Alexa
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

 ‘রাস শান্তি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য’

আপডেট : ১৮ নভেম্বর ২০২১, ২৩:২৮

 শ্রীশ্রী কান্তজিউ মন্দিরে রাস উৎসব উদ্বোধন করছেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। ছবি: আজকের পত্রিকা  যারা ধর্মনিরপেক্ষ চেতনায় বিশ্বাস করে না, তারা বাংলাদেশের চেতনাকে বিশ্বাস করতে পারে না উল্লেখ করে দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশে প্রতিটি মানুষ নিশ্চিন্তে ধর্ম পালন করছে। রাস শান্তি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য। বিনষ্টকারীরা যত বড়ই শক্তিশালী হোক না কেন, তাদের ছাড় দেওয়া হবে না। 

আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর কাহারোল উপজেলায় ঐতিহাসিক শ্রীশ্রী কান্তজিউ মন্দিরে রাস উৎসব উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি গোপাল এসব কথা বলেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শরিফুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে ও ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. ডি সি রায় এর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইমাম চৌধুরী, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ কুমার বকসী বাচ্চু, জেলা পরিষদ সদস্য মীরা মাহবুব, দেবোত্তর এস্টেট এর সদস্য রতন সিং, বিমল দাস প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাজ দেবোত্তর এস্টেট এর এজেন্ট রনজিৎ কুমার সিংহ। 

এদিকে ঐতিহাসিক রাস উৎসবকে ঘিরে দিনাজপুর কান্তজিউ মন্দির এলাকা সকল ধর্মের মানুষের ভিড় জমে উঠেছে। এ দিনে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ ভগবানের কাছে দেশের মানুষের সুখ-শান্তি এবং দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য প্রার্থনা করছে। রাত ১২টা ১ মিনিটে রাস তিথি ঘোরানো হবে। এ অপেক্ষায় রয়েছে ভক্তরা। 

উল্লেখ্য, দিনাজপুরের কাহারোলে আছে দেশের সুন্দরতম টেরাকোটা সমৃদ্ধ কান্তজিউ মন্দির। দিনাজপুরের মহারাজ প্রাণনাথ রায় ১৭২২ সালে মন্দিরটির নির্মাণকাজ শুরু করেছিলেন। এর নির্মাণকাজ শেষ করেন তাঁর পালক পুত্র রামনাথ রায়, ১৭৫২ সালে। প্রতিবছর এখানে মাসব্যাপী রাস উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। মূলত দিনাজপুর মহারাজের সময় থেকে, অর্থাৎ ১৭৫২ সাল থেকে এই রাস উৎসব উদ্‌যাপিত হয়ে আসছে। মন্দির প্রতিষ্ঠার পর থেকে চিরাচরিত প্রথানুযায়ী ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীর আগের দিন পুনর্ভবা নদীপথে নৌবহর করে কান্তজিউ মন্দিরে থাকা কান্তনগর বিগ্রহ দিনাজপুরের রাজবাড়ির মন্দিরে নিয়ে যাওয়া হয়। কান্তনগর সেখানে তিন মাস অবস্থান করে। এরপর কার্তিক পূর্ণিমার এক দিন আগে ভক্ত-পুণ্যার্থীরা হেঁটে কান্তনগর বিগ্রহকে ফের মন্দিরে নিয়ে আসেন। রাজপরিবারের ঐতিহ্য মেনে এখনো এখানে রাস উৎসব হয়। মেলা বসে, লোকে-লোকারণ্য হয়ে ওঠে মন্দিরের বিস্তীর্ণ মাঠ।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    নবাবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুলছাত্র নিহত

    বিজিবির কাছে ২ ছাত্রকে ফেরত দিয়েছে বিএসএফ

    দিনাজপুরে বাসের চাপায় নিহত ২ 

    ২ মাদ্রাসা ছাত্রকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ, ফেরত চেয়েছে বিজিবি

    নীলফামারীতে পিটিয়ে হত্যা, মরদেহ উদ্ধার দিনাজপুরে

    হিলি স্থলবন্দরে দুই দিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কমেছে

    নীলফামারীতে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, যুবক আটক

    আহত শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার দায়িত্ব নিল শাবিপ্রবি প্রশাসন

    সৌদি আরবে পাওয়া গেল ৪৫০০ বছর আগের মহাসড়ক

    ‘আপনার সার্ভিসের আর প্রয়োজন নেই’, শিক্ষকদের অব্যাহতির চিঠি

    বিএসআরএম কারখানায় ৩ শ্রমিক বিদ্যুতায়িত

    কোহলির জায়গা নিতে রাজি বুমরা