয়ার শূন্য রাখা হয়।

‘থ্রি ফেসেস’ নির্মাণ করাটা এতো সহজ ব্যাপার ছিলো না। নিষেধাজ্ঞা কাঁধে নিয়ে লুকিয়ে পুরো ছবির শুটিং শেষ করতে হয়েছে। সীমান্তবর্তী তিনটি গ্রামে ছবিটির শুটিং হয়। স্থানগুলোর মধ্যে একটি পানাহির বাবার জন্মস্থান, একটি তার মায়ের আর অন্যটি তার দাদার। সেখানকার মানুষ পানাহিকে চেনেন তাই শুটিং করতে তেমন বেগ পেতে হয়নি। এমনভাবে এগিয়ে যাচ্ছে জাফর পানাহি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    শুভর স্ত্রীর কেমন লাগল ‘মিশন এক্সট্রিম’

    মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বলিউড ছবি ‘পিপ্পা’র বিশাল আয়োজনে শুটিং

    সংসার ভাঙল আরেক তারকা দম্পতির

    যে শর্তে বিয়ে করবেন সারা আলী খান

    ৪০ বছরে ৪০ লাখ!

    কেমন ছিল ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবির বিদেশযাত্রা?

    দেশে এখন উন্নয়নের মহাযজ্ঞ চলছে: মেয়র আতিকুল ইসলাম

    নিউজিল্যান্ডে যেতে না চেয়ে সাকিবের চিঠি

    হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী উপমহাদেশে রাজনীতি ও গণতন্ত্রের ইতিহাসে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র: রাষ্ট্রপতি

    পাকিস্তান সিরিজ বাতিলের অনুরোধ ছিল পাপনের কাছে

    এবার ভ্যাট নিবন্ধন নিল নেটফ্লিক্স

    ‘বাবা নেই, আমাদের ভালোবাসবে কে?’