Alexa
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

সেকশন

epaper
 

আয়কর দিতে অনীহা

আপডেট : ১৭ নভেম্বর ২০২১, ১৩:২১

হবিগঞ্জে উপ-কর কমিশনার কার্যালয় থেকে তোলা ছবি। ছবি: আজকের পত্রিকা আয়কর প্রদানে করদাতাদের উদ্বুদ্ধ করতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এরপরও হবিগঞ্জে করদাতাদের মধ্যে কর দিতে অনীহা দেখা যাচ্ছে। এমনকি করের পরিমাণ কমিয়েও কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হচ্ছে না। মেয়াদ শেষ হয়ে এলেও জেলায় রিটার্ন আদায় হয়েছে মাত্র এক-চতুর্থাংশ।

হবিগঞ্জ উপ-কর কমিশনারের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলাকে মোট ৩টি কর অঞ্চলে বিভক্ত করা হয়েছে। এখানে মোট করদাতার সংখ্যা ৩৩ হাজার ২৮৬ জন। অথচ চলতি বছর কর প্রদানের মেয়াদ শেষ হয়ে এলেও এখন পর্যন্ত রিটার্ন জমা হয়েছে মাত্র ৩ হাজার ২৩৯টি।

জেলায় চলতি বছর ৭৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা আয়কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। অথচ ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত কর আদায় হয়েছে ১৮ কোটি ৩২ লাখ ৫১ হাজার ৪০৩ টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে তিন গুণ কম।

উপ-কর কমিশনারের কার্যালয় সূত্র আরও জানায়, গত ২০২০-২১ অর্থবছরে কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৮০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে আদায় হয়েছে ৭৬ কোটি ৯৮ লাখ ৪১ হাজার ৩২ টাকা। রিটার্ন জমা হয়েছিল ১২ হাজার ৮৪৭টি।

এদিকে চলতি বছর সবচেয়ে বেশি কর আদায় হয়েছে সদর সার্কেলে। এখানে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত আদায় হয়েছে ১৮ কোটি টাকা। এ ছাড়া মাধবপুর সার্কেলে ১২ লাখ ৪৬ হাজার ৭৩৫ টাকা এবং নবীগঞ্জ সার্কেলে ২০ লাখ ৪ হাজার ৬৬৬ হাজার টাকা আদায় হয়েছে।

কর কমিশনারের কার্যালয়ের কর্মকর্তারা জানান, সদর সার্কেলে ব্যবসায়ী ও সরকারি চাকরিজীবী বেশি থাকায় এখান থেকে কর আদায় হয় বেশি। তবে সব কটি সার্কেলে শতভাগ কর আদায়ের লক্ষ্যে গত বছরের তুলনায় এবার লক্ষ্যমাত্রা কম নির্ধারণ করা হয়। গত অর্থবছরে জেলায় লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮ কোটি ৩২ লাখ ৫১ হাজার ৪০৩ টাকা। এ বছর তা কমিয়ে আনা হয়েছে ৭৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকায়।

প্রতিবছর কর আদায়ের জন্য ‘কর মেলার’ আয়োজন করা হয়। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে দুই বছর ধরে ‘কর মেলা’ হচ্ছে না। যদিও জেলা উপ-কর কমিশনারের কার্যালয়ে ‘মেলার পরিবেশে রিটার্ন গ্রহণ ২০২১’ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ১ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে মাসব্যাপী।

এদিকে নভেম্বর পর্যন্ত রিটার্ন আদায়ের সময়সীমা থাকলেও মাত্র এক-চতুর্থাংশ আদায় হওয়ায় হতাশ কর্মকর্তারা। তবে তাঁরা বলছেন, প্রতিবছরই শেষের দিকে বেশি কর আদায় হয়। অনেক করদাতা মনে করেন নভেম্বর পর্যন্ত মেয়াদ থাকলেও ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হবে। যে কারণে এখনো তেমন সাড়া মিলছে না।

সিলেট জোন (সদর সার্কেল) সহকারী কর কমিশনার মোহাম্মাদ আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘একজন ব্যক্তি সর্বনিম্ন তিন হাজার টাকা কর দিতে হয়। আয়ের ওপর নির্ভর করে কর নির্ধারণ করা হয়। আমরা শতভাগ কর আদায়ের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি। কিন্তু এরপরও তেমন সাড়া মিলছে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আশাহত হচ্ছি না। প্রতিবছরই দেখেছি, শেষের দিকে ব্যাপক রিটার্ন জমা পড়ে। এ বছরও শেষের দিকে ব্যাপক রিটার্ন জমা পড়বে বলে আমরা মনে করি। তবে নভেম্বর পর্যন্ত মেয়াদ থাকলেও আমরা ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানোর চিন্তা করছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    বিচ্ছিন্ন জনপদ রামুক্যাছড়ি পৌঁছায় না সরকারি সুবিধা

    বিসিএসজট কাটাতে কোন পথে পিএসসি

    মিশ্র বর্জ্যে ঝুঁকিতে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা

    ৫ দশকে হারিয়ে গেছে ২৮ নদী, শতাধিক খাল

    আগ্রাসী ঋণে ঝুঁকছে ব্যাংক

    টিকিটসহ ধরা বুকিং সহকারী, বরখাস্ত

    ভোটে ‘লড়তে’ হচ্ছে আ.লীগের পিকুলকে

    ভোটে হেরে গিয়ে লেবু চাষ বুলবুলের বাজিমাত

    ধুঁকছে কমিউনিটি ক্লিনিক

    দেড় বছরে রডে মরিচা অতঃপর কাজ শুরু

    আফিফ বলছেন, তাঁদের ওপর চাপ নেই

    ঘরে বাবার লাশ রেখে পরীক্ষার হলে মাকসুদা