Alexa
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

ত্রিশালে বিদ্রোহে কোণঠাসা আওয়ামী লীগের প্রার্থী রা

আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২১, ১৭:১০

ত্রিশালে বিদ্রোহে কোণঠাসা আওয়ামী লীগের প্রার্থী রা আগামী ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে সামনে রেখে সরগরম ত্রিশাল। উপজেলার ১২ ইউপির কয়েকটিতে প্রচারণায় বাধা ও হুমকির অভিযোগও রয়েছে। নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকেরা নির্বাচনী ক্যাম্প ও মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছেন বলে জানা গেছে। ভোটের দিন যতই এগিয়ে আসছে, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও ততই বাড়ছে বলে স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন। ত্রিশালের ১২টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৫৫ জন প্রার্থী রয়েছেন বলে নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে।

দলীয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বেশির ভাগ ইউপির চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন আওয়ামী লীগেরই নেতারা। এই বিদ্রোহীরা নৌকার প্রার্থীর জন্য দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন। কোথাও কোথাও নৌকার প্রার্থীরা কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন বলেও খবর মিলেছে। প্রায় প্রতিটি ইউপিতে নৌকার বিপক্ষে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী লড়ছেন। ফলে অনেক ইউপিতে নৌকার বিজয় নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিদ্রোহীদের সতর্কবার্তা এবং বহিষ্কার করা হলেও তা তেমন কাজে আসেনি।

জানা গেছে, সম্প্রতি উপজেলার কানিহারী ইউনিয়নে নৌকার ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকেরা একে অপরের ওপর হামলা ও নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ করেন। মঠবাড়ীতে দুই বিদ্রোহী প্রার্থীকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে নৌকার প্রার্থীকে। একজন বিদ্রোহী প্রার্থী অভিযোগ করেছেন, তাঁর কর্মীদের রাতের অন্ধকারে উঠিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এবং হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। তবে নৌকার প্রার্থী এ অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো তাঁর বিরুদ্ধে নানা ধরনের অভিযোগ করেছেন।

সাখুয়া ইউপির এক প্রার্থী অভিযোগ করেন, এক প্রার্থী ৫-৭ শ লোক নিয়ে গভীর রাতে দা, লাঠি নিয়ে রাত একটার পর নির্বাচনী কেন্দ্র ভাঙচুর করেছে। পরে নেতা–কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে বাড়িঘরে পুলিশ পাঠিয়েছে এবং তল্লাশি চালিয়েছে। প্রতিপক্ষের লোকজন দুটি কার্যালয় বন্ধ করে দিয়েছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

তবে ওই প্রার্থী এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমার শেখ বাজারের মিটিংয়ের মূল আয়োজককে মেরে নাক, মুখ ফুলিয়ে দিয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে মামলা হয়েছে।’

আরেক ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও প্রার্থী জানান, তাঁর তিনটি কার্যালয়ের মধ্যে একটি কিছু দুর্বৃত্ত গভীর রাতে ভেঙে দিয়েছে। তারা চিহ্নিত। থানা-পুলিশকে বিষয়টি জানানো হলেও ব্যবস্থা নেয়নি বলে দাবি করেন তিনি তিনি।

একটি ইউপির নৌকার প্রার্থী মো. হাবিবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, কালো টাকার ছড়াছড়ি ও বহিরাগতদের আগমন বাড়ছে তাঁর ইউপিতে।

তবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সব প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ময়মনসিংহ জেলার পুলিশ সুপার মো. আহমার উজ্জামান। তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ থাকবে। নির্বাচন যেভাবে হওয়ার কথা, যেভাবে হওয়ার নিয়ম, সেভাবেই হবে। কোনো ধরনের সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি যাতে সৃষ্টি না হয় এবং নির্বাচনকে কলুষিত করার মতো যাতে কিছু না ঘটে, সে জন্য জেলা প্রশাসন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ সব বাহিনী সচেষ্ট থাকব।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিদ্যালয় চালু রাখার দাবি

    কবর খুঁড়ে কঙ্কাল চুরি

    শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সমর্থন দিল বাম গণতান্ত্রিক জোট

    শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের সংহতি জানাতে একাই দাঁড়ালেন চবি শিক্ষক মাইদুল ইসলাম

    পুলিশের ‘বাধায়’ ছাত্রদলের প্রতীকী অনশন পণ্ড করার অভিযোগ 

    বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোতে চাকরি

    শক্তিশালী ইসি গঠনে আইন প্রণয়ন করছে সরকার: কাদের

    হাসপাতাল থেকে নবজাতক চুরি