Alexa
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

ডব্লিউটিও মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে ৩ প্রস্তাব দেবে বাংলাদেশ

আপডেট : ২৩ নভেম্বর ২০২১, ২০:৪৯

আগামী ৩০ নভেম্বর সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠেয় বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে বাংলাদেশর পক্ষ থেকে তিনটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হবে। ছবি: রয়টার্স আগামী ৩০ নভেম্বর সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) মন্ত্রী পর্যায়ের ১২তম বৈঠক শুরু হচ্ছে। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির নেতৃত্ব বাংলাদেশের চার সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল এ বৈঠকে যোগ দেবেন। এতে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তিনটি প্রস্তাব দেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। 

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, জেনেভাতে ডব্লিউটিও মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে উত্থাপনের জন্য তিনটি প্রধান এজেন্ডা নির্ধারণ করা হয়েছে। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পর রপ্তানির ধারাবাহিকতা ও অর্থনৈতিক গতিশীলতা অব্যাহত রাখতে উন্নত দেশগুলোর বাজারে বাংলাদেশ একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য শুল্ক ও কোটামুক্ত পণ্য প্রবেশাধিকার সুবিধাসহ ৩টি পয়েন্টের ওপর আলোচনা করবে বলে জানান তিনি। 

এ ব্যাপারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং ডব্লিউটিও সেলের মহাপরিচালক মো. হাফিজুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ডব্লিউটিও মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে আমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের (এলডিসি গ্র্যাজুয়েশন) পর একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত উন্নত দেশগুলোতে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধা পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিতে আলোচনা করা। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ মধ্য আফ্রিকার দেশ চাদের সঙ্গে স্বল্পোন্নত দেশ হওয়ার পর রপ্তানিতে শুল্ক সুবিধার ধারাবাহিকতার প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি তুলে ধরবে। আমরা চাদের মাধ্যমে আমাদের দাবিগুলো উত্থাপন করব।’ 

এদিকে বাংলাদেশ ২০২৪ সালে এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় উন্নীত হওয়ার কথা। জাতিসংঘের উন্নয়ন নীতি-সংক্রান্ত কমিটি ইউএনসিডিপি কোন দেশ এই তালিকাভুক্ত হবে—সে বিষয়টি নির্ধারণ করে। তবে বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে এই সময়সীমা ২০২৬ সাল পর্যন্ত বাড়িয়েছে ইউএনসিডিপি। সে হিসাবে বাংলাদেশি পণ্যের প্রধান রপ্তানি গন্তব্য ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশ এবং যুক্তরাজ্যে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধা ২০২৬ সাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। তবে এর পর ইউরোপের বাজারে পণ্য রপ্তানিতে বাংলাদেশকে ১২ শতাংশ শুল্ক দিতে হবে। 

উল্লেখ্য, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে কোনো দেশ উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পর আন্তর্জাতিক বাজারে শুল্ক ও কোটামুক্ত প্রবেশাধিকার ও সুবিধাপ্রাপ্তির বিষয়ে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সদস্য দেশগুলোর ক্ষেত্রে বেশ কিছু বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আর উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হলে বাংলাদেশ বিশ্ব বাণিজ্যে তীব্র প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হবে। আর রপ্তানির ধারাবাহিকতা ও অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য বাংলাদেশের আরও বেশি সময় শুল্ক সুবিধা পাওয়া জরুরি। রপ্তানিতে বাংলাদেশের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ ভিয়েতনামের সঙ্গে এরই মধ্যে ইইউর একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি হয়েছে, যা রপ্তানিতে বাংলাদেশকে আরও প্রতিযোগিতার মুখে ফেলবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রাকাবের চেয়ারম্যান হিসেবে পুনর্নিয়োগ পেলেন রইছউল আলম

    ইভ্যালিকে ব্যাংক থেকে ২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা তোলার অনুমতি 

    ইসলামী ব্যাংকের ব্যবসায় উন্নয়ন সম্মেলনের উদ্বোধন

    বিপিএলে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের ট্রাভেল পার্টনার ইউএস-বাংলা

    গভর্নরের সঙ্গে এবিবির নবনির্বাচিত নেতাদের সাক্ষাৎ

    করোনায় কাজ হারানো ৭% শ্রমিক এখনো বেকার

    উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের আগুন

    মেসিকে টপকে টানা দ্বিতীয়বার ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড় হলেন লেভানডফস্কি

    করোনার সঙ্গে ইনফ্লুয়েঞ্জা ইউরোপে ‘টুইন্ডেমিক’

    অভিনয়শিল্পী শিমুর বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার

    চীনের নজর মধ্যপ্রাচ্যে বড় চ্যালেঞ্জ যুক্তরাষ্ট্র

    নীলফামারীতে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, যুবক আটক