Alexa
শনিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

কয়েক ছত্র

‘দুনিয়াডা বেদ্দপের’

আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০২১, ২০:৫৩

সৈয়দা সাদিয়া শাহরীন। অলংকরণ: মীম রহমান সন্ধ্যা নেমেছে। ফুটপাত দিয়ে হাঁটছি আমরা তিন সহকর্মী। মনের অজান্তে একটা মোটরবাইককে জায়গা দিয়ে দিলাম, পাশ কেটে চলে গেল ফুটপাতের ওপর দিয়ে। হঠাৎ খেয়াল হলে তিনজনই আলোচনা করতে থাকলাম বিষয়টা নিয়ে। ফুটপাত নিশ্চয় যানবাহন চলাচলের পথ না, হাঁটার পথ।

এই আলোচনা করতে করতে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে আমাদের সামনে উঠে এল আরও একটা মোটরবাইক। আরোহী সংখ্যা দুই। পথ আটকে দাঁড়ালাম আমরা। আমার এক সহকর্মী বললেন, ‘এই ভাই এই, এটা তো ফুটপাত, হাঁটার রাস্তা। আপনি বাইক উঠিয়েছেন কেন?’

চালক উত্তর দিলেন, ‘জি ভাই 
জি। নামছি।’
আমি নামার জায়গা দিয়ে বললাম, ‘জি ভাই জি ভাই না করে নামেন।’
চোখ গোল গোল করে রাঙিয়ে চালকের জবাব এল, ‘নামমু না!’

এ কথা বলে আমাদের পাশ কাটিয়ে ফুটপাতের ওপর দিয়েই চলে গেল সেই মোটরবাইক। আমার অন্য সহকর্মী রেগে গিয়ে শুধু বললেন, ‘অসভ্য।’ তারা শুনতে পেয়েছে কি না, জানি না।

এরপর আরও কয়েকটি সাইকেল ও মোটরবাইক আমাদের পাশ কাটিয়ে ফুটপাতের ওপর দিয়ে সাঁই সাঁই করে চলে গেল। আমরা কাউকে আর কিছু বলতে পারলাম না। ব্যর্থ হয়ে নিজেদের বোঝালাম, এদের কিছু বলে লাভ নেই। ওহ, সেই যানবাহনের চালকদের অসংখ্য ধন্যবাদ। তারা আমাদের কোনো ক্ষতি করেনি। আমরা প্রাণে বেঁচে গেছি! আহত হওয়া তো 
দূরের কথা।

কিন্তু নাঈমের মতো ছেলেরা ময়লার গাড়ির সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে মরে যায়। সে এক বিরাট ব্যাপার। সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে মরলে শহীদ হওয়া যায়। কেন যে ঠুনকো মোটরবাইক আর সাইকেলচালকদের চাকার সঙ্গে ধাক্কা খাই আমরা!

বেশ কয়েকবার চোখে পড়েছে, ফুটপাতে মোটরবাইক উঠিয়ে দিলে পথচারীরা বাইকারদের সঙ্গে ঝগড়া বাধিয়ে দেয়। ঘটনা শেষে হাতাহাতিতে গিয়ে গড়ায়। আর মোড়ে মোড়ে ‘অসহায়’ ট্রাফিক পুলিশ যানজট নিয়ন্ত্রণে ব্যস্ত থাকে। রাস্তার মাঝ বরাবর ফুটপাতে কী হয়, কী না হয়, তা নিয়ে তাদের কোনো মাথাব্যথা থাকে না। থাকার কথাও না। যেকোনো যানচালকের ন্যূনতম আইনের ধারণা থাকার কথা, বিবেক থাকার কথা। তবে কেউ আইন অমান্য করলে যে পুলিশের একটা দায়িত্ব থাকে, সেটা আশা করি বারবার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে মনে করিয়ে দিতে হবে না।

‘ফুট’ মানে পা আর ‘পাথ’ মানে পথ—শব্দ ধরে অর্থ না জানলেও একজন পড়ালেখা না জানা মানুষও বলতে পারবেন ফুটপাত হচ্ছে পায়ে হাঁটার পথ। হেঁটেই মানুষ ফুটপাতের ওপর দিয়ে চলাচল করে, দ্বিচক্রযান নিয়ে নয়। এ কথা বলে প্রতিবাদ করতে গেলে অন্যায়কারী ‘চোরের মায়ের বড় গলা’ প্রবাদটি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে প্রয়োগ করেন। ব্যাপারটা হয়ে যায় এ রকম, দুই পক্ষ একে অপরকে ‘বেয়াদপ’, ‘অসভ্য’ আখ্যা দিয়ে তর্কযুদ্ধ চালিয়ে যেতে থাকে। দুই পক্ষই যার যার কারণ প্রতিষ্ঠা করতে ব্যস্ত থাকে। চলে একে অপরকে অসম্মান করার প্রতিযোগিতা। দেখুন তো, ঘটনা কোথা থেকে কোথায় গিয়ে গড়ায়!

এ প্রসঙ্গে আরেকটা ঘটনা মনে পড়ল। একবার গন্তব্যে যাওয়ার জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশায় উঠেছি। ট্রাফিক জ্যাম ঠেলে ঠেলে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে অটোরিকশা। এর মধ্যে বাঁ পাশ থেকে একটা ব্যক্তিগত গাড়ি বরাবর এসে গতি ধীর করে। গাড়ি আর অটোরিকশাচালকেরা জড়িয়ে যান তর্কে। কেন গাড়িটিকে অটোরিকশা জায়গা দিল না ডান পাশে যাওয়ার জন্য, তা নিয়ে ঝগড়া। তর্কে তর্কে অটোরিকশাচালক জানালেন, তাঁর বয়স ৫০ আর গাড়িচালক বললেন, তাঁর বয়স ৩০। যান চালনার অভিজ্ঞতা নিয়ে চলল আরেক দফা বাগ্‌বিতণ্ডা। জায়গা পেলে গাড়িচালক বিড়বিড় করতে করতে সামনে এগিয়ে যান। আমার বেশি বয়সী অটোরিকশাচালক বললেন, ‘দুনিয়াডা বেদ্দপের, বুঝলেন?’

সৈয়দা সাদিয়া শাহরীন
সহসম্পাদক, আজকের পত্রিকা

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    আমার প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়টি ভালো নেই

    বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করেই কেন আন্দোলন থামাতে হয়?

    বিপ্লবে মেহেদীরাও শরিক

    যাত্রীদের নিরাপত্তায় চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে নিরাপত্তা বেড়া

    নিখোঁজের ১৩ দিন পর বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

    শিক্ষককে মারধর করে অব্যাহতিপত্রে সাক্ষর নেওয়ার অভিযোগ

    চবির হলে জ্বর-সর্দির প্রকোপ, করোনা পরীক্ষায় অনীহা

    জাজিরায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত

    ইউক্রেনে ‘মারণাস্ত্র সহায়তা’ পাঠালো যুক্তরাষ্ট্র