Alexa
শনিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

কেমন ছিল ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবির বিদেশযাত্রা?

আপডেট : ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯:৫৬

কানাডায় ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবি দেখতে দর্শক। ছবি: ফেসবুক কানাডা ও আমেরিকায় শেষ হলো ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবির প্রদর্শনী। দীর্ঘ বিরতির পর প্রেক্ষাগৃহে ফিরল বাংলাদেশের সিনেমা, ফিরল বাংলাদেশের সিনেমার দর্শক। কোনো সন্দেহ ছাড়াই আমি বলতে পারি, সাম্প্রতিক সময়ে বাংলা ভাষায় সবচেয়ে সুনির্মিত আধুনিক প্রেমের সিনেমা ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’। প্রেম বা ভালোবাসার সম্পর্ক কোনো কাচের যুগের বিষয় নয় যে ইচ্ছেমতো ভেঙে গেল বা ফেললাম। ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ সিনেমাটির মূল বিষয় এটিই। অয়ন আর নীরা তাদের নিঃশ্বাসের বিয়ে দেয় এবং প্রতিজ্ঞা করে, তাদের দুজনের অর্ধেকটা দম মিলেমিশে এক হয়ে যাবে। তাই এর মাঝে একজন যখন আর একসঙ্গে নিঃশ্বাস নেয় না, অর্ধেকটা দম নিয়ে দিনের পর দিন আরেকজনের অস্বস্তিকর যন্ত্রণা হয়, জন্ম নেয় সঙ্গীকে ফিরে পাওয়ার ব্যাকুল অস্থিরতা,

‘অর্ধেকটা দম নিয়ে আমি

দিনের পর দিন বসে থাকি,

বাকিটা একসাথে নেব বলে’

কানাডা ও আমেরিকায় ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’-এর মুক্তি বেশ কিছু অসাধারণ ও অভাবনীয় ঘটনার জন্ম দিয়েছে। এ সিনেমা এখন পর্যন্ত উত্তর আমেরিকায় সবচেয়ে বড় থিয়েট্রিক্যাল রিলিজ পাওয়া বাংলাদেশি সিনেমা। নিউইয়র্কের টাইমস স্কয়ারের ফ্ল্যাগশিপ কোনো সিনেমা থিয়েটারে মুক্তি পাওয়া প্রথম কোনো বাংলাদেশি সিনেমা। উত্তর আমেরিকার দর্শকদের সবচেয়ে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা পাওয়া বাংলাদেশি সিনেমা।

মোহাম্মদ অলিউল্লাহ সজীব সপ্তক। ছবি: ফেসবুক উত্তর আমেরিকায় মাত্র দেড় মাস হলো সিনেমা থিয়েটারগুলো পূর্ণ ক্যাপাসিটিতে রান করছে। বড় বড় ইন্ডাস্ট্রির সব সিনেমাও নিয়মিতভাবে মাত্র মুক্তি পেতে শুরু করেছে। সব শ্রেণির দর্শক এখনো প্রেক্ষাগৃহে ফেরেনি। মাস্ক পরে দীর্ঘ লাইন ধরে ভ্যাক্সিনেশন প্রুফ দেখিয়ে হলে ঢোকাটাও অনেকের কাছে আরামদায়ক নয়। এর মধ্যেও 'ঊনপঞ্চাশ বাতাস' দেখতে বেশ ভালো পরিমাণ দর্শক সিনেমাহলগুলোতে গেছে এবং আমি যত দূর জানি, তাতে ঘোষণা দিয়ে বলতে পারি, প্রত্যেক দর্শক সিনেমাটি দেখে মুগ্ধ হয়েছে। শুধু মুগ্ধই হয়নি, তাদের কাছের মানুষদের সিনেমাটি দেখার জন্য রীতিমতো ইনসিস্ট করেছে। কয়েকজন তো এতই অভিভূত হয়েছে, সিনেমা দেখা শেষে নিজেরা তাদের প্রতিক্রিয়া শ্যুট করে ফেলেছে। আমাদের জন্য ভীষণ আনন্দ ও গর্বের—এর মধ্যে আমাদের সবার প্রিয় কবি আসাদ চৌধুরীও ছিলেন। স্বপ্ন স্কেয়ারক্রো'র কোনো কোনো সিনেমা টানা চার সপ্তাহও চলেছে এখানে, কিন্তু এমন উচ্ছ্বসিত দর্শক প্রতিক্রিয়া পায়নি আর কোনো সিনেমা এখন পর্যন্ত।

‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ছবির পোস্টার। মাসুদ হাসান উজ্জ্বল ভাইয়ের কাছে কৃতজ্ঞতা, এত সুন্দর একটি সিনেমা তিনি বানিয়েছেন। এখন অপেক্ষা তাঁর পরের সিনেমার জন্য। ব্যক্তিগতভাবে আমি চাইব সেটি ২০২২-এই চলে আসুক। বাংলাদেশ, উত্তর আমেরিকা আর ইউরোপে একসঙ্গে মুক্তি পেয়ে আরও বড় কিছু ঘটাক সেই সিনেমা।

মোহাম্মদ অলিউল্লাহ সজীব সপ্তক
বাংলাদেশি ছবির বিশ্ব পরিবেশক কানাডাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান স্বপ্ন স্কেয়ারক্রোর প্রেসিডেন্ট

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    স্ট্রিমিং ব্যবসায় বাদ যাবে না কোনো শিশু

    বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানালেন ডি ক্যাপ্রিও

    মা হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা

    ছেলের ছবির মুক্তি আটকাতে চান বাবা

    ‘টান’-এর ঝলকে টানটান চমক

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ

    মনোহরদীতে মোটরসাইকেল চালকের মৃত্যু

    পরীক্ষা শুরুর ২ মিনিটেই প্রশ্ন ফাঁস, ভাইস চেয়ারম্যানসহ গ্রেপ্তার ১০ 

    স্ট্রিমিং ব্যবসায় বাদ যাবে না কোনো শিশু

    দেশ উন্নত হলে কারওয়ান বাজারের চেহারা পাল্টাবে: মেয়র আতিক

    ইভিএম বক্স বঙ্গোপসাগরে ফেলে দেওয়া হবে: গয়েশ্বর