Alexa
শুক্রবার, ২১ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

বাবার কবরে চিরনিদ্রায় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম

আপডেট : ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯:৫৫

চিরনিদ্রায় শায়িত অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। ছবি: সৈয়দ মাহামুদুর রহমান  বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনকে যিনি নিজের ক্যামেরায় বন্দী করেছিলেন, যাঁর হাত ধরে শুরু হয়েছিল নজরুল গবেষণা, চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সেই অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। আজ বুধবার বিকেলে রাজধানীর আজিমপুর নতুন কবরস্থানে বাবা জুলফিকার আলির কবরে শায়িত করা হয় তাঁকে। 

এর আগে, বুধবার বাংলা একাডেমি ও শহীদ মিনারে জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের মরদেহে শেষ শ্রদ্ধা জানান বিভিন্ন সংগঠন ও শ্রেণি-পেশার মানুষ। এদিন বেলা দেড়টায় নজরুল গবেষক এই অধ্যাপকের মরদেহ বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে নেওয়া হয়। একাডেমির নজরুল মঞ্চে তাঁর কফিন শ্রদ্ধা জানাবার জন্য রাখা হয়। এরপর দুইটায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হয় মরদেহ। সেখানে প্রথমেই রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের পক্ষে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর শ্রদ্ধা জানানো হয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে। 

দেশের এই কৃতী সন্তানকে শ্রদ্ধা জানাতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, সাবেক তথ্য কমিশনার ও আজকের পত্রিকার সম্পাদক অধ্যাপক ড. গোলাম রহমানসহ বিশিষ্টজনেরা। 

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং বাঙালির অধিকার আদায়ের আন্দোলন-সংগ্রামে আত্মনিবেদিত ছিলেন অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক জাতি গঠনে তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন। তাঁর মৃত্যুতে বাঙালি জাতি বাংলা সাহিত্যের একজন কীর্তিমান গবেষক ও জাতির মেধা-মনন বিকাশের সুদক্ষ কারিগরকে হারাল।’ 

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের চলে যাওয়া একটা অপূরণীয় ক্ষতি। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে তাঁর কাজগুলোকে ছড়িয়ে দিতে হবে৷’ 

মেয়র ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘বাঙালির সম্প্রীতির ধারক ও বাহক ছিলেন অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। নজরুল গবেষণায় তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন। তাঁর বিদায় আমাদের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।’ 

রফিকুল ইসলামের সন্তান বর্ষণ ইসলাম বলেন, ‘আমরা আব্বুকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নিয়ে যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আব্বু দেশেই থাকতে চেয়েছেন। তাই আমরা ওনাকে বিদেশ নিয়ে যেতে পারিনি।’ 

শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে রফিকুল ইসলামের মরদেহ নেওয়া হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে। সেখানে তাঁকে শ্রদ্ধা জানান বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, সাংসদ আসাদুজ্জামান নূরসহ অনেকে। 

এ সময় আসাদুজ্জামান নূর বলেন, অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস তাঁর ক্যামেরায় বন্দী করেছিলেন। নজরুল গবেষণা শুরু করেছিলেন তিনি। সারাটা জীবন তিনি কাজ করে গেছেন। 

উল্লেখ্য, জাতীয় অধ্যাপক একুশে পদক ও স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম মঙ্গলবার রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম পেটের ব্যথা নিয়ে গত ৭ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিলেন। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাঁর ফুসফুসে পানি জমেছে বলে জানান চিকিৎসকেরা। পরে অবস্থার অবনতি হলে ২১ নভেম্বর বিএসএমএমইউ থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালে তাঁকে স্থানান্তর করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল মঙ্গলবার সেখানে মারা যান তিনি। 

অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রথম নজরুল অধ্যাপক ও নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রথম পরিচালকও ছিলেন তিনি। তিনি বাংলা একাডেমির সভাপতি, ফেলো, মহাপরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসের উপাচার্য ছিলেন। জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণায় অবদানের জন্য স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদক পেয়েছেন। এ ছাড়া তিন বছর বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন তিনি।    

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    পুলিশ পদক পাচ্ছেন ২৩০ সদস্য

    দুর্নীতি রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে ডিসিদের সহযোগিতা চায় দুদক

    বন্ধ হচ্ছে পাওয়ার অব অ্যাটর্নি

    সব দোষ র‍্যাবের ঘাড়ে চাপানো অবিচার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    নদীর দূষণ-দখল রোধে ডিসিদের নজরদারির নির্দেশ

    দেশে করোনায় আরও ৪ মৃত্যু, আক্রান্ত শনাক্ত প্রায় ১১ হাজার

    ‘বাহে এবার জারোত থাকি মুই বাঁচিম বাবা’

    গৃহযুদ্ধের কিনারায় যুক্তরাষ্ট্র!

    দক্ষিণখানে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে মেম্বর প্রার্থী গ্রেপ্তার 

    দক্ষিণখানে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

    রাবিতে সশরীরেই চলবে ক্লাস-পরীক্ষা