Alexa
শুক্রবার, ২১ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

ডুমুরিয়ার শুঁটকি যাচ্ছে ভারত ও মালয়েশিয়ার বাজারে

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৬:০৪

ডুমুরিয়ার শুঁটকি যাচ্ছে বিদেশের বাজারে। ছবি: আজকের পত্রিকা ডুমুরিয়ায় সালতা নদীর তীরে গড়ে উঠেছে শুঁটকি মাছের প্রজেক্ট। স্বাস্থ্যসম্মতভাবে উৎপাদিত এখানকার শুঁটকি মাছ বিদেশের বাজারে সুনাম কুড়াচ্ছে। তাই শুঁটকি উৎপাদনে এখানে ব্যাপক ধুম পড়েছে।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, ডুমুরিয়া উপজেলার গুটুদিয়া ইউনিয়নের টিয়াবুনিয়া এলাকা। এখানে গত দুই মাস আগে এক মালয়েশিয়া প্রবাসীর উদ্যোগে গড়ে উঠে মেসার্স নূর ভাই ভাই ফিস ট্রেডিং নামক শুঁটকি মাছের প্রজেক্ট। 

সরেজমিনে দেখা যায়, সালতা নদীর তীরে বাঁশের মাচার বিশাল চাতালে প্রতিদিন ১ টনেরও বেশি মাছ শুকানো হচ্ছে। শুঁটকি মাছের প্রজেক্টের এ কর্মযজ্ঞে অর্ধশত নারী-পুরুষ শ্রমিক প্রতিদিন সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন। এদের অধিকাংশের বাড়ি খুলনার কয়রা এলাকায়। সূর্যের প্রখর তাপে শুকানো হচ্ছে সাগরের বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। মাছগুলোকে যেন পোকামাকড়ে নষ্ট না করতে পারে সে জন্য কাঁচা অবস্থায় ১০ মিনিট লবণ পানিতে ভিজিয়ে রৌদ্রে শুকানো হয়। এখানে ফাইস্যা, লইট্টা, চ্যাপা, রুপচাঁদা, শৈল, হাঙর, ইলিশ, ভোলা ও দেশীয় পুঁটিসহ প্রায় ৩০ থেকে ৩৫টি প্রজাতির মাছ শুকানো হয়।

এ প্রসঙ্গে শুঁটকি পল্লির ম্যানেজার রিপন দাস বলেন, ‘নিয়মিত সূর্যের তাপে ৩ থেকে ৪ দিনের মধ্যেই কাঁচা মাছ শুকিয়ে শুঁটকিতে পরিণত হয়। আমাদের উৎপাদিত শুঁটকি দেশের বাজারের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে।’

এ বিষয়ে নূর ভাই ভাই ফিশ ট্রেডিংয়ের মালিক প্রবাসী মো. নুর ইসলাম বলেন, ‘আমার বাড়ি খুলনার নতুন বাজার এলাকায়। আমি দীর্ঘ ১৪ বছর যাবৎ মালয়েশিয়া থেকে শুঁটকি মাছের ব্যবসা করছি। সেখানেই আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু বর্তমানে করোনার কারণে বন্ধ আছে। তাই দেশে এসে শুঁটকির ব্যবসা শুরু করি। আমি বাঁশের খুঁটি এবং চালা তৈরি করে মাটি থেকে ৫ / ৭ ফুট উঁচুতে চাতাল করেছি। আমার এ প্রজেক্টে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে শুঁটকি উৎপাদন করা হয়। শুধুমাত্র লবণ পানি ছাড়া আর কোনো কীটনাশক ব্যবহার করা হয় না।’ 

মো. নুর ইসলাম আরও বলেন, ‘স্বাস্থ্যসম্মত প্রক্রিয়ায় শুঁটকি মাছ প্রস্তুত করায় বিদেশের বাজারে এর চাহিদা অনেক বেশি। যে কারণে আমি সরাসরি ভারত ও মালয়েশিয়ায় শুঁটকি রপ্তানি করতে পারছি।’ 

বৈধ কাগজপত্রের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ব্যবসা সবেমাত্র শুরু করেছি। তাই যাবতীয় কাগজপত্র হাতে পেতে কিছু তো সময় লাগবে। সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলোতে আবেদন করেছি। আশা করি খুব শিগগিরই পেয়ে যাব।’

তবে এলাকাবাসীর অভিযোগ আছে, পোকা মাকড় থেকে রক্ষা এবং শুঁটকির স্থায়িত্ব বাড়াতে অধিকাংশ শুঁটকি পল্লিতে ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক। যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই সকল শুঁটকি পল্লিতে প্রশাসনের তদারকির দাবি এলাকাবাসীর।  

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    শার্শায় শাকিব হত্যার ৩ আসামি গ্রেপ্তার

    ভেড়ামারায় পানিতে ডুবে দেড় বছরের শিশুর মৃত্যু

    ভবদহে বোরো অনিশ্চিত

    নিখোঁজের ৫ দিন পর বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার

    ঝিকরগাছায় গরু ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

    চুয়াডাঙ্গায় আইসোলেশন থেকে রোগী পালানোর ঘটনায় ওয়ার্ডবয়কে শোকজ

    ‘বাহে এবার জারোত থাকি মুই বাঁচিম বাবা’

    গৃহযুদ্ধের কিনারায় যুক্তরাষ্ট্র!

    দক্ষিণখানে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে মেম্বর প্রার্থী গ্রেপ্তার 

    দক্ষিণখানে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

    রাবিতে সশরীরেই চলবে ক্লাস-পরীক্ষা